অবৈধ স্থাপনামুক্ত সাচনাবাজার

জামালগঞ্জ সংবাদদাতা
জামালগঞ্জের সাচনা বাজারের অবৈধ স্থাপনা পুনঃরায় উচ্ছেদ করা হয়েছে। রবিবার বেলা ১১টায় অবৈধ দখলদারদের বিরুদ্ধে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে উপজেলা প্রশাসন। বাজার দখলের অভিযোগে দু’জনকে ৪ হাজার টাকা জরিমানা করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।
জানা যায়, গত শনিবার উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে মাইকিং করে বাজারের সকল অবৈধ ব্যবসায়ীদের গলি ছাড়ার নির্দেশনা জারি করা হয়। এরই প্রেক্ষিতে বাজার দখলমুক্ত করতে দÐবিধির ১৮৬০-এর ২৯১ ধারা মোতাবেক জামালগঞ্জ উত্তর ইউনিয়নের সাচ্না গ্রামের আব্দু মিয়ার ছেলে মো. নূর মিয়া (৫০) কে ২ হাজার এবং বেহেলী ইউনিয়নের রহিমাপুর গ্রামের যোগেন্দ্র রায়ের ছেলে অর্জুন রায় (৩৬) কে ২ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। আদালত পরিচালনায় নেতৃত্ব দেন সহকারী কমিশনার (ভ‚মি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আয়েশা আক্তার।
উল্লেখ্য, প্রায় ১৪ মাস পূর্বে জামালগঞ্জের সাবেক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শামীম আল ইমরান সকলের সহযোগিতায় দীর্ঘদিনের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করে ঐতিহ্যবাহী সাচ্না বাজার দখলমুক্ত করার পাশাপাশি গলির মাঝখানে ডিভাইডার দিয়ে জনসাধারণের চলাচলে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে এনেছিলেন। কিন্তু কিছুদিন যেতে না যেতেই ফের অবৈধ দখলে চলে যায় বাজারের গলিটি। এ অবস্থায় মুমূর্ষু রোগী বহনকারী এম্বুলেন্সসহ জরুরী যাত্রীবাহী সিএনজি, অটোবাইক, মালবাহী পিকআপ বাজারে প্রবেশ করতে পারছিল না। এতে করে সকল স্তরের মানুষের মধ্যে চরম ক্ষোভ ও অস্বস্তি দেখা দেয়।
সম্প্রতি সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসক মো. আব্দুল আহাদ জামালগঞ্জে আসলে তিনি বাজার দখলের বাস্তব চিত্র দেখতে পান। এ অবস্থায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রিয়াংকা পালকে বাজার দখলমুক্ত করার নির্দেশনা প্রদান করেন। উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বাজারের সকল অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের উদ্যোগ নিলে সামনে ঈদুল আযহা থাকায় ভাসমান ব্যবসায়ীদের অনুরোধে বিষয়টি মানবিক বিবেচনায় নিয়ে ঈদ পর্যন্ত ব্যবসা চালিয়ে যাওয়ার মৌখিক অনুমতি প্রদান করা হয়। ঈদ শেষে পুনঃরায় সাচনাবাজার অবৈধমুক্ত করে উপজেলা প্রশাসন।
এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রিয়াংকা পাল বলেন, ‘জনস্বার্থে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের কার্যক্রম চলমান থাকবে।’