আগামীকাল একনেক সভায় উত্থাপন

বিশেষ প্রতিনিধি
সুনামগঞ্জ মেডিকেল কলেজের ১১’শ ৭ কোটি টাকার প্রকল্প আগামীকাল রোববার একনেকে অনুমোদনের জন্য কার্যতালিকায় অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। একনেকে অনুমোদন হলেই প্রকল্পটির বাস্তবায়ন শুরু হবে।
সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার কাঠইড় মৌজায় সুনামগঞ্জ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের জন্য এই বছরের মার্চ মাসে ৩৫ একর জমি অধিগ্রহণের সিদ্ধান্ত হয়। এই জমির মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ২৫ কোটি ২৮ লাখ ৫৯ হাজার টাকা। সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার সুনামগঞ্জ-সিলেট মহাসড়ক ঘেঁষে মদনপুর-দিরাই সড়কের উভয় পাশেই সুনামগঞ্জ মেডিকেল কলেজের জমি অধিগ্রহণের সিদ্ধান্ত হয়।
অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান এমপি’র প্রচেষ্টায় প্রকল্পটি আলোর বাস্তবায়িত হবার সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রীর পক্ষে শুরুতেই প্রকল্পটির সমন্বয়কের দায়িত্ব পালন করেন ঢাকায় অবস্থানরত সুনামগঞ্জের তরুণ শিল্প উদ্যোক্তা শ্যামল রায়।
শ্যামল রায় জানান, গত ২৩ অক্টোবর সুনামগঞ্জ মেডিকেল কলেজের প্রজেক্ট ইভালুয়েশন কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়। পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য (আর্থ সামাজিক) দেলোয়ার বখ্ত’এর সভাপতিত্বে সভায় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ, স্বাস্থ্য অধিদপ্তর, গণপূর্ত, স্থাপত্য, পরিকল্পনা কমিশনসহ সংশ্লিষ্ট সকল দপ্তর ও মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধি সভায় উপস্থিত ছিলেন। এই সভায় সুনামগঞ্জ মেডিকেল কলেজের ডিপিপি মূল্যায়ন ও প্রয়োজনীয় সুপারিশ প্রণয়ন করা হয়। এই সুপারিশের ভিত্তিতে ডিপিপি চূড়ান্তকরণেরও নির্দেশ দেওয়া হয়।
এই সভায় সুনামগঞ্জ মেডিকেল কলেজের প্রস্তাবিত অবকাঠামো’র কিছু পরিবর্তন সাধিত হয় এবং পূর্ব প্রাক্কলিত ব্যয় ১১ শ’ এক কোটি টাকার স্থলে বেড়ে ১১ শ’ ৭ কোটি হয়। ২৯ অক্টোবর চূড়ান্ত ডিপিপির অনুমোদন দেন স্বাস্থ্য সচিব সিরাজুল হক খান।
এরপর ৩১ অক্টোবর অর্থমন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিবের সভাপতিত্বে এই প্রকল্পের জনবল নিয়োগের বিষয়টি নিয়ে পর্যালোচনা সভা হয়। ওই দিনই অর্থ সচিব আব্দুর রব তালুকদার কর্তৃক জনবল নিয়োগের বিষয়টি অনুমোদিত হয়। এই দিন বিকালেই প্রকল্পের ডিপিপি পরিকল্পনা কমিশনে যায়।
পহেলা নভেম্বর পরিকল্পনা মন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল ডিপিপি একনেকে তালিকাভুক্তির জন্য অনুমোদন দেন। তাঁর (পরিকল্পনা মন্ত্রী) অনুমোদনের প্রেক্ষিতেই সুনামগঞ্জবাসীর আকাঙ্খিত সুনামগঞ্জ মেডিকেল কলেজ প্রকল্পটি আগামীকাল রোববার’এর একনেক সভায় উত্তাপন হবে।
শিল্প উদ্যোক্তা শ্যামল রায় বললেন,‘অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান মহোদয়ের সার্বক্ষণিক তদারকিতে সুনামগঞ্জ মেডিকেল কলেজের প্রকল্পটি দ্রুততার সঙ্গে এগিয়ে নেবার চেষ্টা করেছি। আমাদের প্রত্যাশা সরকারের বর্তমান সময়কালেই এই প্রকল্পটির প্রাথমিক কাজের সূচনা হবে।’
অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান এমপি বললেন,‘সুনামগঞ্জ মেডিকেল কলেজের কাজের সূচনা হলে হাওরবাসী এবং ব্যক্তিগতভাবে আমার বহুদিনের স্বপ্নপূরণ হবে।’