আটকে আছে নয়টি সেতু নির্মাণ কাজ

স্টাফ রিপোর্টার
১১১ কোটি টাকা ব্যয়ে সুনামগঞ্জে সড়ক ও জনপদ বিভাগের নতুন নয়টি সেতু নির্মাণে বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির অনেকগুলো বৈদ্যুতিক খুঁটি। সড়কের পাশ থেকে বিদ্যুতের খুঁিট না সরানোর কারণে পিসি গার্ডার সেতুর নির্মাণ কাজ করতে পারছেন না ঠিকাদার।
বিদ্যুতের খুঁিট সরানো নিয়ে সওজ কর্তৃপক্ষ ও পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে চিঠি চালাচালি চলছে। কয়েক মাস ধরে চিঠি চালাচালি হলেও গতকাল বৃহস্পতিবার পর্যন্ত খুঁিট সরানোর কোন উদ্যোগ নেওয়া হয়নি বলে জানা গেছে।
সুনামগঞ্জ সওজের নির্বাহী প্রকৌশলী জহিরুল ইসলাম জানিয়েছেন, কথা না বলে কোন ধরনের সমন্বয় না করে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি সড়কের একদম পাশে আমাদের জমিতে অনেকগুলো খুঁিট বসিয়েছে। এখন আবার সেই খুঁটি সরানোর জন্য তারা আমাদের কাছেই অর্থ চাইছেন। খুঁিট না সরানোর কারণে আমাদের সেতু নির্মাণের কাজে মারাত্মক ব্যাঘাত ঘটছে। খুঁটিগুলো দ্রুত সরানোর জন্য আমরা সুনামগঞ্জ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জেনারেল ম্যানেজারকে চিঠি দিয়েছি। বিদ্যুতের এসব খুঁটি সরানো না হলে সেতুর কাজ করা যাবে না। এতে করে নির্মাণ ব্যয় ও সময় বেশী লাগতে পারে।
এদিকে সুনামগঞ্জ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জেনারেল ম্যানেজার অখিল কুমার সাহা’র দাবি, সরকারি ফাকা জমিতে বিদ্যুতের খুঁিট বসানো হয়েছে। সারাদেশেই এইভাবেই খুঁিট বসানো হয়ে থাকে। রাস্তায় সেতু নির্মাণ কাজের প্রাক্কলন তৈরির সময় সওজ খুঁিট সরানোর ব্যয় উল্লেখ করেনি। এখন বলছে, দ্রুত খুঁটি সরিয়ে দিতে হবে। খুঁিট সরানোর জন্য আমরা ঠিকাদারের ব্যয়ের জন্য ডিমান নোট দিয়েছি কয়েক মাস আগে। সওজ কর্তৃপক্ষ এখন বলছেন, এই কাজের কোন বরাদ্দ না থাকায় তারা কোন অর্থ দিবেন না। বিষয়টি আমরা উর্ধ্বতন কতৃপক্ষের কাছে জানাব। কর্তৃপক্ষের পরবর্তী মতামতের ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেয়া হবে।’
সুনামগঞ্জ সওজ সূত্রে জানা যায়, জেলার গোবিন্দগঞ্জ-ছাতক-দোয়ারাবাজার সড়ক একটি গুরুত্বপূর্ণ সড়ক। এই সড়ক দিয়ে দুইটি সিমেন্ট কোম্পানী সিমেন্ট পরিবহনসহ বালি-পাথর পরিবহন হয়ে থাকে। সড়কের বিভিন্ন স্থানে নয়টি সেতু সরু হওয়ায় প্রায়ই যানঝট লেগে থাকে এবং জরাজীর্ন সেতু ভেঙে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পরে। তাই সরু ও জরাজীর্ন নয়টি সেতু ভেঙে নতুন পিসি গার্ডার সেতু নির্মাণের উদ্যোগ নেয়া হয়। ১১১ কোটি টাকা ব্যয়ে তিনটি প্রকল্পে কাজ বাস্তবায়ন হচ্ছে। নয়টি সেতুর মধ্যে ২ টি সেতু চার লেন ও ৭টি সেতু দুই লেন করে নির্মাণ করা হবে। ঠিকাদারকে সেতুর কার্যাদেশ দেওয়া হয়েছে। কিন্তু সড়কের পাশে পল্লী বিদ্যুতের খুঁিট থাকায় নির্মাণ কাজে ব্যাঘাত ঘটছে। দ্রুত খুঁিট সরানোর তাগিদ দিয়ে সর্বশেষ গত ১২ মে সুনামগঞ্জ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জেনারেল ম্যানেজারকে চিঠি দেন সুনামগঞ্জ সওজের নির্বাহী প্রকৌশলী। চিঠিতে এই সড়কটি ভবিষ্যতে চারলেনে উন্নয়ন করা হবে উল্লেখ করে পরবর্তীতে সড়ক নিরাপদ রেখে খুঁিট বসানোর অনুরোধ করা হয়।
সুনামগঞ্জ সওজের নির্বাহী প্রকৌশলী স্বাক্ষরিত চিঠি পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে সুনামগঞ্জ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জেনারেল ম্যানেজার অখিল কুমার সাহা বলেন, বিষয়টি কর্তৃপক্ষকে অবগত করা হবে।