আটক স্ত্রী ও পুত্রকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৩ দিনের রিমাণ্ড চেয়েছে পুলিশ

স্টাফ রিপোর্টার
দোয়ারাবাজারের মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল বারিক খুনের ঘটনায় জড়িত সন্দেহে আটক স্ত্রী আছিয়া খাতুন ও ছেলে মিলন মিয়াকে রিমা-ে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আবেদন করেছে পুলিশ। সোমবার দোয়ারাবাজার আদালতের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট বেগম ইসরাত জাহানের আদালতে এই দুজনকে হাজির করে ৩ দিনের রিমা- চায় পুলিশ।
কোর্ট ইন্সপেক্টর আশেক সুজা মামুন জানান, বিচারক তাদেরকে জেল হাজতে প্রেরণের আদেশ দিয়ে আগামীকাল মঙ্গলবার রিমা- শুনানীর দিন ধার্য করেন।
রোববার নিজ বাড়িতে খুন হন দোয়ারাবাজারের মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল বারিক। রাতে থানায় মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল বারিকের দ্বিতীয় স্ত্রী’র ছেলে মাসুক মিয়া বাদী হয়ে সৎ মা আছিয়া বেগম ও সৎ ভাই মিলন মিয়াকে আসামী করে খুনের মামলা (নম্বর ৩/২০১৯) দায়ের করেন।
পরে মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল বারিকের প্রথম স্ত্রী আছিয়া বেগম (৫৭) ও ছেলে মিলন মিয়া (২০) কে গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে সোপর্দ করে পুলিশ।
দোয়ারাবাজার থানার ওসি আবুল হাসেম জানালেন, সুলতানপুর গ্রামের কালাশাহ্, রকিব ও হান্নান’এর সঙ্গে মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল বারিক’এর পরিবারের জমিজমা নিয়ে দীর্ঘদিনের বিরোধ রয়েছে পাশের বাড়ি’র কালাশাহ্’এর আত্মীয়-স্বজনের। এর আগে ২০১৭ সালে মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল বারিক’এর পক্ষের সঙ্গে সংঘর্ষে কালাশাহ্’র মেয়ের জামাই খুন হয়। এই মামলায় আব্দুল বারিক’এর ছেলে সাবাজ আলী জেলে রয়েছে। অন্য দুই ছেলে জামিনে রয়েছে। রোববারের ঘটনার পর আব্দুল বারিকের ছেলের দিকের নাতি শাহীনের দেওয়া তথ্য মোতাবেক স্ত্রী আছিয়া খাতুন ও ছেলে মিলন মিয়াকে আটক করে পুলিশ। মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল বারিকের দ্বিতীয় স্ত্রী’র ছেলে মাসুক মিয়া বাদী হয়ে সৎ মা আছিয়া বেগম ও সৎ ভাই মিলন মিয়াকে আসামী করে খুনের মামলা (নম্বর ৩/২০১৯) দায়ের করেন। এই মামলায় তাদেরকে গ্রেফতার করে আদালতে সোপর্দ করে ৩ দিনের রিমা- চাওয়া হয়েছে।