আবারও পেঁয়াজের মূল্য বৃদ্ধি

স্টাফ রিপোর্টার
সুনামগঞ্জে পেঁয়াজের আবারও মূল্য বৃদ্ধি হয়েছে। ভারতীয় পেঁয়াজের আমদানী বন্ধ হওয়ার ঘোষণায় মঙ্গলবার সকাল থেকে শহর ও শহরতলীর হাট-বাজারে পেয়াজের দাম বাড়তে শুরু করেছে। পেঁয়াজ মওজুদ নেই বলে জানিয়েছেন শহরের একাধিক পেঁয়াজের পাইকারী ব্যবসায়ী।
গত এক সপ্তাহ ধরে ২৬ টাকা থেকে ক্রমান্বয়ে পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধি পাচ্ছিল। গত পরশু ছিল ৪৫ টাকা প্রতি কেজি। মঙ্গলবার সকাল থেকে শহরের মুদির দোকানগুলোতে প্রতি কেজি পেয়াজ বিক্রি শুরু হয়েছে ৬০ টাকা করে। দুপুর ২টায় বিক্রি হয়েছে ৮০ টাকা থেকে ৯০ টাকা দরে প্রতি কেজি পেঁয়াজ।
বাজারে পেয়াজ কিনতে আসা ইব্রাহীমপুর গ্রামের মুক্তার আলী জানান, গতকালও ৪৫ টাকা কেজি দরে পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে শহরে। আজ সকাল থেকে পেঁয়াজের দাম বেড়ে ৮০ টাকায় পৌঁছেছে। কয়েক মাস আগে ২৩০ টাকা করে পেঁয়াজ কিনতে হয়েছে আমাদের। এই পেঁয়াজের দর নেমে ২৫ টাকায় এসেছিল। এখন আবার পেঁয়াজের মূল্য বাড়ছে। জরুরি ভিত্তিতে পেঁয়াজের দাম নিয়ন্ত্রণে আনার দাবি আমাদের।
নিয়ামতপুর গ্রামের সেলিম আহমদ বলেন, ভারতীয় পেঁয়াজের আমদানী বন্ধ হওয়ার ঘোষণা শুনেই পাইকারী ব্যবসায়ীরা পেঁয়াজ নাই করে ফেলেছেন। আবার দেখা যায় গোপনে বেশি দামে বিক্রিও করেন তারা। সুনামগঞ্জে যে পেঁয়াজ মজুদ আছে তা খুঁজে বের করা উচিৎ। সেই সাথে খুচরা বাজারে পেঁয়াজের দাম কমানোর ব্যবস্থা করতে সংশ্লিষ্ট দপ্তরের দায়িত্বশীলদের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।
ওইদিন দুপুরে শহরের পেয়াজের পাইকারী বিক্রেতা অসীম রায়, মুখলেছুর রহমান মোল্লা, অমৃত লাল রায় ভীম জানান, হঠাৎ করে সোমবার রাতে পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধি পেয়েছে। ভারতের পেঁয়াজ আমদানী বন্ধ ঘোষণা হওয়ার বিষয়টি সারা দেশে প্রচার হওয়ার পর পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধি হতে শুরু হয়েছে। পাইকারী ব্যবসায়ীরা জানান, সোমবার পাইকারী দরে পেঁয়াজ বিক্রি করার পর এখন আমাদের কাছে পেঁয়াজ মওজুদ নেই। তবে অচিরেই অন্যান্য দেশের পেঁয়াজ আমাদের দেশে আমদানী হবে।