আলোর পথের যাত্রী আমরা

দৈনিক সুনামগঞ্জের খবর অষ্টম বর্ষে পদার্পণ করল। প্রিয় পাঠক, এই পথ চলার সারথি হিসেবে শুরুতেই আপনাকে অভিনন্দন। সুনামগঞ্জের মতো একটি প্রান্তিক শহর থেকে গত সাত বছর নিয়মিত একটি দৈনিক পত্রিকা প্রকাশ যে কত কঠিন, তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। এই কঠিন কাজ অব্যাহতভাবে চালিয়ে যাওয়া কখনও সম্ভব হত না আপনাদের সমর্থন ছাড়া। আপনাদের এই কার্যকর ও অর্থবহ সমর্থনই আমাদের মনোবল। আমরা পথ চলছি সাহসের সঙ্গে, দীপ্র স্বরে আপনাদের তথা পাঠকের মনোবলে। এ জন্য কৃতজ্ঞতাও প্রকাশ করছি।
আমাদের স্বপ্ন ছিল সুনামগঞ্জ থেকে একটি দৈনিক পত্রিকা নিয়মিত প্রকাশ করা। আজ থেকে আট বছর আগে এই স্বপ্নের বীজ পুঁতা হয়ে গিয়েছিল অন্তরের গভীর কোন পলল ভূমিতে। এক বছরের মাথায় ২০১২ সনের ৩০ জুলাই সেই পলিমাটি চিড়ে বেরিয়ে আসে এক সতেজ সবুজ চারাগাছ। ‘দৈনিক সুনামগঞ্জের খবর’ এর নাম। আজ পত্রিকাটি সাত বছর বয়স্কাল অতিক্রম করে অষ্টম বছরে পদার্পণের অনুষ্ঠান করছে। পেছনের সাতটি বছরের দৃশ্যাবলী এক পলকে সেলুলয়েড ফিতার মতো করে টেনে নিলে ভাবি- কেমন করে সম্ভব হলো এই অসাধ্য সাধন। যে শহর প্রায় অবাণিজ্যিক, যেখানে বিজ্ঞাপনের বাজার নেই বললেই চলে, প্রাকৃতিক কারণে জেলা সদরের সঙ্গে যাতায়াত এখনো প্রলম্বিত, সেই শহরে প্রতিদিন আমরা পত্রিকা প্রকাশ করে গেছি। অনলাইনে আপলোড করেছি কোন বিরতি ছাড়াই। আমরা এই কাজটিকে একটি ব্রত হিসেবে গ্রহণ করেছি। সেই ব্রতের সংকল্প ছিল অন্তরের মাধুরী মিশ্রিত। সংকল্পে অটল থেকেই অবিরাম পথ চলার মতোই এই সাতটি বছর কাটিয়ে এসেছি। সামনের দিনগুলোÑযতদিন সম্ভব, একই সংকল্পের দৃঢ়তায় এগোতে চাই। এই পথ চলায় একইভাবে সমর্থন কামনা করি আপনাদের।
পত্রিকা প্রকাশের পেছনে আমাদের কিছু সুনির্দিষ্ট লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য ছিল। সেই উদ্দেশ্য ইতোমধ্যে আমরা বহুবার বহুভাবে প্রকাশ করেছি। প্রতিদিন আমাদের সংবাদ পরিবেশন রীতি থেকে শুরু করে সংবাদ বাছাই ও মন্তব্য স্তম্ভগুলোতেও সেই কথা পরিষ্কার। আমরা এমন এক বাংলাদেশ চাই, যে বাংলাদেশটি জ্ঞানে-বিজ্ঞানে, আন্ত মানবীয় সম্পর্ক নির্ধারণে, উন্নয়নে-উৎপাদনে; বিশ্বসেরা হবে। এমন বাংলাদেশেরই স্বপ্ন দেখেছিলেন আমাদের স্বাধীনতার স্থপতি, বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। এই স্বপ্ন থেকেই মহান মুক্তিসংগ্রাম সংঘটিত হয়েছিল এই জনপদে। পত্রিকা প্রকাশনার মাধ্যমে সমুদ্রবৎ ওই কর্মযজ্ঞে আমরা যদি এক বিন্দু জল দিতে পারি, তাই হবে আমাদের স্বার্থকতা। এতেই ধন্য আমরা, ধন্য দৈনিক সুনামগঞ্জের খবর।
আমরা আলোর পথের যাত্রী। অন্ধকার যেখানে সেখানে আলোর বিচ্ছুরণ ঘটানোই আমাদের অভীপ্সা। সমাজের নানা জায়গা এখনও অন্ধকারাচ্ছন্ন। কোথাও কোথাও তমসার গভীরতা ব্যাপক। এইসব অনালোকিত অন্ধকার আমাদের এগিয়ে যাওয়ার পথে বাধার বিন্ধ্যাচল। সেই কঠিন পথটি সহজ হয়ে যায় যদি লক্ষ সতেজ প্রাণ নিজেদের আলোর মিছিলে শরিক করেন। আমরা আমাদের বিশাল পাঠকগোষ্ঠীকে এমন আলোকিত ব্যক্তি রূপে বিবেচনা করি। আমরা বিশ্বাস করি জনতায়। আমাদের আস্থা জনতায়। আমাদের পাঠক সমাবেশ সেই বৃহত্তর জনতারই একটি অংশ। সুতরাং এগিয়ে যেতে আমাদের কোন দ্বিধা নেই। নিঃশঙ্ক চিত্তে আমরা এগিয়ে যেতে চাই সম্মুখ পানে।