ঈদ বোনাসের দাবিতে হোটেল শ্রমিকদের বিক্ষোভ-সমাবেশ

পবিত্র রমজান মাসে বিনাবেতনে হোটেল শ্রমিকদের ছাঁটাই বন্ধ ও একমাসের বেতনের সমপরিমাণ বোনাস প্রদানের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল সমাবেশ করেছে বাংলাদেশ হোটেল রেস্টুরেন্ট মিষ্টি বেকারী শ্রমিক ইউনিয়ন রেজি: নং চট্ট: ২১২৬ এর সুনামগঞ্জ জেলা শাখা। এছাড়াও রবিবার সকালে জেলা প্রশাসক বরাবর এক স্মারকলিপি প্রদান করা হয়। স্মারকলিপির অনুলিপি, চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রি, হোটেল মালিকসহ বিভিন্ন দপ্তরে প্রেরণ করা হয়।
স্মারকলিপিতে উল্লেখ করা হয় পবিত্র রমজান মাস মুসলমানদের জন্য সিয়াম সাধনার বার্তা নিয়ে আসলেও অধিকাংশ হোটেল শ্রমিকদের জন্য সিয়াম সাধনার পরিবর্তে অজানা আশঙ্কা নিয়ে আসে। কারণ দীর্ঘ ১১ মাস চাকরী করার পর রমজান মাস আসলে ব্যবসা মন্দার অজুহাত দেখিয়ে অধিকাংশ মালিক হোটেল শ্রমিকদের বিনা বেতনে ছাঁটাই করে দেন। ফলে পবিত্র এই মাসে ছাঁটাইকৃত হোটেল শ্রমিকদের জীবনে নেমে আসে চরম অনিশ্চয়তা, পরিবার-পরিজন নিয়ে শ্রমিকরা সিয়াম সাধনার পরিবর্তে অনাহারে-অর্ধাহারে মানবেতর জীবন যাপন করতে বাধ্য হন। এমনকি শ্রমিকরা ঈদের আনন্দ উদযাপন থেকেও বঞ্চিত হয়। অথচ শ্রমিকদের হাড়ভাঙ্গা পরিশ্রমে মালিকদের পূঁজি আরাম-আয়েশ বৃদ্ধি হয় আর শ্রমিকদের সৃষ্ট মুনাফায় মালিকপক্ষ মহাধুমধামে ঈদ উৎযাপন করেন। ঈদের সময় হোটেল শ্রমিকরা কোন উৎসব বোনাস পান না । ২০০৯ সালের ২৪ নভেম্বর সরকার হোটেল শ্রমিকদের জন্য নি¤œতম মজুরির গেজেট প্রকাশ করেন, ঘোষিত গেজেট অনুযায়ী প্রত্যেক শ্রমিককে এক মাসের বেতনের সমপরিমাণ বছরে ২টি উৎসব বোনাস প্রদানের আইন করা হয়। এরপর ২০১২ সালের ২৬ এপ্রিল সরকার ঘোষিত গেজেট ও শ্রম আইন বাস্তবায়নের প্রেক্ষিতে বাংলাদেশ রেঁস্তোরা মালিক সমিতি ও বাংলাদেশ হোটেল রেষ্টুরেন্ট সুইটমিট শ্রমিক ফেডারেশনের মধ্যে লিখিত চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। অথচ হোটেল মালিকরা সরকারী আইন ও চুক্তি লঙ্ঘন করে সম্পূর্ণ বেআইনীভাবে এই সকল কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছেন। শুধু আইনগতভাবে নয় ধর্মীয় মূল্যবোধ ও মানবাধিকারের দিক থেকেও হোটেল শ্রমিকদের রমজান মাসে বিনাবেতনে ছাঁটাই করা অন্যায়। হোটেল শ্রমিকরা দৈনিক ১০/১২ ঘন্টা অমানবিক পরিশ্রম করে অর্ধাহারে-অনাহারে পরিবার পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করতে বাধ্য হন, যার কারণে হোটেল শ্রমিকদের মধ্যে চরম ক্ষোভ ও অসন্তোষ বিরাজ করছে।
স্মারকলিপি প্রদানের পর পর বেলা ১২টায় বিক্ষোভ মিছিল শহর প্রদক্ষিণ করে আলফাত স্কয়ারে সমাবেশে মিলিত হয়।
সুনামগঞ্জ ট্রেড ইউনিয়ন সংঘের সভাপতি বাদল সরকারের সভাপতিত্বে সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ হোটেল রেষ্টুরেন্ট সুইটমিট শ্রমিক ফেডারেশন এর কেন্দ্রীয় যুগ্ম সম্পাদক সাদেক মিয়া। প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ কৃষক সংগ্রাম সমিতি কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক শাহজাহান কবির, হোটেল শ্রমিক সংঘের সাধারণ সম্পাদক লিলু মিয়া, মিষ্টি বেকারী শ্রমিক ইউনিয়নের কার্যনিবাহী কমিটির সদস্য শুধাংশু রঞ্জন মজুমদার, ছয়দুল ইসলাম, বারকী শ্রমিক সংঘের সভাপতি নাসির মিয়া, সহ-সভাপতি নজরুল ইসলাম, হকার শ্রমিক সংঘের সদস্য বিনন্দ্র কর, রহমত আলী প্রমুখ।