উইকেট গড়ে দেবে বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা ম্যাচের ভাগ্য?

সু.খবর ডেস্ক
বাংলাদেশ হারিয়েছে জিম্বাবুয়েকে। আর সেই জিম্বাবুয়ে বুধবার হারিয়ে দিল শ্রীলঙ্কাকে। তাহলে শুক্রবার যখন মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কা, তখন ম্যাচের ফল কি হবে? বাংলাদেশই জিতবে। কট্টর ভক্তরা খুব সহজেই এমন কিছু বলে দিতে সঙ্কোচ করবেন না। দেবেন নানা যুক্তি। কিন্তু খেলাটা ক্রিকেট। এসব কথা নিরর্থক। পাগলের প্রলাপও। বরং ত্রিদেশীয় সিরিজে সবচেয়ে হাইভোল্টেজ ম্যাচের তকমাই পাচ্ছে ছুটির দিনের বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা লড়াইটি।
কিন্তু আগের দুই ম্যাচ থেকে বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কার শক্তি বা দুর্বলতা তো খোঁজাই যায়। মুখোমুখি লড়াইয়ে নামার আগে টিম ডিরেক্টর খালেদ মাহমুদ সুজনের বাংলাদেশ বা কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহের শ্রীলঙ্কা টিম মিটিংয়ে আগের দুই ম্যাচকে আয়না হিসেবেই ব্যবহার করছেন নিশ্চিত। আর সেই আলোচনায় বড় একটা অংশ জুড়ে থাকবে উইকেট। প্রথম ওয়ানডেতে যে জিম্বাবুয়ে আগে ব্যাট করে বাংলাদেশের বিপক্ষে ১৭০ রানে গুটিয়ে যায়, সেই দলটাই শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে পরের ম্যাচেই আগে ব্যাট করে গড়ে ২৯০ রানের পুঁজি। মিরপুরের উইকেট তো সব একই রকম প্রায়। তাহলে সেই উইকেট কি কোন চ্যালেঞ্জ হতে পারে টাইগারদের জন্য শুক্রবারের ম্যাচে? টাইগার অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজার কথায় আভাস জিম্বাবুয়ে-শ্রীলঙ্কা ম্যাচের মতো উইকেট হলে সেটি বোলারদের জন্য হবে চ্যালেঞ্জিং।
ত্রিদেশীয় সিরিজের নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে মাঠে নামার আগে উইকেট নিয়ে মাশরাফির বিশ্লেষণ এমন, ‘দুইটা ভিন্ন উইকেটে খেলা হয়নি। পার্থক্য গড়ে দিয়েছে সূর্যের আলো। প্রথম ম্যাচ যেটায় খেলেছি সেটা তেমন সূর্যের আলো পায়নি। তাই উইকেট একটু নরম ছিল। নরম থাকায় একটু মন্থরও ছিল। কাল (জিম্বাবুয়ে-শ্রীলঙ্কা) যেটায় খেলা হল, সেটায় বল ব্যাটে ঠিক মতো আসছিল তাই হয়তো শট খেলা সহজ হচ্ছিল।’ উইকেট দেখে এসে টাইগার অধিনায়কের মনে হয়েছে, ‘জিম্বাবুয়ে-শ্রীলঙ্কা যেমন উইকেটে খেলল আমরা হয়তো তেমন উইকেটই পেতে পারি আগামীকাল। এই ক্ষেত্রে বোলারদের জন্য চ্যালেঞ্জ একটু বেশি থাকবে।
আর ব্যাটিং? এক্ষেত্রে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ম্যাচের মতো টপ অর্ডারের জ্বলে ওঠাটা জরুরি বলে মনে করেন মাশরাফি, ‘ভালো উইকেট হলেও যে ব্যাটসম্যানরা ভালো ব্যাটিং করবে তা তো না। বাস্তবায়নটা খুব জরুরি। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে যেভাবে তামিম ব্যাট করেছে, সাকিব শুরু করেছে, বিজয় শুরু করেছে, মুশফিক তো নট আউট ছিল। টপ অর্ডার যদি এভাবে হিসেবি ইনিংস খেলতে পারে তাহলে আমাদের বিশ্বাস আমাদের বড় ইনিংস খেলার সামর্থ্য আছে।’
উইকেট জিম্বাবুয়ে-শ্রীলঙ্কার ম্যাচের মতো হলে বোলারদের জন্য চ্যালেঞ্জ বলছেন মাশরাফি। আগের ম্যাচে সাকিব দারুণ শুরু এনে দিয়েছিলেন বোলিংয়ে। যেটা ধরে রেখেই জিম্বাবুয়েকে গুটিয়ে দেওয়া গেছে ১৭০ রানে। এই শুরুটা সাকিবের কাছে যে আবার আসবে তার নিশ্চয়তা নেই। তাই পেসারদের জন্য হবে সেটা আরো বড় চ্যালেঞ্জের। মাশরাফি অবশ্য তার আস্থার কথাই জানিয়েছেন পেসারদের নিয়ে।
উইকেট চিন্তা কিন্তু শ্রীলঙ্কার জন্য আরেকটু বেশি। যদিও তাদের বেশ কয়েকজন গেল মাসে শেষ হওয়া বিপিএলে দারুণ পারফর্ম করে গেছেন ব্যাটে-বলে। আর তাদের কোচ, বাংলাদেশের সদ্য বিদায়ী প্রধান কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহে তো দীর্ঘদিন এই মাটির চরিত্র নিয়ে ঘাটাঘাটি করে সাফল্যও এনেছেন দলের জন্য। তাকেও এদিন দেখা গেল সদলবলে উইকেট দেখে আসতে। টিপে টিপে বুঝতে চাইলেন, স্বাগতিক কিউরেটররা নিজের দলের হাতে কোন উইকেট তুলে দিয়ে বধ করতে চাইছে তার দেশকে।