উন্নয়নের দাবি এলাকাবাসীর

আকরাম উদ্দিন
সদর উপজেলার জাহাঙ্গীরনগর ইউনিয়নের সৈয়দপুর-আমপাড়া সড়কের পূর্ব পাশে ‘শনিরখাড়া-কৃষ্ণনগর’ বাইপাস সড়ক। এই সড়কে দীর্ঘ ৩৫ বছরেও সংস্কার কাজ হয়নি। ফলে সড়ক দিয়ে চলাচলে ৯ গ্রামের মানুষ চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন। সড়ক সংস্কারসহ একাধিক কালভার্ট নির্মাণের দাবি এলাকাবাসীর।
সৈয়দপুর-আমপাড়া সড়কের পূর্ব পাশে শনিরখাড়া-কৃষ্ণনগর বাইপাস সড়কের দৈর্ঘ্য প্রায় অর্ধ কিলোমিটার। সড়কে চলাচল করতে শনিরখাড়া খালের ভাঙনের উপর বাঁশের সাঁকো নির্মাণ করেছেন স্থানীয়রা। সড়কের রাজানগর গ্রামের পাশে রয়েছে আরও একটি ভাঙন। এই দুই ভাঙনের কারণে সড়কটি কার্যত ব্যবহার অনুপযোগী হয়ে উঠেছে।
এলাকাবাসী জানান, সৈয়দপুর, সাহেবনগর, ঝরঝরিয়া, কাইয়ারগাঁও, কোনাগাঁও, রাজানগর, কৃষ্ণনগর, বাণীপুর, বাঘমারা সহ এলাকার কয়েকটি গ্রামের মানুষের সহজ যোগাযোগ মাধ্যম শনিরখাড়া-কৃষ্ণনগর বাইপাস সড়ক। প্রতিদিন আসা-যাওয়ায় এই সড়ক ব্যবহার করছেন সৈয়দপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী, কৃষ্ণনগর হোসেনিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী, মতিউর রহমান কলেজের শিক্ষার্থী, ব্যবসায়ী, চাকুরিজীবী, রোগী ও বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষজন। সকল মওসুমে এই সড়ক দিয়ে চলাচল করে থাকেন স্থানীয় মানুষ। সড়ক সংস্কার না হওয়ায় ঝুঁকি নিয়ে বাইসাইকেল, মটরসাইকেল, অটো রিক্সা, ট্রলি ইত্যাদি যানবাহন চলাচল করে।
সড়কটি সাবেক রঙ্গারচর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আলী আজগর ও উছমান গণী মাটি ভরাট করে নির্মাণ করেছিলেন। এরপর থেকে এই সড়কে উল্লেখযোগ্য কোনো উন্নয়ন হয়নি।
এ সময় সড়ক উন্নয়নের দাবি জানান, এলাকার বাসিন্দা শিক্ষক মো. হারুনুর রশিদ, সমাজসেবক হুমায়ুন কবীর, রফিকুল ইসলাম, সিদ্দিকুর রহমান, কামাল হোসেন, লিটন মিয়া, সাইফুল ইসলাম, আল আমিন, জাকির হোসেন, দেলোয়ার হোসেন, শফিকুল ইসলাম, আরজু মিয়া, ব্যবসায়ী রহমত আলী, আতাউর রহমান, কবির মিয়া, আব্দুর রশীদ, বেলাল হোসেন রাজু, কাজী নজরুল ইসলাম সহ এলাকার অনেকে।
ইউপি সদস্য ইসমাইল হোসেন ও মো. আবুল হোসেন বলেন,‘পুরাতন এই মাটির সড়কটির দুই স্থানে ভাঙন সৃষ্টি হয়েছে। একটি শনিরখাড়ায়, অপরটি রাজানগর গ্রামের পাশে। ভাঙনে বড় আকারের কালভার্ট নির্মাণসহ সড়ক পাকাকরণ হলে দীর্ঘ স্থায়ী হতো এবং নিরাপদে মানুষ ও যান চলাচল করতে পারতো।’
জাহাঙ্গীরনগর ইউপি চেয়ারম্যান মো. মুকশেদ আলী বলেন,‘শনিরখাড়া-কৃষ্ণনগর বাইপাস সড়কটি কয়েকটি গ্রামের মানুষের সহজ যোগাযোগ মাধ্যম। সড়কে মাটি ভরাট জরুরি প্রয়োজন। এছাড়া পাকাকরণ ও কালভার্ট নির্মাণের জন্য আমার পক্ষ থেকে যথাসাধ্য চেষ্টা করব।’