এবছরই শুরু পাঠদান

বিশেষ প্রতিনিধি
বঙ্গবন্ধু মেডিকেল কলেজ সুনামগঞ্জে এই শিক্ষাবর্ষ থেকেই পাঠদান শুরু হচ্ছে। সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার কাঠইরে হওয়া নতুন এই মেডিকেল কলেজে প্রথম বছরে ৫০ জন শিক্ষার্থী ভর্তি করা হবে। স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগের উপ-সচিব বদরুণ নাহার বৃহস্পতিবার এই বিষয়ক চিঠি সংশ্লিষ্টদের পাঠিয়েছেন। চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে- বঙ্গবন্ধু মেডিকেল কলেজ, সুনামগঞ্জসহ ১৭ টি মেডিকেল কলেজে এবার ২৮২ টি আসন বাড়ানো হয়েছে।
বঙ্গবন্ধু মেডিকেল কলেজ সুনামগঞ্জ’এর অবকাঠামো নির্মাণ কাজও দ্রুত শেষ করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।
পরিকল্পনা মন্ত্রী এমএ মান্নান এমপি দ্রুততার সঙ্গে সুনামগঞ্জবাসীর স্বপ্নের এই প্রতিষ্ঠানটির কাজ শেষ করার তাগিদ দিয়েছেন।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার কাঠইরে (সুনামগঞ্জ-সিলেট সড়কের দিরাই-শাল্লা-জামালগঞ্জ সড়ক মোড়ে) ৩৫ একর জমির উপর শুরু হয়েছে বঙ্গবন্ধু মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল সুনামগঞ্জ’এর ক্যাম্পাস নির্মাণের কার্যক্রম।
মেডিকেল কলেজ এবং ৫০০ শয্যার হাসপাতাল নির্মাণের জন্য ১১ শ’ ৭ কোটি ৮৭ লাখ টাকা ব্যয় নির্ধারণ করা হয়েছে। এর মধ্যে ভূমি অধিগ্রহণ ব্যয় ছিল ২৫ কোটি ২৮ লাখ টাকা।
৫০০ শয্যার হাসপাতাল ভবন, মেডিকেল কলেজ ভবন, অডিটোরিয়াম, ছাত্রাবাস, ডক্টরস ডরমেটরী, ডক্টরস আবাসিক ভবন ইত্যাদি পূর্ত খাতে এবং বৈদ্যুতিক কাজে ব্যয় ৮৩৯ কোটি ৮২ লাখ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।
এরমধ্যে ৮১ কোটি টাকা ব্যয়ে যৌথভাবে রাজধানী’র ডেল্টা কনসোর্টিয়াম ও বঙ্গবিল্ডার্স নয় তলা একাডেমীক ভবনের কাজ করছে। ৩৫০ কোটি টাকা ব্যয়ে ৫০০ বেড’এর হাসপাতাল ভবনের দরপত্র আহ্বান করা হয়েছিল গেল আগস্ট মাসে। ওই সময়ের দরপত্র বাতিল করা হয়েছে। নতুন করে এই ভবনের দরপত্র আহ্বান করা হবে।
এছাড়া এই মেডিকেল কলেজ ক্যাম্পাসের নার্সিং কলেজ একাডেমিক ভবন, নার্সিং কলেজ হোস্টেল ভবন, জরুরি বিভাগের ডরমেটরী, স্টাফ নার্স ডরমেটরী পুরুষ ও মহিলাদের আলাদা আলাদা দুইটি এবং ৮০ কোটি টাকা ব্যয়ে পুরুষ ও মহিলাদের আলাদা আলাদা ৮ তলা ছাত্রাবাস ভবন দুইটি’র দরপত্র আহ্বান করা হয়েছিল গত জানুয়ারি মাসে। এই দরপত্র গ্রহণ করা হয়েছে। ডক্টর ডরমেটরী এবং ইন্টার্নী ডক্টরদের ডরমেটরী ভবনের দরপত্র এখনো হয় নি।
সুনামগঞ্জের সিভিল সার্জন ডা. মো. শামস উদ্দিন আহমদ বললেন, বঙ্গবন্ধু মেডিকেল কলেজ সুনামগঞ্জের একাডেমীক ভবনের কাজ দ্রুত শেষ করার তাগিদ দিচ্ছেন মাননীয় পরিকল্পনা মন্ত্রী। অন্যদিকে ৩-৪ কিলোমিটার দূরের দক্ষিণ সুনামগঞ্জের হাসপাতাল কমপ্লেক্সের সবকয়টি ভবনের কাজ শেষ হয়ে গেছে। আমরা মনে করছি, যত দ্রুত সম্ভব পাঠদান শুরু করতে, পাঠদান আগে শুরু হলে আগে হাওরাঞ্চলের মানুষ কিছু ইন্টার্নী ডাক্তার পাবেন। যা মানুষের উপকারে আসবে। আপাতত দক্ষিণ সুনামগঞ্জের নতুন ৬ ভবনের একটি একাডেমীক ভবন, অন্যগুলোতে ছাত্র এবং ছাত্রী হোস্টেল ও শিক্ষকদের থাকার ব্যবস্থা করার চিন্তা করা হয়েছে।
বঙ্গবন্ধু মেডিকেল কলেজ সুনামগঞ্জ‘র প্রকল্প পরিচালক ডা. শাজাহান কবীর চৌধুরী বলেন, আমরা চেষ্টা করছি ৯ তলা একাডেমীক ভবনের কাজ ২০২২ সালের মধ্যে শেষ করতে। অন্যান্য ভবনের কাজ ২০২৪ সালের আগে শেষ করা যাবে না। করোনা ও বন্যার কারণে একাডেমীক ভবনের কাজ কিছুটা পিছিয়েছে।