এভারেস্ট জয় করলেন জগন্নাথপুরের আকি

জগন্নাথপুর অফিস
এবার পৃথিবীর সর্বোচ্চ শৃঙ্গ মাউন্ট এভারেস্ট জয় করলেন হাওরপারের জগন্নাথপুরের সন্তান ব্রিটিশ বাংলাদেশী আখলাকুর রহমান আকি।
শুক্রবার নেপালের স্থানীয় সময় সকাল সাড়ে ৭ টার দিকে তিনি এভারেস্টের চূড়ায় পৌঁছান।
এর আগে গত ১১ এপ্রিল আকি আহমান মাউন্ট এভারেস্ট জয়ের লক্ষে যুক্তরাজ্য থেকে নেপালে যাত্রা করেন। পরে ১৪ এপ্রিল তিনি এভারেস্টের ক্যাম্পে যোগদেন পর্বতারোহী আকি রহমান। সেখানে তাঁর গাইডদের নির্দেশনা অনুযায়ী মিশন শুরু করেন এবং শুক্রবার হিমালয়ের সর্বোচ্চ শৃঙ্গ মাউন্ট এভারেস্ট জয়ের মধ্য দিয়ে আকি রহমান ব্রিটিশ এভারেস্ট বিজয়ী হিসেবে ইতিহাসে নাম লিখালেন।
আখলাকুর রহমান আকি সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার নলুয়া হাওরপাড়ের চিলাউড়া-হলদিপুর ইউনিয়েনের বাউধরন গ্রামের যুক্তরাজ্যপ্রবাসী মরহুম ইছকন্দর আলীর ছেলে। তিনি বিশ্বজুড়ে পর্বতারোহী আকি রহমান নামেই পরিচিত।
স্বজনদের সূত্রে জানা গেছে, আকি রহমান এক এক করে ছোটবড় বেশ কয়েকটি পর্বতশৃঙ্গে আরোহণ করে অভিজ্ঞতা অর্জনের ধারাবাহিকতায় ২০২০ সালের জুলাই মাসে আফ্রিকার তানজিনিয়ার সবচেয়ে উঁচু পর্বত, যার উচ্চতা ৫ হাজার ৮৯৫ মিটার এবং মাউন্ট কিলিমানজারো জয় করে সাফল্য অর্জন করেন।
এরপর ফ্রান্সের সবচেয়ে উঁচু পর্বত ৪ হাজার ৮১০ মিটার মন্ট ব্লাংক, যা মাউন্ট এভারেস্টের চেয়ে মাত্র ৩৮ মিটার ব্যবধান ওই পর্বতটিও জয় করেন।
একই বছরের অক্টোবরে তৃতীয়বার ২৪ ঘণ্টায় জয়ের চ্যালেঞ্জ নিয়ে রাশিয়া ও ইউরোপের মধ্যে সবচেয়ে উঁচু পর্বত মাউন্ট এলব্রস, যার উচ্চতা ৫ হাজার ৬৪২ মিটার, তা মাত্র ৮ ঘণ্টায় আরোহণ করে বিজয়ী হন। এর পাশাপাশি রাশিয়ার কারবাদিনো-বলকারিয়াও জয় করেন আকি রহমান। এরপর ২০২১ সালে নেপালে অবস্থিত পৃথিবীর সবচেয়ে কঠিনতম পর্বত হিমালয় আমাদা ব্ল্যাম জয় করেন তিনি। যার উচ্চতা ৬ হাজার ৮৫৬ মিটার।
এদিকে, বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত পর্বতারোহী আকি রহমানের এ জয়ে তাঁর নিজ উপজেলা জগন্নাথপুরে আনন্দের জোয়ার বইছে। অনেকে আবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে স্ব স্ব আইডি থেকে অভিনন্দন জানিয়ে পোষ্ট করছেন। এছাড়াও আত্মীয়-স্বজনরা একে অপরকে মিষ্টি মুখ করাচ্ছেন।
এভারেস্ট জয়ী আকি রহমানের খালাত ভাই জগন্নাথপুর পৌরশহরের ইকড়ছই এলাকার বাসিন্দা সামিনুর রহমান বলেন, আকি ভাইয়ের এভারেস্ট জয়ের সফলতার আমরা খুবই আনন্দিত। তিনি ব্রিটিশ হলেও মূলত তিনি হাওরপারের সন্তান। ছোট বেলায় তিনি পবিরারের সঙ্গে যুক্তরাজ্য চলে গিয়েছিলেন। নাড়ীর টানে প্রায়ই দেশে আসেন। তাঁর এই জয়ে পুরো জগন্নাথপুরবাসী আনন্দিত।
চিলাউড়া হলদিপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম বকুল বলেন, আখলাকুর রহমান আকি বিশ্বে আমাদেরকে আলোচিত করেছেন। তাঁর সাফল্য আমরা অভিভুত।