এলআর ফান্ডে ‘সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসক কল্যাণ ট্রাস্ট’ হচ্ছে

স্টাফ রিপোর্টার
হাওরবেষ্টিত সুনামগঞ্জের কোন শিক্ষার্থীর যেন অর্থাভাবে পড়াশুনা বন্ধ না হয়। সেই লক্ষে ‘সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসন কল্যাণ ট্রাস্ট’ নামে সেবামূলক ট্রাস্ট গঠনের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। জেলা প্রশাসক জাহাঙ্গীর হোসেন স্থানীয় রাজস্ব তহবিল হতে দেওয়া এককালীন অনুদানকৃত বড় অংকের টাকা দিয়ে এই ট্রাস্টের সূচনা হবে।
দেশের যে কোন প্রতিষ্ঠানে অধ্যয়নরত সুনামগঞ্জ জেলার স্থায়ী বাসিন্দা অদম্য মেধাবীরা এই ট্রাস্ট থেকে সহায়তা পাবে। এই ট্রাস্ট থেকে প্রাপ্ত সহায়তা কালেক্টরেটের কর্মকর্তা কর্মচারীর সন্তান সন্ততিদের জন্য ৫০ শতাংশ সংরক্ষিত থাকবে।
ট্রাস্টের একমাত্র উপদেষ্টা সিলেটের বিভাগীয় কমিশনার, সভাপতি থাকবেন সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) থাকবেন কোষাধ্যক্ষ। সদস্য থাকবেন ২৪ জন। উপকারভোগী বাছাইয়ের জন্য আলাদা কমিটি থাকবে।
ট্রাস্ট গঠনের লক্ষে মঙ্গলবার বিকালে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে সভা অনুষ্ঠিত হয়।
জেলা প্রশাসক জাহাঙ্গীর হোসেনের সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য রাখেন, শিক্ষাবিদ পরিমল কান্তি দে, সুনামগঞ্জ সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর রজত কান্তি সোম, স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক মোহাম্মদ জাকির হোসেন, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট একে এম বিন আব্দুল্লাহ বিন রশিদ, সুনামগঞ্জ সরকারি মহিলা কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ নূর মোহাম্মদ, বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল মোমেন, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা এসএম আব্দুর রহমান, জেলা সমাজসেবা বিভাগের উপ-পরিচালক সূচিত্র রায়, সাংবাদিক পঙ্কজ কান্তি দে, বাংলাদেশ ভূমি অফিসার্স কল্যাণ সমিতির সভাপতি কাজী শামসুল হুদা সোহেল, বাংলাদেশ ইউনিয়ন পরিষদ সচিব সমিতির সভাপতি মৃণাল কান্তি দাস প্রমুখ।
জেলা প্রশাসক জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, ট্রাস্ট’এর দলির করা হয়েছে। বিভাগীয় কমিশনারের অনুমতি পেলে দ্রুতই এই ট্রাস্টের কাজ শুরু হবে। এই ট্রাস্ট থেকে অদম্য মেধাবীদের সহায়তা প্রদান করা হবে। একইসঙ্গে বাছাই কমিটির সিদ্ধান্তে দুঃস্থ ও অসহায় দূরারোগ্য ব্যধিগ্রস্তরা সহায়তা পাবেন। তিনি জানান, সুনামগঞ্জে তিনি যোগদানের সময় স্থানীয় রাজস্ব তহবিলে (এল আর ফান্ডে) একেবারে কম টাকা ছিল। এখন এটি বড় তহবিল। তিনি চান এই টাকা যেন মানুষের অতি জরুরি কাজে লাগে।