এসেছে মধুর বসন্ত

সজীব দে
মধুর বসন্ত এসেছে মধুর মিলন ঘটাতে।
মধুর মলয়সমীরে মধুর মিলন রটাতে।
কুহকলেখনী ছুটায়ে কুসুম তুলিছে ফুটায়ে,
লিখিছে প্রণয়কাহিনী বিবিধ বরনছটাতে।
(রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর)
‘বসন্ত এসে গেছে…।’ আজ শুক্রবার রুক্ষ-শুস্ক ঋতু শীতকে বিদায় করে হাজির হচ্ছে ঋতুরাজ বসন্ত। ঝরা পাতা বলে দিচ্ছে, শীতের বিদায়বেলা চলে এসেছে। আর বছর ঘুরে চলে এসেছে বসন্ত। প্রকৃতির রূপ বদল শুরু হয়েছে। শীতের রুক্ষ ভাব বদলের সময় হয়েছে। প্রকৃতি যখন তার দখিন-দুয়ার খুলে দেয়, বইতে শুরু করে ফাগুন হাওয়া, মধুর অমৃত বাণী শোনা যায় কোকিলের কণ্ঠে, রঙের উচ্ছ্বাস জাগে অশোক-পলাশ-শিমুলে, বেরিয়ে আসে শীতের খোলসে ঢুকে থাকা কৃষ্ণচূড়া, রাধাচূড়া, নাগলিঙ্গম, আর এসব ফুলে ফুলে ভ্রমর করে খেলা। তখনই যেন প্রবল বিক্রমে আগমন ঘটে রাজাধিরাজের, ঋতুরাজ বসন্তের। পহেলা ফাল্গুন দিনটিতে আনুষ্ঠানিকভাবে মর্ত্যলোকে অভিষেক ঘটে ঋতুরাজের, আর তাকে স্বাগত জানাতে প্রকৃতি নেয় এক বর্ণিল সাজ। গাছে গাছে জাগে
নতুন পাতা, নতুন ফুলের সমারোহ। সবাই যেন মত্ত শীতের শুষ্কতাকে প্রাণপণে আড়াল করার চেষ্টায়। অবশ্য ফুল যদি না-ও ফোটে, বসন্তের আগমনধ্বনিকে কোনোভাবেই চাপা দেয়া যায় না।
গণমানুষের কবি সুভাষ মুখোপাধ্যায় প্রকৃতির চোখে চোখ রেখে বলেছিলেন- ‘ফুল ফুটুক আর নাই ফুটুক/আজ বসন্ত।’ শীতের রিক্ততা মুছে দিয়ে প্রকৃতিজুড়ে আজ সাজসাজ রব। হিমেল পরশে বিবর্ণ প্রকৃতিতে জেগে উঠছে নবীন জীবনের ঢেউ। নীল আকাশ সোনাঝরা আলোর মতই হৃদয় আন্দোলিত। আহা! কী আনন্দ আকাশে-বাতাসেৃ। ‘আহা, আজি এ বসন্তে/কত ফুল ফোটে, কত বাঁশি বাজে/ কত পাখি গায়..।’ নব পুষ্পপত্র-পলবে, প্রকৃতি নতুন সাজে সেজে উঠেছে।
১৯০৭ সালে বিশ্বকবির ছোট ছেলে শমীন্দ্রনাথ ঠাকুরের হাত ধরে যাত্রা শুরু হয়েছিল এই উৎসব। তিনি এর নাম দিয়েছিলেন ‘ঋতুরঙ্গ উৎসব’। সেই সময় শান্তিনিকেতনের প্রাণ কুঠিরের সামনে শুরু হয় উৎসব। এখন অবশ্য সেই প্রাণকুঠির নাম বদলে গেছে। সেটিকে এখন সবাই চেনে শমীন্দ্র পাঠাগার হিসেবে। তবে সেই ঋতুরঙ্গ উৎসব হারিয়ে যায়নি, বরং কালের বিবর্তনে আরো জনপ্রিয়তা লাভ করেছে বসন্ত উৎসব নামে।
১৯৯৪ সাল থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে বসন্ত উৎসব উদযাপন শুরু হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলায়। জাতীয় বসন্ত উৎসব উদযাপন কমিটি তখন থেকেই নিয়মিত চারুকলার বকুলতলায় এবং ধানম-ির রবীন্দ্রসরোবরে বসন্ত বরণের জন্য উৎসবের আয়োজন করছে। বসন্ত আবাহনের এসব আয়োজনে সন্ধান মেলে বাঙালির মনন আলোড়িত করা রবীন্দ্রনাথ, নজরুল, জীবনানন্দ, অতুলপ্রসাদ, জসীমউদদীন, শাহ আবদুল করিমের অমূল্য সৃষ্টিসম্ভারের।
আকাশে বহিছে প্রেম, নয়নে লাগিল নেশা
কারা যে ডাকিল পিছে! বসন্ত এসে গেছে…
ঠিক তাই। অনেকের কাছেই বসন্ত হলো প্রেমের ঋতু। প্রেমের বার্তা নিয়েই যেন আগমন ঘটে ঋতুরাজের। পশ্চিমা সংস্কৃতির দেখাদেখি আমাদের দেশেও ভ্যালেন্টাইনস ডে’র প্রচলন ঘটেছে বেশ কয়েক যুগ ধরেই, কিন্তু আকাশে-বাতাসে, হৃদয়ে-মননে প্রেমের আলোড়ন তুলতে আমাদের নিজস্ব ঐতিহ্যের বসন্ত বরণও কোনো অংশে কম নয়। বরং একদিন আগে-পরে বসন্ত বরণ উৎসব ও ভ্যালেন্টাইনস ডে’র আবির্ভাব বলে, বাঙালি সংস্কৃতিকে মনেপ্রাণে ধারণ করতে চায় এমন অনেকের কাছে প্রকৃত প্রেমের দিন হিসেবে পহেলা ফাল্গুনটিই বিবেচিত হয়। এদিন নতুন কচিপাতার দোলায় দুলতে থাকে প্রকৃতি, আর সেই সাথে দুলতে থাকে প্রেমতৃষ্ণার্ত মানুষের আবেগী মনও। এমন অনেকেই আছে যারা সারা বছর অপেক্ষা করে এই দিনটিতে ভালোলাগার মানুষের কাছে মনের কথাটি বলতে। মানব-মানবীর প্রেমের সম্পর্ককে মহিমান্বিত করতে একটি বিশেষ দিনের প্রয়োজন যদি হয়ই, তবে তা পশ্চিমা সংস্কৃতি থেকে ধার করা ভ্যালেন্টাইনস ডে নয়, হোক আমাদের বাঙালি জাতির একান্ত আপনার পহেলা ফাল্গুনই।
শুধু প্রাণের দুরন্ত আবেগ আর প্রেমে নয়, এ ঋতুতে বাংলার মানুষ জেগে ওঠে দ্রোহে-প্রতিবাদে। বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলামের মতো বার্তা ছড়ায়, ‘এলো খুনমাখা তূণ নিয়ে/খুনেরা ফাগুন।’ মায়ের ভাষায় কথা বলার অধিকার চেয়ে বাংলার তরুণরা রক্ত ঝরিয়েছে এ ঋতুতে। আবার সামরিক-স্বৈরাচারের বিরুদ্ধে আন্দোলন করতে গিয়েও রক্ত ঝরিয়েছে এই বসন্তে। তাই দোসরা ফাল্গুন ‘সামরিক-স্বৈরাচারবিরোধী গণতন্ত্র দিবস’!
সাহিত্যের প্রাচীন নিদর্শনেও বসন্ত ঠাঁই পেয়েছে নানা অনুপ্রাস, উপমায় নানাভাবে। হালে শহরের যান্ত্রিকার আবেগহীন সময়ে বসন্ত যেন কেবল বৃক্ষেরই, মানুষের আবেগে নাড়া দেয় কমই। কবির ভাষায়-মানুষের হৃদয় আজ আনন্দে ভরে উঠুক/দুঃখগুলি সব ঝরে যাক/মানুষের মন হোক অনন্ত,/আজ যে বসন্ত..।