কখন কোথায় ঈদের জামাত

স্টাফ রিপোর্টার
আগামী ১২ আগস্ট সোমবার পবিত্র ঈদুল আযহা। যুগ যুগ ধরে এই ঈদ ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের ত্যাগের মহিমায় ভাস্বর করে আসছে। ঈদের নামাজ শেষে মহান আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের উদ্দেশ্যে পশু কোরবানি করবেন সামর্থ্যবান মুসলমানরা।
ঈদুল আযহা হজরত ইব্রাহিম (আ.) ও তার পুত্র হজরত ইসমাইলের (আ.) সঙ্গে সম্পর্কিত। হজরত ইব্রাহিম (আ.) স্বপ্নে আদিষ্ট হয়ে পুত্র ইসমাইলকে আল্লাহর উদ্দেশে কোরবানি করতে গিয়েছিলেন। আল্লাহর পক্ষ থেকে এই আদেশ ছিল হজরত ইব্রাহিমের জন্য পরীক্ষা।
তিনি পুত্রকে আল্লাহর নির্দেশে জবাই করার সব প্রস্তুুতি নিয়ে সেই পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। ইসলামে বর্ণিত আছে, নিজের চোখ বেঁধে পুত্র ইসমাইলকে ভেবে যখন জবেহ সম্পন্ন করেন তখন চোখ খুলে দেখেন ইসমাইলের পরিবর্তে পশু কোরবানি হয়েছে, যা এসেছিল আল্লাহর পক্ষ থেকে।
সেই ঐতিহাসিক ঘটনার স্মৃতি ধারণ করেই হজরত ইব্রাহিমের (আ.) সুন্নত হিসেবে পশু জবাইয়ের মধ্য দিয়ে কোরবানির বিধান এসেছে ইসলামী শরিয়তে। সেই মোতাবেক প্রত্যেক সামর্থ্যবান মুসলমানের জন্য পশু কোরবানি করা ওয়াজিব।
ইসলামে কোরবানি খুবই তাৎপর্যপূর্ণ। পবিত্র কোরআনে সুরা কাউসারে এ ব্যাপারে বলা হয়েছে, ‘অতএব আপনার পালনকর্তার উদ্দেশে নামাজ পড়ুন এবং কোরবানি করুন।’ রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘ঈদুল আযহার দিন কোরবানির চেয়ে আর কোনো কাজ আল্লাহর কাছে অধিক পছন্দনীয় নয়।’ গরু, মহিষ, উট, ভেড়া. ছাগল, দুম্বাসহ যে কোনো হালাল পশু দিয়ে কোরবানি দেয়া যায়।
আজ সকালে মুসল্লিরা নিকটস্থ ঈদগাহ বা মসজিদে ঈদুল আযহার দুই রাকাত ওয়াজিব নামাজ আদায় করবেন। খতিব নামাজের খুতবায় তুলে ধরবেন কোরবানির তাৎপর্য। কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে ধনি-গরিব নির্বিশেষে সবাই একত্রে নামাজ আদায় ও শুভেচ্ছা বিনিময় করবেন।
পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষ্যে শহরের কেন্দ্রীয় ঈদগাহে প্রধান ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হবে সকাল ৮টায়।
এছাড়াও হাছননগর ঈদগাহ ময়দান, মোহাম্মদপুর জামে মসজিদ সংলগ্ন ঈদগাহ ময়দান, নবীনগর জামে মসজিদ, জেলা কারাগার জামে মসজিদে ঈদের জামাত শুরু হবে সকাল ৮টায়।
ষোলঘর ঈদগাহ ময়দান, পুলিশ লাইন জামে মসজিদ, আপ্তাবনগর ঈদগাহ ময়দানে ঈদের জামাত শুরু হবে সকাল ৮.১৫মি।
লক্ষণশ্রী ঈদগাহ ময়দান (তেঘরিয়া), পাঠানবাড়ি ঈদগাহ ময়দান, সদর উপজেলা পরিষদ জামে মসজিদ ঈদগাহ ময়দান, মল্লিকপুর নতুন বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন ঈদগাহ ময়দান, বড়পাড়া ঈদগাহ ময়দান, বায়তুননুর জামে মসজিদ, হাছনবসত, কালীপুর, হাছননহর মুসলিম ছাত্রাবাস জামে মসজিদ, বলাকাপাড়া জামে মসজিদে ঈদের জামাত শুরু হবে সকাল সাড়ে ৮টায়।
আরপিননগর ঈদগাহ ময়দানে সকাল ৯.৪৫মি. এবং জেলা কারাগারের অভ্যন্তরে সকাল ৯টায় ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হবে।
ঈদের দিন পৌর এলাকার প্রধান প্রধান সড়ক, ঈদগাহ ময়দান, ট্রাফিক পয়েন্ট ও গুরুত্বপূর্ণ স্থান সমূহ জাতীয় পতাকা ও বাংলা, আরবী ইংরেজিতে ঈদ মোবারক সজ্জিত ব্যানারে সজ্জিত করা হবে। হাসপাতাল, শিশু পরিবার ও জেলখানায় উন্নতমানের খাবার পরিবেশন করা হবে।
এদিকে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আব্দুল আহাদ স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ঈদের কেনাকাটার সময় পৌর এলাকার বিভিন্ন বাজার ও গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে ইভটিজিং প্রতিরোধ ও সাউন্ড/মাইকে বাজিয়ে যাতে জনমনে অশান্তি সৃষ্টি করা না হয় সেজন্য মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হবে।
এছাড়াও কেন্দ্রীয় ঈদগাহ ময়দানে জামাত চলাকালে মেটাল ডিটেক্টরমেশিন দ্বারা চেকিং, বিদ্যুৎ সরবরাহ নিশ্চিত, রাতে পুলিশী টহল অব্যাহত রাখা, নির্ধারিত স্থানে পশু জবাই ও পশুর বজ্য যত্রতত্র না ফেলে মাটিতে পুঁতে ফেলার জন্য অনুরোধ জানানো হয়েছে।