কমিটিতে নবীনদের আধিক্য

স্টাফ রিপোর্টার
১৯ বছর পর হওয়া সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের ৭৫ সদস্যের নতুন কমিটিতে নবীনদের আধিক্য রয়েছে। অনেক প্রবীণরা বঞ্চিত হয়েছেন।
নয়া কমিটিতে সহসভাপতি হয়েছেন অপেক্ষাকৃত নবীন অ্যাডভোকেট ড. খায়রুল কবির রুমেন পিপি। এছাড়া নবীনদের মধ্যে রয়েছেন ছাতক পৌরসভার মেয়র আবুল কালাম চৌধুরী। সুনামগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক কোষাধ্যক্ষ ইশতিয়াক শামীম, তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক সাবেক ছাত্রলীগ নেতা শামীম আহমদ চৌধুরী, ত্রাণ বিষয়ক সম্পাদক শাহ্ আবু নাসের, দপ্তর সম্পাদক নূরে আলম সিদ্দিকী উজ্জ্বল, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবুল আজাদ রুমান, প্রচার ও প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদক গোলাম সাবেরীন সাবু, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক জাহাঙ্গীর চৌধুরী, শ্রম বিষয়ক সম্পাদক অ্যাড. আজাদুল ইসলাম রতন, মানব উন্নয়ন সম্পাদক সীতেশ তালুকদার মঞ্জু।
সাংগঠনিক সম্পাদক শংকর চন্দ্র দাস ও জুনেদ আহমদ। উপ-দপ্তর সম্পাদক মুহিবুল হক জয়েদ, উপ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক হুমায়ুন রশিদ লাভলু। সদস্যদের মধ্যে অ্যাড. মলয় চক্তবর্তী রাজু, অ্যাডভোকেট কল্লোল তালুকদার চপল, নিজাম উদ্দিন এম.কম, অ্যাডভোকেট হাসান মাহবুব সাদী, আবু সাদাত লাহীন, শামীম আখঞ্জি, অমল কর, আসাদুজ্জামান সেন্টু, অ্যাডভোকেট শামীমা শাহ্রিয়ার, অমল চৌধুরী হাবুল, সৈয়দ তারিখ হাসান দাউদ, আতিকুল ইসলাম, ফেরদৌসি সিদ্দিকা ও ইয়ামিন চৌধুরী।
প্রবীণদের মধ্যে যারা বাদ পড়েছেন, এরা হলেন- দোয়ারাবাজার উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ইদ্রিছ আলী বীরপ্রতীক, জামালগঞ্জের সাবেক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ইউসুফ আল আজাদ, অ্যাডভোকেট রইছ উদ্দিন, অ্যাডভোকেট আলী আমজাদ, আবরু মিয়া তালুকদার, সৈয়দ আতাউর রহমান, আবুল হোসেন খান, মহিম চন্দ্র দাস প্রমুখ।
জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম এনামুল কবির ইমন বললেন,‘নবীণ এবং প্রবীণের সমন্বয়ে একটি গতিশীল কমিটি করার চেষ্টা হয়েছে। বয়োজ্যেষ্ঠ যারা কমিটিতে স্থান পাননি দল অবশ্যই তাঁদের ত্যাগ বিবেচনায় রাখবে।’