করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা পৌঁছালো ৭১৭ জনে

স্টাফ রিপোর্টার
সুনামগঞ্জের আরও ১৮ জনের শরীরে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় ৭১৭ জন করোনায় আক্রান্ত শনাক্ত হলেন। এরমধ্যে আরোগ্য লাভ করেছেন ১৩৩ জন। বুধবার শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের পিসিআর ল্যাবে মোট ১৭৯ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। পরীক্ষায় ১৮ জনের করোনা শনাক্ত হয়। এর মধ্যে সুনামগঞ্জ সদর উপজেলায় ২ জন, ছাতক উপজেলায় ৩ জন, দোয়ারাবাজার উপজেলায় ৫ জন, শাল্লা উপজেলায় ৫ জন, দিরাই উপজেলায় ১ জন এবং বিশ্বম্ভরপুর উপজেলায় ২ জন।
বুধবার পর্যন্ত সবচেয়ে বেশী ১৯৩ জন শনাক্ত হয়েছেন ছাতক উপজেলায়। এছাড়াও সুনামগঞ্জ সদর উপজেলায় ১৭৭ জন , দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলায় ৬১ জন, দিরাই উপজেলায় ১৮, শাল্লা ২৫, বিশ্বম্ভরপুর ২৬, তাহিরপুর ২৪ জামালগঞ্জ ৫৫, ধর্মপাশা ১৮, দোয়ারাবাজার ৬৫ এবং জগন্নাথপুরে ৫৫ জন শনাক্ত হয়েছেন।
এ পর্যন্ত সুস্থ হওয়া ১৩৩ জনের মধ্যে সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার ১৯ জন, দোয়ারাবাজার উপজেলা থেকে ১১ জন, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা থেকে ১২ জন, শাল্লা উপজেলা থেকে ৯ জন, জগন্নাথপুর উপজেলার ৮ জন, দিরাই উপজেলা থেকে ৭ জন, ছাতক উপজেলার ১৯ জন, জামালগঞ্জ উপজেলা থেকে ৭ জন, বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা থেকে ১২ জন, তাহিরপুর উপজেলা থেকে ১৩ জন, ধর্মপাশা উপজেলা থেকে ১৬ জন।
শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ের জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড বায়োটেকনোলজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক হাম্মাদুল হক জানান, শাবির ল্যাবে আজ ১৭৯ টি নমুনা সংগ্রহ করে সবগুলোকেই পরীক্ষা করে ১৮ জনের করোনা পজিটিভ পাওয়া গেছে।
এদিকে কোভিড ১৯ পরিস্থিতি নিয়ে বুধবার জেলা প্রশাসনের প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়- সুনামগঞ্জে নতুন করে হোম কোয়ারেন্টাইনে গেছেন ২১ জন। কোয়ারেন্টাইন থেকে ছাড়পত্র পেয়েছেন ২৯ জন। আইসোলেসনে নেয়া হয়েছে ৫৮ জনকে। এছাড়াও বিদেশ প্রত্যাগত আরও ৩ জন প্রবাসী সুনামগঞ্জে এসেছেন।
বিজ্ঞপ্তিতে আরো জানা যায়, অদ্যাবদি মোট কোয়ারেন্টিনে এসেছেন ৫৮৩০ জন। পাশাপাশি কোয়ারেন্টিন সম্পন্ন করেছেন ৫৫১০ জন। বর্তমানে কোয়ারেন্টাইনে আছেন ৩২৮ জন। বর্তমানে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে আছেন ৩৩ জন এবং আইসোলেসনে আছেন ৬৯৯ জন। গত ১ মার্চ থেকে বিদেশ থেকে জেলায় এসেছেন ২৬২৬ জন।

উল্লেখ্য, করোনা চিকিৎসার জন্য সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে ১০০টি বেড প্রস্তুত করা হয়েছে। ছাতক, দোয়ারাবাজার, বিশ্বম্ভরপুর, তাহিরপুর, জামালগঞ্জ, জগন্নাথপুর, ধর্মপাশা, দিরাই, শাল্লা উপজেলায় ৩টি করে বেড এবং সুনামগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল ও আনিছা হেলথ কেয়ারে ২টি করে বেড প্রস্তুত করা হয়েছে। জেলায় করোনা চিকিৎসার জন্য মোট ১৩১ টি বেড রয়েছে।