কুবরায় বিধ্বস্ত পাকিস্তান

সু.খবর ডেস্ক
টি২০-তে একের পর এক বাংলাদেশকে হারিয়ে ছিল পাকিস্তানের মেয়েরা। চার ম্যাচের মধ্যে কোনোটিতেই জয়ের মুখ দেখেনি স্বাগতিকরা। কিন্তু ওয়ানডেতে পা দিয়েই হোঁচট পাকিস্তানের। গতকাল কক্সবাজারের শেখ কামাল ইন্টারন্যাশনাল স্টেডিয়ামে একমাত্র ওডিআইতে পাকিস্তানকে ৬ উইকেটে গুঁড়িয়ে দিয়েছে বাংলার মেয়েরা। টানা জয়রথে থাকা পাকিস্তানকে হারের তিক্ততা পাইয়ে দেন বাংলাদেশের খাদিজা তুল কুবরা। একাই তুলে নেন প্রতিপক্ষের ছয় উইকেট। তাতেই যে পথ হারাল পাকিস্তান।
গেল জুনে মালয়েশিয়ায় এ বাংলাদেশই উড়িয়েছিল লাল-সবুজের কেতন। নারী এশিয়া কাপের ফাইনালে শক্তিশালী ভারতকে হারিয়ে শিরোপা নিয়ে বাড়ি ফিরেছিল তারা। কিন্তু হঠাৎ করেই বদলে যায় চেহারা। জয়টা যেন সোনার হরিণ হয়ে পড়ে সালমা-রুমানাদের জন্য। ঘরের মাঠে পাকিস্তানের কাছে কুড়ি ওভারের ম্যাচগুলোতে অনেকটা অসহায় রূপ ফুটে ওঠে। একের পর এক লজ্জার রেকর্ড যখন তাদের সঙ্গী হচ্ছিল, ঠিক তখনই খাদিজার হাত ধরে এলো বড়সড় অর্জন।
এ দিন আগে ব্যাট করে ৯৪ রানে অলআউট হয়ে যায় পাকিস্তান। জবাবে ৬ উইকেটের পাশাপাশি ১২৬ বল হাতে রেখে জয়ের বন্দরে নোঙর করে বাংলাদেশ।
পাকিস্তানের হয়ে দুই ওপেনার আয়েশা জাফর ও মুনেবা আলি খানিকটা লড়াই করেন। যদিও খুব বেশি দূর যেতে পারেননি তারা। দু’জনই ১৮ রানের ঘরে আটকে যায়। এরপর তিন নম্বরে ব্যাট করতে আসা দলনেতা জাভেরিয়া খান স্কোরবোর্ডে যোগ করেন ২৯ রান। এটাই অতিথিদের পক্ষে সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত সংগ্রহ। বাকিরা কেবল এলেন, গেলেন আর কুবরার বোলিং দেখলেন।
৯.৫ ওভার হাত ঘুরিয়েছেন এই অফস্পিনার। রান দিয়েছেন মাত্র ২০। মেডেন নিয়েছেন এক ওভার। এমনিতেই নজরকাড়া স্পেল। তার সঙ্গে যখন ছয় উইকেট যোগ হলো; সৌন্দর্যটা যেন বেড়ে গেল বহুগুণ। একদিনের ক্রিকেটে ছয় উইকেট নেওয়া মোটেও চাট্টিখানি কথা নয়। তাই রেকর্ড কেবল একটাই নয়, কয়েকটায় নাম লেখালেন কুবরা। প্রথম বাংলাদেশি নারী ক্রিকেটার হিসেবে ওয়ানডেতে পাঁচের অধিক উইকেট ঝুলিতে পুরেছেন তিনি। আন্তর্জাতিক নারী ক্রিকেটে যা দশম সেরা বোলিং ফিগার। এ ছাড়া ছয় উইকেট নেওয়া বোলারদের মধ্য যৌথভাবে ষষ্ঠ স্থানে উঠে এলেন। সেরা বোলিং ফিগারের রেকর্ডে শীর্ষে রয়েছেন পাকিস্তানের নারী বোলার সাজিদা শাহ। ৮ ওভারে ৫ মেডেনে মাত্র ৪ রানে সাজিদা উইকেট নিয়েছেন ৭টি।
কুবরা ছাড়াও এই ম্যাচে উইকেটের স্বাদ পেয়েছেন রুমানা আহমেদ ও জাহানারা আলম। রুমানা ৮ ওভারে ১৫ রান খরচায় নিয়েছেন দুই উইকেট। বৃথা হাত ঘোরাননি জাহানারা। এদিকে ব্যাট হাতে বাংলাদেশের হয়ে সর্বোচ্চ ৪৮ রানের ইনিংস খেলেছেন ফারজানা হক। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৩৪ রান আসে রুমানার ব্যাট থেকে।
এই জয়ে ঘরের মাঠে ওয়ানডেতে পাকিস্তানের বিপক্ষে শতভাগ সাফল্য ধরে রাখল বাংলাদেশ। এর আগে তাদের বিপক্ষে দুটি ম্যাচে জয় পায় টাইগ্রেসরা।