কোটা সংরক্ষণের দাবিতে শহরে মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের বিক্ষোভ

স্টাফ রিপোর্টার
চাকরিতে ৩০ শতাংশ মুক্তিযোদ্ধা কোটা পুর্নবহালের দাবি জানিয়েছে জেলার মুক্তিযোদ্ধার সন্তানরা। এতে সকল উপজেলা, ইউনিয়ন, ওয়ার্ড ও গ্রামাঞ্চলের মুক্তিযোদ্ধার সন্তানরা কর্মসূচিতে যোগ দেন।
বুধবার দুপুরে শহরের আলফাত স্কয়ারে (ট্রাফিক পয়েন্টে) এই সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশের পূর্বে একটি বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে শহর প্রদক্ষিণ করেন মুক্তিযোদ্ধার সন্তানেরা।
আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান ঐক্যমঞ্চের আহবায়ক জালাল উদ্দিন জাহানের সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব নাজমুল হকের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা মতিউর রহমান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. হায়দার চৌধুরী লিটন, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক জুবের আহমদ অপু, আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান সিলেট মহানগর শাখার আহবায়ক আতাউর রহমান, ভারপ্রাপ্ত সদস্য-সচিব হাবিবুর রহমান, সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সাধারণ সম্পাদক ডা. আবুল বাশার জুয়েল, গীতিকার নির্মল কর জনি, আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান সুনামগঞ্জ জেলা শাখার সভাপতি সাংবাদিক আল-হেলাল, সহ-সভাপতি কেবি মুর্শেদ জাহাঙ্গীর, দেওয়ান চয়ন চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক শিবলু আহমেদ চৌধুরী, প্রচার সম্পাদক নেছার আহমদ শফিক, সদর উপজেলা শাখার সভাপতি জসিম কামাল, সাধারণ সম্পাদক মোস্তাক আহমদ রোমেল, সুনামগঞ্জ সরকারি কলেজ শাখার প্রতিনিধি রুপক রাজ বৈদ্য, মালা রানী সরকার, রুকন উদ্দিন, বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক জহীর আহমদ সোহেল, আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান সমবায় সমিতির সভাপতি নুরুল আমিন, সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম, কিতাব আলী,কাজী সিরাজ, জাহাঙ্গীরনগর ইউনিয়ন কমিটির আব্দুর রাজ্জাক, মহসীন আহমেদ, নাছির উদ্দিন, সুরমা ইউপি নেতা আব্দুল মালেক, রঙ্গারচর ইউনিয়ন শাখার আব্দুল মতিন, স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা লোকমান হোসেন, কৃষক লীগের মহিলা সম্পাদিকা শহরবানু বেগম, মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্মের মিজানুর রহমান মিজানসহ মুক্তিযোদ্ধার সন্তানবৃন্দ।
সমাবেশে বক্তারা বলেন,‘আমাদের দাবি সরকারি চাকরিতে ৩০ শতাংশ মুক্তিযোদ্ধা কোটা রাখতে হবে। সেজন্য পরিপত্র স্থগিত করে মন্ত্রিসভায় তা প্রত্যাহার করতে হবে। তাই এখন থেকে দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাব আমরা।’