কোপার্নিকাসের সত্য

হিরন্ময় রায়
একজন ব্রুনোকে হত্যা করলেই-
কোপার্নিকাসের সত্যের মৃত্যু ঘটে না।
বরং এরমধ্যেই পৃথিবী তার কক্ষপথে
বহুবার ঘুরে এসেছে সূর্যটা।
তোমাদের কৃপান, তোমাদের তরবারী,
তোমাদের ক্লাস্টার বোমা, তোমাদের চাপাতি
কেড়ে নেয় আমাদের স্বজন, আমাদের পরিবার।
সত্যকে ভালবেসে দুর্বাঘাসের মত জেগে উঠি আমরা-
দুর্বার, বারবার।
মৃত স্বজনের শবদেহের সারি পেরিয়ে
সত্যাদর্শীদের মিছিল আছড়ে পড়ে মিথ্যার অর্গলে।
বেলাভূমিতে আছড়ে পড়া ঢেউয়ের মতো
নিরন্তর আঘাত হানে চেতনার গভীরে।
কখনো কখনো আত্মম্ভরিতার জিউস কেড়ে নিতে আসে
সুবোধের সূর্য-
প্রমিথিউসরা ফিরে আসেন যুগে যুগে-
তাদের রক্তস্নাত সূর্য জ্বলজ্বল করে সুবোধের আকাশে।
একজন জাফর হাঁটেন বলেই- এ জনপদ এখনো সবুজ।
তাঁর শুভ্র কেশে সত্যের দ্যুতি কাঁপিয়ে দেয় মিথ্যার ভিত।
শ্বাপদের নখরের মতো, নৃশংস জিঘাংসায়
উন্মোচিত হয় তোমাদের বেবুশ্যেপনা-
অশুভ থাবায় আঘাত হানো আমাদের হৃদয়ে।
জেনে নিও, জীবনের বিনিময়ে
শ্বাপদমুক্ত করে এ নগরে -ফিরাবো তাঁকে।
হারতে আসিনি, পিতার রক্তস্নাত পূণ্যভুমিতে-
হাসবে হায়েনার দল, তা হবে না।
ভিস্যুভিয়াসের মত ফুঁসে উঠে – জ্বালিয়ে দেব জল্লাদের দরবার।
আমাদের সবুজে-
তোমাদের নাপাক পদচিহ্ন ধুয়ে মুছে দিয়ে যাব প্লাবন হয়ে।
এ জনপদ জাতির জনকের স্বপ্নজাত, এ জনপদ শহীদের রক্তস্নাত
এ জনপদে কোন শ্বাপদের ঠাই হবে না।
সোনালী ভোরে জনকের দেখানো পথে, পথ হাঁটবে স্বদেশ
উষ্ণ হৃদয়ে- টগবগে প্রাণে।
টুঙ্গিপাড়ার সবুজ জমিনে-
স্বপ্নবীজ হয়ে শুয়ে থাকা জনকের দেহ, অঙ্কুরিত হবে
শত সহস্র মুকূলে।
স্বাধীন ভূমিতে মুক্ত প্রাণের মিছিল গেয়ে যাবে জীবনের জয়গান
মৃত মুজিব বাঙালির ধমনীতে চেতনার বহ্নিশিখা হয়ে
বহুগুণে ফিরেছেন এই বাংলায়, বারবার বারংবার।