খাল ও জলধারা অবারিত করতে হবে -মেয়র

স্টাফ রিপোর্টার
পৌরসভার মেয়র নাদের বখ্ত বলেন, শহরের কামারখাল, বড়পাড়ার খাল, কেজাউড়া, ধোপাখালি’র খালসহ সকল খাল উদ্ধার করতে হবে। জলধারা অবারিত করতে হবে। বাড়ি, ঘর, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান স্থাপনা তৈরি করে জলধারা বন্ধ করে রাখা হয়েছে। শহরে ড্রেন নির্মাণ করে এখন পানি কীভাবে নামবে, কোন দিকে নামবে অর্থাৎ পানি নিস্কাশনের পথই খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। শহরের অনেক ড্রেনের পানি এখন উল্টো ঘরবাড়ি’র দিকে আসছে। এতো বড় একটি সমস্যা সমাধানের জন্য আমরা সরকারের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে প্রকল্প জমা দিয়েছি। এই প্রকল্প অনুমোদন হলে বা বরাদ্দ পেলেই সব সমস্যার সমাধান হবে না। খাল, জলধারা উদ্ধারে সংশ্লিষ্ট সকলেই এগিয়ে আসতে হবে। সহযোগিতা করতে হবে। না হয় শহর বসবাসের অযোগ্য হয়ে ওঠবে। আমি বা অন্য কেউ মেয়র হোক, মেয়রকে বা পৌরসভাকে এই বিষয়ে সকলের সহযোগিতা করতে হবে।
শহরে আমার দলের কেন্দ্রীয় নেতারা আসছেন। দলের প্রতিনিধি সম্মেলন হচ্ছে, আমি সেখানে থাকার কথা। অথচ সকাল থেকে ঘুরছি ড্রেনে ড্রেনে। আমি শহরবাসীর পাশেই রয়েছি। পানি নিস্কাশনের জন্য কোন কোন এলাকায় পথই পাওয়া যাচ্ছে না। কারো না কারো স্থাপনা রয়েছে ড্রেনের মুখে বা খালের মুখে।
পৌর মেয়র বলেন, পানি নিস্কাশনের জন্য কারো দেওয়াল বা স্থাপনার ক্ষতি হলে পৌরসভা এর ক্ষতিপূরণ দেবে।
পৌর মেয়র জানান, কালেক্টরেটের সামনের খালে এবং পুলিশ সুপার কার্যালয়ে যেতে কালভার্টে এবং উল্টোদিকের খালেও পানি নিস্কাশনে প্রতিবন্ধকতা রয়েছে। এগুলোও সরাতে হবে।