গাঁজা সেবন ছাড়া অচল অনেক চালক

স্টাফ রিপোর্টার
বাস চালক রফিক মিয়া (ছদ্মনাম)। সুনামগঞ্জ- সিলেট রোডের এই বাস চালক নিজের পরিচয় গোপন রাখতে চান। কারণ তিনি একজন মাদকসেবি। এরকম বাস চালকরা প্রতিদিন সুনামগঞ্জ থেকে সিলেট বা সিলেট থেকে সুনামগঞ্জে হাজারো যাত্রীদের সেবা দিয়ে থাকেন। যাত্রীদের পৌছে দেন নির্দিষ্ট গন্তব্যে।
রফিককে দেখে মনে হচ্ছে তিনি অন্যরকম হয়ে আছেন। স্বাভাবিক মানুষের মতো কথা বলছেন না। কারণ কথা বলার সময় এক জায়গায় স্থীর থাকছেন না তিনি। হাটছেন হেলে-দুলে । এ যেনো আনন্দের কোনো গানের সঙ্গে ছন্দ মিলাচ্ছেন। অনেক সময় ছোট কারণে হাসছেন। একসময় তিনি নিজেই স্বীকার করলেন গাঁজা খাওয়ার কথা। বললেন, আমি গতকাল রাতে গাঁজা খেয়েছি। এখনও এর প্রভাব রয়েছে।
গাঁজা খেয়ে গাড়ি চালাতে সমস্যা হয় কিনা প্রতিবেদকের এমন প্রশ্নের জবাবে কিছুক্ষণ বিরতি দিয়ে একটু হাসলেন। বললেন ‘কোনো দিন এক্সিডেন্ট করিনি।’
এরপরই আসলো আরেকজন। তবে তিনি ড্রাইভার নন। বাসের হেলপার। জানা গেলা তার নাম দুলো। তাকে রফিক বললো গাঁজা আরও আছে কিনা। সে উত্তর দিল, নেই রাতে শেষ হয়ে গেছে। কিনে আনতে হবে এখন। রফিকের কাছে ৫০ টাকা চায় এজন্য। হঠাৎ এই প্রতিবেদক কে দেখে হতবাক হলেন দুলো। তাড়াহুড়া করে মিলিয়ে গেলেন বাসস্ট্যান্ডে এলোমেলো করে রাখা বাসের ভিড়ে।
রফিক বললো, তারা সবাই গাঁজা খায়। পাশেই আরেকটি বাসে ঘুমানো একজনকে দেখিয়ে বললো সে হচ্ছে দুলোর উস্তাদ, বাস চালক। গাঁজা খেয়ে এখনও ঘুমাচ্ছে।
সুনামগঞ্জ নতুন বাসস্ট্যান্ডে বুধবার বেলা ১১টায় সরজমিনে গিয়ে এসব তথ্য জানা যায়। রফিক জানায়, অনেক বাস চালক এই মাদকের সঙ্গে যুক্ত। এমনকি বাস ছাড়ার ১০ মিনিট আগেও তারা গাঁজা খেয়ে গাড়ির স্টিয়ারিং ধরে।
সুনামগঞ্জ বাস মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক জুয়েল মিয়া বলেন, আমার অনেক বাস চালক রয়েছে সিগারেট স্পর্শ করে না। যারা বাসস্ট্যান্ডে মাদকসেবন করে তারা স্থানীয়। বাসস্ট্যান্ডের পাশেই একটা এলাকা রয়েছে সে এলাকায় মাদকসেবন করে তারা। তবে কিছু বাসচালক মাদকসেবনের সঙ্গে যুক্ত থাকার কথা স্বীকার করে তিনি বলেন, ‘এক- দুইটা থাকলে থাকতেও পারে।’ তবে গাড়ি চালানোর আগে কোনো চালক মাদকসেবন করে না।
এবিষয়ে জানতে চাইলে জেলা মাদকদব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক সাজেদুল হাসান বলেন, এরকম কোনো ডিভাইস আমাদের কাছে নেই যে ডিভাইস দিয়ে মুহূর্তেই জানা যাবে, কেউ মাদকগ্রহণ করে বাস চালায় কি না। সেক্ষেত্রে আমরা ডোপ টেস্ট করতে পারি। তবে নতুন বাসস্ট্যান্ড এলাকাকে বিশেষ নজরদারিতে রাখা হবে বলে জানিয়েছেন এই কর্মকর্তা।