গাছের ডালপালা কর্তন না করায় ঝুঁকিপূর্ণ ক্যাম্পাস

স্টাফ রিপোর্টার
শহরের সুনামগঞ্জ সরকারী কলেজ ক্যাম্পাসে গাছের ডালপালা কর্তন না করায় ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে ক্যাম্পাস এলাকা। একাধিক গাছের অপ্রয়োজনীয় ডালপালা ছাঁটাইয়ের প্রয়োজনীয়তা উল্লেখ করে গত ২৪ সেপ্টেম্বর বনবিভাগকে চিঠি দেওয়া হয়েছে। কলেজের একাডেমিক কাউন্সিলের সভায় গাছের ডালপালা কর্তনের সিদ্ধান্ত নিয়ে ৩ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে জানান কলেজ কর্তৃপক্ষ।
মঙ্গলবার সকালে কলেজ কর্তৃপক্ষের সাথে আলাপ করে জানা যায়, গত ২৪ সেপ্টেম্বর বনবিভাগকে চিঠি দেয়া হয়। কলেজের একাডেমিক কাউন্সিলের সভায় গাছের ডালপালা কর্তনের সিদ্ধান্ত নিয়ে ৩ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়েছে। এই মওসুমে গাছের ডালপালা কর্তন করা না হলে কলেজ ক্যাম্পাস অপরিচ্ছন্ন থাকবে এবং অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ তৈরি হবে। প্রতি বছর ঝড়-তুফানের দিনে গাছের ডাল ভেঙে পড়ে কলেজ ভবনের ছাদের উপর বা টিনের ঘরের চালের উপর। এমনকি বৈদ্যুতিক তারের উপরও পড়ে এসব ডালপালা। গাছের ডালপালা বৈদ্যুতিক তারে ঘর্ষণ খেয়ে আগুন ধরে যাওয়ার ঘটনাও ঘটেছে প্রায় সময়। এ সময় কলেজের প্রিন্সিপাল নীলিমা চন্দ, উপাধ্যক্ষ প্রফেসর মাজহারুল ইসলাম, সহকারী অধ্যাপক মো. আব্দুর রকিব তারেক উপস্থিত ছিলেন।
কলেজের দ্বাদশ শ্রেণীর শিক্ষার্থী আহমদ শামস্ অর্ক ও সাইফুদ্দীন আহমদ কাওসার জানান, কলেজ ক্যাম্পাসে এমন গাছ রয়েছে, যার বয়স কমপক্ষে ৪০-৪৫ বছর হবে। রেন্ট্রি গাছ ও কদম গাছ বেশি। এসব গাছের শুকনা ডাল প্রায়ই ভেঙে পড়ে। এ ডাল যদি কারো উপর পড়লে সে মারাত্মক আহত হবে। যে কোনো শিক্ষার্থীও উপর গাছের ডালপালা ভেঙে পড়ার আশংকা সব সময়।
কলেজের অনার্স ২য় বর্ষেও শিক্ষার্থী সেজুন নাহার এনি জানান, কলেজ ক্যাম্পাসে সূর্যের আলো পাওয়া যায় না। অপরিচ্ছন্ন ভাঙাচোরা ডালপালা থাকায় গাছের নিচে সব সময় অন্ধকার থাকে এবং মাটি স্যাঁতস্যাঁতে থাকে। এটা অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ। কলেজের সুস্থ ও সুন্দর পরিবেশ তৈরি করতে গাছের অপ্রয়োজনীয় এবং ক্ষতিকর ডালপালা কর্তন করা উচিৎ।
কলেজের অনার্স ২য় বর্ষের অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষার্থী জাবেদ জানান, কলেজের কোনো কোনো ভবনের উপর গাছের ডালপালা ছড়িয়ে পড়েছে। এই ডালপালায় পাকা ভবণের মারাত্মক ক্ষতি করছে এবং পুরাতন টিনের ভবনেরও ক্ষতি করছে। এই জন্য পরিবেশ সুন্দর, নিরাপদ ও সুস্থ রাখতে ঝুঁকিপূর্ণ ডালপালা কর্তন একান্ত প্রয়োজন।