গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু : দোষীদের শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন

স্টাফ রিপোর্টার
জগন্নাথপুরে গৃহবধূ চম্পা রানী দাশের রহস্যজনক মৃত্যুর ঘটনায় সুষ্ঠু তদন্ত এবং দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।
শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টায় আলফাত স্কয়ারে নাগরিক সমাজ, জেলা মহিলা পরিষদ ও শাল্লা সমিতির ব্যানারে এই মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধনে বিভিন্ন শ্রেণিপেশার লোকজন অংশগ্রহণ করেন।
জেলা মহিলা পরিষদের সভাপতি গৌরি ভট্টাচার্য্যের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন অধ্যাপক চিত্তরঞ্জন তালুকদার, মহিলা পরিষদের সহ সভাপতি সঞ্চিতা চৌধুরী, প্রাক্তন ব্যাংকার যোগেন্দ্র চন্দ্র দাস, চম্পা দাশের জেঠু রমেন্দ্র চৌধুরী, জেঠিমা নমিতা চৌধুরী, অ্যাড. মতিয়া বেগম, মৃণাল কান্তি চৌধুরী, জেলা সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি কুলেন্দু শেখর দাস, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি শোয়েব চৌধুরী, ছাত্রলীগের সাবেক সহ সভাপতি সুব্রত সরকার, জেলা মহিলা পরিষদের আন্দোলন সম্পাদক অমিতা রায়, শাল্লা সমিতির সভাপতি তাপস রঞ্জন দাস, চন্দন আচার্য্য, জেলা মহিলা পরিষদের সদস্য রুবী রানী দাস, নিহত চম্পার বড় ভাই নীলকণ্ঠ দাস, মুহিত ভট্টাচার্য্য, নিহতের ছোটভাই নিহার চন্দ্র দাস প্রমুখ।
মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, চম্পার গ্রেপ্তারকৃত যৌতুকলোভী স্বামী মৃদুল চন্দ্র সরকার, পলাতক ভাসুর মুকুল চন্দ্র সরকার ও শ^াশুড়ি প্রেমলতাকে দ্রুত গ্রেপ্তার করে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করলেই ঘটনার আসল রহস্য উন্মোচিত হবে। অবিলম্বে এই হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত সবাইকে আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদানের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, স্বরাষ্ট্রমস্ত্রী ও পুলিশ সুপারের নিকট জোর দাবি জানান বক্তারা।
প্রসঙ্গত, উপজেলার পাটকুড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মৃদুল চন্দ্র সরকার চাকুরির সুবাদে উপজেলার আশারকান্দি ইউনিয়নের শেওড়া গ্রামে লজিংয়ে থাকতেন। প্রায় ছয় মাস আগে তিনি শাল্লার আনোয়ারপুর গ্রামের নিখিল চন্দ্র সরকারের মেয়ে চম্পা রানী সরকার কে বিয়ে করেন। বিয়ের পর স্ত্রী কে নিয়ে পাঠকুড়া এলাকায় ভাড়া বাসায় উঠেন। তিনি নেত্রকোনা জেলার খালিয়াজুড়ি উপজেলার চানপুর গ্রামের বাসিন্দা। গত শনিবার স্ত্রী চম্পা রানী দাস (২৭) কে ঘরে রেখে তালা দিয়ে তিনি বিদ্যালয়ে চলে যান। বিকেলে বাড়ি ফিরে দেখেন ফ্যানের সাথে ওড়না দিয়ে প্যাঁচানো স্ত্রীর লাশ ঝুলছে। পরে থানায় খবর দিলে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে। এ ঘটনায় থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হলে পুলিশ ওই শিক্ষকের স্বামী মৃদুল চন্দ্র সরকার (৩২) কে রাতেই গ্রেপ্তার করে।