চলে গেলেন মুক্তিযোদ্ধা আবদুল কুদ্দুস

দিরাই প্রতিনিধি
হাজারো মানুষের গভীর শ্রদ্ধা ভালবাসায় চিরবিদায় নিলেন দিরাই উপজেলার চন্ডিপুর গ্রামের কৃতী সন্তান, দিরাই উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান, মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক ও মুক্তিযোদ্ধা আবদুল কুদ্দুস (৮০)। বুধবার দিবাগত রাত ৩টার দিকে পুর্বদিরাইয়ের নিজ বাসভবনে তিনি শেষ নিঃশ^াস ত্যাগ করেন (ইন্না…রাজিউন)। মৃত্যুকালে তিনি দুই ছেলে ও এক মেয়ে নাতী-নাতনীসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। মৃত্যুর খবর শুনে মুক্তিযোদ্ধা, শিক্ষক, রাজনীতিবিদ, জনপ্রতিনিধিসহ হাজার হাজার মানুষ তাঁকে দেখতে বাসভবনে ভিড় জমান। বৃহস্পতিবার বেলা আড়াইটার সময় পৌর সদরে অবস্থিত সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত মহিলা কলেজ মাঠে নামাজে জানাজা শেষে বিকেল ৩ ঘটিকায় পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়। জানাজার পূর্বে দিরাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট সাহিদুল আলমের নেতৃত্বে দিরাই থানা পুলিশের একটি দল জাতির এ শ্রেষ্ঠ সন্তানের প্রতি রাষ্ট্রীয় সম্মান (গার্ড অব অনার) প্রদান করেন।
ষাটের দশকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে ছাত্ররাজনীতির মাধ্যমে রাজনীতি শুরু করেন আব্দুল কুদ্দুস। তিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য এবং দীর্ঘদিন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। আওয়ামী লীগের দুঃসময়ের সাথী হিসেবে খ্যাত এই নেতা ২০০০ সনে আওয়ামীলীগ ত্যাগ করে জাতীয় পার্টি ও পরবর্তীতে বিএনপির রাজনীতিতে সম্পৃক্ত হন। ২০০৯ সালে তিনি বিএনপি প্রার্থী হিসাবে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যন নির্বাচিত হন। সর্বজন শ্রদ্ধেয় এই মুক্তিযোদ্ধা সংগঠককে অনেকেই কুদ্দুস স্যার বলে সম্বোধন করতেন। তিনি রাজনীতির পাশাপাশি একসময় মাধ্যমিক স্কুলে শিক্ষকতা করেছেন। এলাকায় সৎ ও ন্যায় বিচারক হিসেবে উনার সুনাম রয়েছে। মৃত্যুর কিছু দিন আগে তিনি আবারও আওয়ামীলীগে যোগদান করেন।
মুক্তিযোদ্ধা আবদুল কুদ্দুস এর মৃত্যুতে গভীর শোক ও পরিবারের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করেছেন, আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ, সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সাবেক সংসদ মতিউর রহমান, দিরাই শাল্লার সাংসদ ড. জয়া সেনগুপ্তা, সাবেক সাংসদ নাছির উদ্দিন চৌধুরী, সুনামগঞ্জ জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নুরুল হুদা মুকুট, জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম. এনামুল কবির ইমন, জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি হুমায়ুন মঞ্জুর চৌধুরী, সাবেক সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. আইনুল ইসলাম বাবলু, পিপি অ্যাড. খায়রুল কবির রুমেন, আওয়ামী লীগ নেতা সৌমেন সেনগুপ্ত, সামছুল হক চৌধুরী, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মাও. শোয়াইব আহমদ, বাসদের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য হামিদুল কিবরিয়া চৌধুরী আজহার, জাসদ দিরাই উপজেলা সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন, দিরাই উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আছাব উদ্দিন সরদার, পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি আজিজুর রহমান বুলবুল, দিরাই উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান হাফিজুর রহমান তালুকদার, পৌর মেয়র মোশাররফ মিয়া, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আতাউর রহমান, দিরাই প্রেসক্লাব সভাপতি হাবিবুর রহমান তালুকদার, সাধারণ সম্পাদক জিয়াউর রহমান লিটন, অনলাইন প্রেসক্লাব সভাপতি ইয়াহিয়া চৌধুরী, শিক্ষক সাল্হা উদ্দিনসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।