ছাতকে গ্রাহকের টাকা নিয়ে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির কর্মচারী উধাও

স্টাফ রিপোর্টার
ছাতক উপজেলার গোবিন্দগঞ্জ এলাকায় অবস্থিত সুনামগঞ্জ পলী বিদ্যুৎ সমিতির আঞ্চলিক কার্যালয় থেকে গ্রাহকের টাকা নিয়ে এক কর্মচারী উধাও হয়ে গেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় ওই কার্যালয়ের ওয়্যারিং পরিদর্শক এনামুল হককে সাময়িক বরখাস্ত করে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।
পল্লী বিদ্যুতের গোবিন্দগঞ্জ আঞ্চলিক কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, এনামুল হক ওই কার্যালয়ে ওয়্যারিং পরিদর্শক হিসেবে কর্মরত আছেন। তিনি ওই কার্যালয়ের অধীন জেলার ছাতক ও দোয়ারাবাজার উপজেলায় বিভিন্ন এলাকা নতুন বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়ার কথা বলে মানুষের কাছ থেকে টাকা আদায় করেন। গত সোমবার দোয়ারাবাজার উপজেলায় এক ব্যক্তির কাছ থেকে মিটারের টাকা আদায় করতে গেলে আগে আদায় করা টাকা নিয়ে আরও কয়েক ব্যক্তির সঙ্গে তার কথা কাটাকাটি হয়। ঘটনাটি জানাজানি হলে মিটারের জন্য এনামুল হকের কাছে টাকা দিয়েছেন কিন্তু মিটার পাননি এমন শতাধিক ব্যক্তি আঞ্চলিক কার্যালয়ে গিয়ে অভিযোগ করেন। এরপর এনামুল হক ওই কার্যালয়ে গিয়ে মিটার সংক্রান্ত কাগজপত্র নিয়ে উধাও হয়ে যান। মঙ্গলবার তিনি অফিসে যাননি।
গোবিন্দগঞ্জ আঞ্চলিক কার্যালয় পলী বিদ্যুৎ সমিতির পরিচালক পীর মোহাম্মদ আলী জানান, এনামুল হকের দ্বারা এলাকায় অন্তত পাঁচ থেকে ছয়শ গ্রাহক প্রতারিত হয়েছেন। তার কাছে টাকা দিয়ে কোনো মিটার পাননি। এ ব্যাপারে সমিতির পক্ষ থেকে গত মঙ্গলবার দোয়ারাবাজার থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করা হয়েছে। তিনি বলেন,‘প্রতারক এনামুল হকের বিরুদ্ধে তদন্ত সাপেক্ষ দৃষ্টান্তমূলক চাই চাই আমরা। একই সঙ্গে যারা টাকা দিয়েছেন তাদের মিটার দেওয়ার ব্যবস্থা করতে হবে।’
জানতে চাইলে সুনামগঞ্জ পলী বিদ্যুৎ সমিতির মহাব্যবস্থাপক (জিএম) অখিল কুমার সাহা বলেন, অভিযুক্ত কর্মচারী এনামুল হককে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। এ ঘটনা তদন্তে সুনামগঞ্জ পলী বিদ্যুৎ সমিতির একজন অতিরিক্ত মহাব্যবস্থাপককে প্রধান করে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির তদন্ত প্রতিবেদন পেলে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তবে এনামুল হকের কাছে গ্রাহকদের কী পরিমাণ টাকা ছিল বিষয়টি তদন্ত ছাড়া পরিস্কার বলা যাবে না বলে জানান তিনি।