ছাতকে সংঘর্ষের ঘটনায় শামীম চৌধুরীসহ ৪৭ নেতা-কর্মীর জামিন লাভ

ছাতক প্রতিনিধি
ছাতকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে স্ট্যাটাস নিয়ে আওয়ামী লীগের দু’পক্ষের সংঘর্ষের ঘটনায় দায়েরী তিনটি মামলায় আগাম জামিনে থাকা জেলা আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক শামীম আহমদ চৌধুরীসহ ৪৭ নেতাকর্মী ও ব্যবসায়ী অন্তবর্তীকালীন জামিন লাভ করেছেন। উচ্চ আদালতের নির্দেশে বুধবার দুপুরে সুনামগঞ্জ সেশন জজ আদালত থেকে তারা জামিন লাভ করেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন আসামী পক্ষের আইনজীবী হুমায়ুন মঞ্জুর চৌধুরী।
তিনি জানান, ১৪ মে রাতে দু’পক্ষের সংর্ঘষের ঘটনায় পুলিশ কর্তৃক দায়েরীসহ পৃথক তিনটি মামলায় ৪৭ আসামী উচ্চ আদালত থেকে আগাম জামিন নিয়েছিলেন। উচ্চ আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী তারা বুধবার সুনামগঞ্জ সেশন জজ আদালতে হাজির হয়ে জামিন প্রার্থনা করলে আদালত তাদের অন্তবর্তি জামিন প্রদান করেন।
জামিনপ্রাপ্তরা হলেন, সুনামগঞ্জ জেলা আওয়াামী লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক নেতা শামীম আহমদ চৌধুরী, সুনামগঞ্জ জেলা পরিষদ সদস্য, ছাতক উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক আজমল হোসেন সজল, ছাতক পাথর ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি জয়নাল মিয়া চৌধুরী, ছাতক পৌর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক শাহীন আহমদ চৌধুরী, ছাতক লাইমস্টোন ইম্পোর্টার্স এন্ড সাপ্লায়ার্স গ্রুপের প্রেসিডেন্ট আহমদ শাখাওয়াত সেলিম চৌধুরী, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আব্দুল বারী চপল, উপজেলা আওয়ামী লীগের আহবায়ক কমিটির সদস্য আবু সাইদ চৌধুরী বাবুল, আফিক আলী, ব্যবসায়ী সুহেল চৌধুরী, যুবলীগ নেতা রুহেল চৌধুরী, নজরুল চৌধুরী, যুবলীগ নেতা নুরুজ্জামান আহমদ চৌধুরী স¤্রাট, ফরহাদ আহমদ চৌধুরী, পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি জামাল আহমদ ফরহাদ, যুগ্ম সম্পাদক রুবেল তালুকদার জনি, ছাতক সরকারি ডিগ্রি কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি রিয়াদ আহমদ চৌধুরী, সিনিয়র সহ-সভাপতি আব্দুল কাদির, ছাত্রলীগ নেতা মাহীর আহমদ চৌধুরী, যুবলীগ নেতা ফজলে রাব্বী জনি, দিলোয়ার হোসেন, মামুন মিয়া, কাজল মিয়া, লিটন মিয়া, ইমদাদ হোসেন খোকন, শিপলু আহমদ, ব্যবসায়ী ইকবাল হোসেন, সবুজ আহমদ, টুটুল মিয়া, আক্তার হোসেন, হেলাল মিয়া, দুলাল তালুকদার, ইকবাল হোসেন রানা, ছাত্রলীগ নেতা তোফায়েল আহমদ, মঞ্জু মিয়াসহ ৪৭জন।