ছোটবড় গর্তে ভোগান্তি

এনামুল হক, ধর্মপাশা
সড়কের বিভিন্ন স্থানে সৃষ্টি হয়েছে ছোটবড় গর্ত। এতে করে যানবাহন চলাচলের সময় যাত্রীদের অবস্থা হয় শোচনীয়। আর বৃষ্টি হলেই গর্তে জমে থাকে পানি। গর্তে জমে থাকা পানি দেখে হঠাৎ বুঝার উপায় নেই যে কোন গর্তের গভীরতা কত। অপরিচিত কেউ এ সড়কে যানবাহন নিয়ে যাতায়াত করলে সেইসব গর্তে পড়ে নাকানি চুবানি খাওয়ার সম্ভাবনাই বেশি। যানবাহন চলাচলের সময় সড়কের নোংরা পানি ছিটকে পড়ে সড়কের উভয়পাশে থাকা বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে। দীর্ঘদিন ধরে সংস্কার না হওয়ায় সুনামগঞ্জের ধর্মপাশা উপজেলার ধর্মপাশা-জয়শ্রী সড়কের উপজেলা মোড় থেকে কান্দাপাড়া পর্যন্ত বিভিন্ন স্থানে ভাঙাচোরার কারণে এ সড়ক দিয়ে চলাচলকারী হাজার হাজার মানুষকে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।
কয়েক বছর আগে এলজিইডির অধীনে ধর্মপাশা-জয়শ্রী সড়কের উপজেলা মোড় থেকে কান্দাপাড়া পর্যন্ত মেরামত করা হয়। এ সড়ক দিয়ে সদর ইউনয়িনের কয়েকটি গ্রামের মানুষজনসহ জয়শ্রী, সুখাইড় রাজাপুর দক্ষিণ, সুখাইড় রাজাপুর উত্তর ইউনিয়নের হাজার হাজার মানুষ উপজেলা সদরে যোগাযোগ করেন। বিশেষ করে সুনামগঞ্জগামী লঞ্চ, ট্রলার বা স্পিডবোট যাত্রীরা এ সড়ক দিয়েই মহদীপুর ঘাটে যাতায়াত করেন। দীর্ঘদিন সংস্কার না করায় এবং এবারের কয়েক দফা বন্যায় সড়কে দীর্ঘ সময় পানি জমে থাকায় সড়কটি মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। উপজেলা মোড় থেকে হলিদাকান্দা মোড়, মহদীপুর থেকে কান্দাপাড়া পর্যন্ত সড়কের বিভিন্ন স্থানে ছোটবড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। বাহুটিয়াকান্দা নামক স্থানে সড়কের কিছু জায়গা পাশের খালে পতিত হয়েছে। কান্দাপাড়া বাজারের পশ্চিমপাশে ব্রীজ সংলগ্ন স্থানটিও বন্যায় ভাঙনের কবলে পড়েছে। ফলে সড়কটি দ্রুত মেরামত করার দাবি জানিয়েছেন এলাকাবাসী।
সদর ইউনিয়ন পরিষদের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য আবুল কাশেম বলেন, ‘আমার ওয়ার্ডের কয়েক হাজার মানুষ এ ভাঙা সড়ক দিয়ে বহু কষ্টে যাতায়াত করেন। আমার ব্যক্তিগত ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সামনে এ সড়কে রয়েছে খানাখন্দ। যানবাহন চলাচলের সময় কাদাপানি ছিটকে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান নোংরা হয় প্রতিনিয়ত।’
ধর্মপাশা সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. সেলিম আহম্মদ বলেন, ‘পূর্ব দিক থেকে উপজেলা সদরে প্রবেশের একমাত্র সড়ক এটি। কিন্তু ইতোমধ্যে সড়কটি ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ায় আমাদের দুর্ভো পোহাতে হচ্ছে। তাই জরুরি ভিত্তিতে সড়কটি মেরামত করার জন্য সংশ্লিষ্টদের প্রতি জোর দাবি জানাই।’
জয়শ্রী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সঞ্জয় রায় চৌধুরী বলেন, ‘একদিকে কান্দাপাড়া থেকে জয়শ্রী যাওয়ার সড়কটি একেবারেই ব্যবহার অনুপযোগী। অন্যদিকে ধর্মপাশা পর্যন্ত কান্দাপাড়া পর্যন্ত সড়কের ভঙ্গুর দশা আমাদের যাতায়াতে নতুন দুর্দশা তৈরি করেছে। এ থেকে পরিত্রাণের জন্য জরুরি ভিত্তিতে ব্যবস্থা গ্রহণ করা উচিত।’
উপজেলা এলজিইডির প্রকৌশলী মো. আরিফ উল্লাহ খান বলেন, ‘এ সড়কের বিভিন্ন এবারের কয়েক দফা বন্যায় বেশ ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। সড়কের ভাঙা অংশগুলো সংস্কারের বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।’