জগন্নাথপুরে আইন অমান্য করলে নেয়া হবে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে

আলী আহমদ, জগন্নাথপুর
জগন্নাথপুর উপজেলায় করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে নির্ধারিত প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইন সেন্টার মঙ্গলবার খোলা হয়েছে।
জগন্নাথপুরের হাসপাতাল সংলগ্ন পৌর এলাকার হবিবপুরের দুইতলা বিশিষ্ট আব্দুস সোবহান উচ্চ বিদ্যালয়ে কোয়ারেন্টাইন সেন্টার স্থাপন করা হয়। পুরো বিদ্যায়লটি কোয়ারেন্টাইনের আওতায় আনা হয়েছে। যারা হোম কোয়ারেন্টাইনের নিয়ম অমান্য করবে তাঁদেরকে এই প্রতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইন সেন্টার রাখা হবে। উপজেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটির উদ্যোগে প্রতিষ্ঠানিক এই কোয়ারেন্টাইন সেন্টার করা হয়েছে।
জানা যায়, প্রবাসি অধ্যুষিত জগন্নাথপুর উপজেলায় অতি সম্প্রতি যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, ও ইউরোপসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে প্রায় ৬০০ শতাধিক প্রবাসি দেশে ফিরেছেন। এরমধ্যে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্মীরা ১৫০ জন প্রবাসিকে হোম কোয়ারেন্টানে রেখেছেন। তবে থানা পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে গতকাল পর্যন্ত ২২৩ জন প্রবাসি হোম কোয়ারেন্টাইনে আছেন। প্রথম দিকে অভিযোগ উঠে প্রবাসফেরত প্রবাসিরা হোম কোয়ারেন্টাইনের আইন মানছিলেন না। চলতি সপ্তাহে প্রশাসনের অভিযানে পরিস্থিতে অনেকেই স্বাভাবিক হয়ে উঠেছে।
উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা এবং উপজেলা করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ কমিটির সদস্য সচিব ডা: মধু সুদন ধর বলেন, যেসব প্রবাসি হোম কোয়ারেন্টিনের আইন ভঙ্গ করবেন তাদেরকে আমরা আমাদের কোয়ারেন্টিনে রাখব। তিনি জানান, প্রতিষ্ঠানিক সেন্টারে ৫০ থেকে ৬০ জন থাকবে থাকবেন। অতি সম্প্রতি জগন্নাথপুরে প্রায় ৬০০ প্রবাসি এলাকায় এসেছেন। এরমধ্যে ১৫০ জন হোম কোয়ারেন্টানে রাখা হয়েছে বলে তিনি জানিয়েছেন।
জগন্নাথপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ইখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, ১ মার্চ থেকে গতকাল পর্যন্ত জগন্নাথপুরে ৫৩৫ জন প্রবাস থেকে এসেছেন। এরমধ্যে ২২৩ জন প্রবাসিকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে।
জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ও উপজেলা করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি মাহফুজুল আলম মাসুম বলেন, উপজেলা করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ কমিটির সিদ্ধান্ত মোতাবেক প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইন সেন্টার খোলা হয়েছে। প্রবাসফেরতরা যদি হোম কোয়ারেন্টানে আইন অমান্য করেন তাহলে তাঁকে আমাদের প্রতিষ্ঠানিক সেন্টার থাকবে হবে। এখানে তাঁদের প্রশাসনিকভাবে তদারকি করা হবে।