জগন্নাথপুরে টিসিবির পেঁয়াজ কিনতে ক্রেতাদের উপচেপড়া ভিড়

জগন্নাথপুর অফিস
টিসিবির মাত্র এক কেজি পেঁয়াজ কেনার জন্য জগন্নাথপুর উপজেলায় শেষ দিনে ক্রেতাদের উপচেপড়া ভিড়। মঙ্গলবার সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত টিসিবির পেঁয়াজ বিক্রি করা হয়েছে ট্রাকে করে।
সরেজমিনে দেখা যায়, জগন্নাথপুর উপজেলার কলকলিয়া ইউনিয়ন পরিষদ প্রাঙ্গণের সামনে ছোট বড় নারী-পুরুষসহ সব বয়সি মানুষের ঢল নামে। দীর্ঘ লম্বা দুই লাইনে দাঁড়িয়ে টিসিবির পেঁয়াজ কিনেছেন ক্রেতারা।
টিসিবির পেঁয়াজ কিনতে আসা আব্দুল আজিল নামে এক ক্রেতা জানান, গত ২০ দিন ধরে পেঁয়াজ ছাড়া রান্না করা হচ্ছে। বাজারে ১৮০ টাকা থেকে ২০০ টাকা করে পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে। টিসিবির পেঁয়াজ ৪৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে শুনে দীর্ঘ সময় লাইনে দাঁড়িয়ে থেকে অবশেষে এক কেজি পেঁয়াজ কিনেছি। কষ্ট হলেও পেঁয়াজ কিনতে পেরে ভালো লাগছে।
রাফিয়া বিবি নামে আরেকজন নারী ক্রেতা জানান, বাজারে পেঁয়াজের ঝাঁজে আমরা অসহায়। কম দামে পেঁয়াজ কিনতে পেরে খুবই খুশি লাগচ্ছে। তবে খারাপ লাগছে এটা শুনে যে, আজকের পর আর পেঁয়াজ বিক্রি হবেনা।
তিনি জানান, আমাদের দাবি টিসিবির পেঁয়াজের বরাদ্দ আরো বাড়ানো হোক। এতে মানুষ উপকৃত হবে।
টিসিবির ডিলার ধনেষ রায় জানান, জগন্নাথপুর উপজেলাবাসীর জন্য তিন টন পেঁয়াজ বরাদ্দ পাওয়া যায়। যা চাহিদার তুলনায় অপ্রতুল। গত রবিবার থেকে বিক্রি শুরু হয়। প্রথম দিন জগন্নাথপুর উপজেলা সদরে এক টন, দ্বিতীয় দিন রানীগঞ্জ বাজারে এক টন এবং শেষ দিন কলককলিয়া ইউনিয়নে এক টন পেঁয়াজ বিক্রি করা হয়েছে। শেষ দিনের মানুষের উপচে পড়া ভির ছিল।
জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মাহফুজুল আলম মাসুম বলেন, জগন্নাথপুরের জন্য তিন টন পেঁয়াজ বরাদ্দ ছিল। বিক্রি শেষ হয়ে গেছে। এখানকার মানুষের প্রচন্ড চাহিদা রয়েছে টিসিবিরি পেঁয়াজ। তাই বরাদ্দ আরো বাড়ানোর জন্য লিখিতভাবে আমরা আবেদন করব।