জগন্নাথপুরে দুই পিআইসির সভাপতি আটক

জগন্নাথপুর অফিস
জগন্নাথপুর উপজেলার নলুয়ার হাওরের ফসলরক্ষা বেড়িবাঁধের দুই পিআইসি সভাপতিকে আটক করা হয়েছে। সোমবার বিকেলে জগন্নাথপুরের ইউএনও মোহাম্মদ মাসুম বিল্লাহ ওই দুই পিআইসির (প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি) সভাপতিকে আটক করেন। আটকতৃরা হলেন, নলুয়া হাওর বেষ্টিতচিলাউড়া হলদিপুর ইউনিয়নের চিলাউড়া গ্রামের বাসিন্দা নলুয়া হাওরের হালেয়া পতিত সংলগ্ন বাঁধ প্রকল্পের ২২ নম্বর পিআইসির সভাপতি রহিম আলী ও ওই ইউনিয়নের দাসনাগাঁও গ্রামের বাসিন্দা নলুয়া হাওরের হরিনাকান্দি এলাকার বেড়িবাঁধের ২৯ নম্বর প্রকল্পের সভাপতি সুরঞ্জন দাস।
বাঁধের কাজে অনিয়মের অভিযোগে তাদেরকে আটক করা হয়। তিনি বলেন, আটককৃত দুই পিআইসির বেড়িবাঁধের কাজে ক্রটি থাকায় তাদেরকে আটক করা হয়েছে। তবে মুচলেকা আদায়ের মাধ্যমে দুই পিআইসিকে ছেড়ে দেওয়ার প্রস্তুুতি চলছে।
এদিকে দ্বিতীয় দফা বর্ধিত সময় ১৫ মার্চের মধ্যে ফসলরক্ষা বেড়িবাঁধের নির্মাণকাজ শেষ করা না হলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে।
স্থানীয় উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ফসলরক্ষা বেড়িবাঁধের ৯২জন পিআইসির সভাপতি/সাধারণ সম্পাদকদের নিয়ে বিকেলে উপজেলা সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত এক সভায় সুনামগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের এসও জগন্নাথপুর উপজেলা আঞ্চলিক অফিসের প্রধান নাছির উদ্দিন এ নির্দেশ প্রদান করেন।
পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তা জগন্নাথপুর উপজেলা আঞ্চলিক অফিসের প্রধান নাছির উদ্দিন বলেন, ‘গত ২৮ ফেব্রুয়ারি হাওরের ফসলরক্ষা বেড়িবাঁধের কাজ সম্পন্ন করার নির্ধারিত সময় থাকলেও কাজ শেষ হয়নি। ফলে দ্বিতীয় মেয়াদে আরও ১৫ দিন সময় বাড়ানো হয়েছে অর্থাৎ ১৫ই মার্চ পর্যন্ত।’
হাওর বাঁচাও সুনামগঞ্জ বাঁচাও আন্দোলনের জগন্নাথপুর উপজেলা কমিটির আহবায়ক সাবেক ইউপি সদস্য সিরাজুল ইসলাম বলেন, ‘এখন পর্যন্ত জগন্নাথপুরের কোন হাওরের বেড়িবাঁধের শতভাগ কাজ শেষ হয়নি। দ্বিতীয় দফা সময়ের মধ্যেও কাজ শেষ হবে কিনা সন্দেহ আছে।’
তিনি বলেন, ‘আমরা বার বার বাঁধের কাজ সম্পন্ন করতে স্থানীয় প্রশাসনকে তাগিদ দিচ্ছি।’