জগন্নাথপুরে বন্যায় সড়কে ক্ষতি ১০ কোটি টাকা লাখো মানুষের দুর্ভোগ চরমে

জগন্নাথপুর অফিস
জগন্নাথপুরে বন্যায় যোগাযোগ ব্যবস্থা বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। প্রশাসনের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে বন্যায় ১০ কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে সড়কে।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গত এক সপ্তাহ ধরে অব্যাহত বৃষ্টি আর উজান থেকে নেমে আসা ঢলে জগন্নাথপুর পৌর এলাকাসহ উপজেলার নি¤œাঞ্চলের কমপক্ষে ৪০ গ্রামের মানুষ পানিবন্দি অবস্থায় রয়েছেন। বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে ভবেরবাজার-কাঠালখাই-নয়াবন্দও সড়ক, জগন্নাথপুরের শিবগঞ্জ-কাতিয়া-বেগমপুর সড়ক, কলকলিয়া-তেলিকোণা, ইসলামপুর- ইকড়ছই সড়কসহ অসংখ্য গ্রামীণ সড়ক। এতে উপজেলার সদরের সঙ্গে লাখো মানুষের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে গত সপ্তাহখানেক ধরে। এছাড়াও বন্যায় ইকড়ছই-চিলাউড়া সড়কের মইয়ার হাওরের ঢেউয়ে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন।
জগন্নাথপুর পৌরসভার যাত্রাপাশা পৌর এলাকার বাসিন্দা বকুল গোপ বলেন, মইয়ার হাওরের ঢেউয়ে ইকড়ছই-চিলাউড়া সড়কের অধিংকার স্থানে ভাঙন সৃষ্টি হয়েছে। এ সড়কে দ্রুত সংস্কার করা না হলেও উপজেলা সদরের সঙ্গে চিলাউড়া ইউনিয়নবাসীসহ পৌর এলাকার একাংশের জনসাধারণের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যাবে বলে আশঙ্কা প্রকাশ রয়েছে।
জগন্নাথপুরের পাইলগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মুখলিছ মিয়া বলেন, শিবগঞ্জ-বেগম সড়কের অধিকাংশ এলাকায় বন্যায় পানি ওঠে অসংখ্য গর্ত সৃষ্টি হয়েছে।
তিনি জানান, এ সড়ক দিয়ে উপজেলা সদরের সঙ্গে পাইলগাঁও ইউনিয়নবাসীসহ পার্শ্ববর্তী আশারকান্দি ইউনিয়নের একাংশের কয়েকটি গ্রামের লোকজন যাতায়াত করে থাকেন। এছাড়াও ওই সড়ক দিয়ে স্বল্প সময়ে বেগমপুর হয়ে ঢাকার শহরে যাতায়াত করা যায়। র্দীঘদিন ধরে সংস্কারহীন অবস্থায় থাকা এ সড়কটি বন্যায় অচল হয়ে পড়েছে বলে তিনি জানান। বন্যায় ইউনিয়নের অসংখ্যা গ্রামীণ রাস্তাঘাট পানিতে তলিয়ে গেছে বলে তিনি দাবি করেছেন।
সৈয়দপুর-শাহারপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তৈয়ব কামালী বলেন, ভবেরবাজার-সৈয়দপুর-নয়াবন্দর সড়কটি আমাদের ইউনিয়নসহ আশারকান্দি, পাইলগাঁও ইউনিয়নের লাখো মানুষ উপজেলা সদরের সঙ্গে যোগাযোগ করে আসছেন। এছাড়াও এ সড়ক দিয়ে পার্শ্ববর্তী বালাগঞ্জ-ওসমানিগঞ্জ থানাসহ সিলেটের বিভিন্ন এলাকায় যাতায়াত সুবিধা রয়েছে। গত এক সপ্তাহ ধরে বন্যায় সড়কের বিভিন্ন অংশে পানি ওঠে যাওয়া যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। ফলে সীমাহীন দুর্ভোগ পড়েছেন জনসাধারণ। এ সড়কটি কয়েকবছর ধরে সংস্কারহীন অবস্থায় রয়েছে। বন্যায় সড়কের আরো বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।
জগন্নাথপুর উপজেলা প্রকৌশলী (এলজিইডি) গোলাম সারোয়ার বলেন, ভবেরবাজার-কাঠাইলখাই-নয়াবন্দর সড়ক, শিবগঞ্জ-বেগমপুর সড়ক. কলকলিয়া তেলিকোণা সড়ক, ভবরের বাজার-লদুরপুর সড়কসহ জগন্নাথপুরের বিভিন্ন সড়কের একশত কিলোমিটার জুড়ে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এতে ১০কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে। আমরা প্রাথমিকভাবে ক্ষয়ক্ষতির তালিকা তৈরি করেছি।