জগন্নাথপুরে বাঁধের কাজে ধীর গতি

জগন্নাথপুর অফিস
নতুন করে প্রাক্কলন তৈরী করে কার্যাদেশ প্রদানের উদ্যোগ নেয়ায় জগন্নাথপুর উপজেলায় হাওরের ফসল রক্ষা বেড়িবাঁধের কাজ থমকে গেছে। এতে করে নির্ধারিত সময়ে কাজ শেষ করা নিয়ে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছেন কৃষকরা। কৃষকরা জানান, ১৫ ডিসেম্বর থেকে কাজ শুরু করে ২৮ ফেব্রুয়ারির মধ্যে কাজ শেষ করার কথা থাকলেও জগন্নাথপুরের অধিকাংশ হাওরে ফসলরক্ষা বেড়িবাঁধের কাজ শুরু করা যায়নি।
কৃষক ও পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) সূত্র জানায়, গত ৬ জানুয়ারি অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান মইয়ার হাওরে একটি ফসলরক্ষা বেড়িবাঁধের কাজ উদ্বোধনের মাধ্যমে এবছর বেড়িবাঁধের   
কাজ শুরু হয়। সুনামগঞ্জে জেলায় এবার ৫০ টি হাওরে ফসল রক্ষায় বেড়িবাঁধ নির্মাণের জন্য ৫৫০ কিলোমিটার বেড়িবাঁধে কাজ করার কথা। এরজন্য বরাদ্দ পাওয়া গেছে ৬৮ কোটি ৫৪ লাখ টাকা । তন্মধ্যে জগন্নাথপুর উপজেলায় ৪৬ কিলোমিটার বাঁধের কাজের জন্য ১০৪টি পিআইসির (প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি) অনুকূলে বরাদ্দ দেয়া হয়েছে ছয় কোটি টাকা। গত বৃহস্পতিবার পর্যন্ত মাত্র  ৩১টি পিআইসি কে কার্যাদেশ দেয়া হয়েছে।
হাওর বাঁচাও সুনামগঞ্জ বাঁচাও আন্দোলন সংগঠনের আহ্বায়ক সিরাজুল ইসলাম বলেন,এবার হাওরের ফসলরক্ষায় পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) নতুন নীতিমালা অনুযায়ী পিআইসি ও প্রাক্কলন তৈরী করে কার্যাদেশ দেয়া শুরু করে। হঠাৎ করে পাউবো নতুন করে প্রাক্কলন তৈরী করে কার্যাদেশ দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়ায় আটকে যায় হাওরের ফসল রক্ষা বেড়িবাঁধের কাজ।
নলুয়ার হাওর বেষ্টিত চিলাউড়া-হলদিপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আরশ মিয়া বলেন, কার্যাদেশ না পাওয়ায় কাজ শুরু করা যাচ্ছে না। এঅবস্থায় সময়মতো কাজ শেষ করা নিয়ে আমরা উদ্বিগ্ন।
নলুয়ার হাওরের একটি পিআইসি সভাপতি ইউ.পি সদস্য জুয়েল মিয়া বলেন,কার্যাদেশের জন্য উপজেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের দপ্তরে ধর্ণা দিতে গিয়ে হতাশ হয়ে পড়েছি। কয়েকদিনের মধ্যে কার্যাদেশ না পেলে পিআইসির দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি নেব।
আরেক প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি ছালিকুর রহমান বলেন, আমাকে প্রথমে কার্যাদেশ দিয়ে কাজ শুরু করার জন্য বলা হলে আমি ৯ লাখ টাকার কাজ করেছি। এখন নতুন করে প্রাক্কলন তৈরী করতে গিয়ে আমি বিল পাচ্ছি না।  
পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপসহকারী প্রকৌশলী মোহাম্মদ আবুল হাসান জানান, হাওরের ফসলডুবির পর বেড়িবাঁধ নির্মাণ করতে পাউবো সম্ভাব্য প্রাক্কলন তৈরী করেছিল। বর্তমানে নতুন করে ল্যান্ড সার্ভে টিম (ভূমি জরিপ দল) কে দিয়ে প্রাক্কলন তৈরীর উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। জগন্নাথপুরে চারটি টিম নতুন করে প্রাক্কলন তৈরীতে কাজ শুরু করেছিল। মধ্যপথে তারা জরুরী কাজে সুনামগঞ্জ চলে যায়। এখন আবার এসে কাজ শুরু করেছে।  
জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাসুম বিল্লাহ বলেন প্রথমে সম্ভাব্য  প্রাক্কলন তৈরী করে পিআইসি গঠন করা হয়েছিল।  এখন চূড়ান্ত প্রাক্কলন তৈরী করে কার্যাদেশ প্রদান করা হচ্ছে।