জগন্নাথপুরে বৃষ্টিতে স্বস্তি, বাঁধ নিয়ে অস্বস্তি

আলী আহমদ, জগন্নাথপুর
জগন্নাথপুর উপজেলায় বৃষ্টি হওয়াতে কৃষকদের মধ্যে স্বস্তি বিরাজ করছে। তবে হাওরের ফসলরক্ষা বেড়িবাঁধের নির্ধারিত সময় পেরিয়ে গেলেও বাঁধের কাজ শেষ না হওয়াতে অস্বস্তিতে আছেন স্থানীয় কৃষকরা।
স্থানীয় কৃষকরা জানান, বোরো ফসলের ভালো ফলনের জন্য এই মুর্হুতে বৃষ্টি খুবই উপকারি ছিল। গত বুধবার দিবাগত মধ্যরাতে জগন্নাথপুরে বৃষ্টি হয়। প্রায় ৮ থেকে ১০ মিনিটের মতো স্থায়ী বৃষ্টিতে কৃষকদের মধ্যে স্বস্তি দেখা দেয়। অপর দিকে হাওরের বাঁধের কাজ সমাপ্ত না হওয়াতে অস্বস্তিতে আছেন কৃষককুল।
জগন্নাথপুরের সর্ববৃহৎ নলুয়া হাওরপাড়ের কৃষক সাইদুর রহমান বলেন, ভালো ফলনের উপযুক্ত সময়ে বৃষ্টি হওয়াতে আমরা স্বস্তি পেয়েছি। তবে হাওরের ফসল রক্ষা বেড়িবাঁধের কাজ শেষ না হওয়ায় অস্বস্তির পাশাপাশি শঙ্কিত আমরা।
এদিকে সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, নলুয়া হাওরের পোল্ডার-১ আওতাধীন ২, ১০, ১১, ১২, ১৩, ১৪,১৫ ১৬, ১৭ ১৮, ১৯ এবং পোল্ডার ২ এর আওতাধীন ৩৩, ৩৪, ৩৮ নম্বর প্রকল্পের কাজ এখনও শেষ হয়নি। তবে অধিকাংশ প্রকল্পের সভাপতি জানিয়েছেন দ্রুত কাজ করা হবে।
পানি উন্নয়ন বোর্ড জগন্নাথপুর উপজেলা কার্যালয় সূত্র জানায়, এবার ৪৬টি প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি (পিআইসি) গঠনের মাধ্যমে ৪২.৩১০ কিলোমিটার বেড়িবাঁধের কাজ হয়। এই কাজের জন্য বরাদ্দ দেয়া হয়েছে মোট ৬ কোটি টাকা।
হাওর বাঁচাও আন্দোলনের জগন্নাথপুর উপজেলা কমিটির আহবায়ক সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম জানান, নির্ধারিত সময় পেরিয়ে গেলেও জগন্নাথপুরে এখনও শতভাগ কাজ শেষ হয়নি। আমাদের জরিপে এখন পর্যন্ত ৬০ থেকে ৬৫ ভাগ কাজ হয়েছে। দ্রুত কাজ সম্পন্ন না করা হলে কৃষকের ন্যায্য অধিকার আদায়ে মাঠে নামব আমরা।
এব্যাপারে জগন্নাথপুর উপজেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের সহকারি প্রকৌশলী হাসান গাজী জানান, জগন্নাথপুরে বেড়িবাঁধ প্রকল্পের ৮০ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে। যেসব প্রকল্পের কাজ শেষ হয়নি ওই সব প্রকল্পের দায়িত্বরত লোকজনকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে দ্রুত কাজ শেষ করার জন্য।
জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মাহফুজুল আলম মাসুম বলেন, নীতিমালা অনুয়ায়ী দ্রুত কাজ শেষ করা না হলে আইনানুগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।