জগন্নাথপুরে স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না অধিকাংশ মানুষ

জগন্নাথপুর অফিস
করোনাভাইসারের সংক্রমণ প্রতিরোধে সরকারি ঘোষণা অনুয়ায়ি আজ সোমবার থেকে এক সপ্তাহের লকডাউন দেশজুড়ে শুরু হয়েছে। তবে লকডাউন মানার আগ্রহ নেই জগন্নাথপুরে। স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না অধিকাংশ মানুষ। লকডাউনের প্রথম দিনে ব্যবহার করা করে অবাধে জগন্নাথপুরে এক পথচারিকে অর্থদণ্ড প্রদান করা হয়েছে।
উপজেলা সদরের পৌরশহরের জগন্নাথপুর বাজার এলাকায় ঘুরে দেখা যায়, অধিকাংশ মানুষ লকডাউন মানছেনা। বেশিরভাগ দোকানপাট খোলা। সিংহভাগ দোকানদার দোকানের এক সাটার খোলে ব্যবসায়িক কার্যক্রম পরিচালনা করছেন। তবে অন্যদিনের তুলনায় শহরে জনসাধারণের সমাগম অনেকটা কম ছিল। দূরপাল্লার যান চলাচল বন্ধ থাকলেও সিএনজি চালিত অকোরিকশা, টমটম (ইজিবাইক) ব্যাটারি চালিত রিকশাসহ ছোট ছোট যানবাহন চলাচল ছিল স্বাভাবিক।
এদিকে ভ্রাম্যমাণ আদালতের উপস্থিতি ও পুলিশের ভ্যান দেখলেই দোকানপাট বন্ধের পাশাপাশি লোকজন দ্রুত সরে পড়েন। প্রশাসনের লোকজন চলে গেলে আবার দোকানপাট খোলার প্রতিযোগিতা শুরু হয়। মানুষজনের ঝটলা সৃষ্টি হয়। এরমধ্যে মাস্ক ছাড়াই অবাধে ঘুরছেন অধিকাংশ জনসাধারণ।
লকডাউন কার্যকর করতে ও সামাজিক দুরত্ব এবং স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিতকরণের লক্ষ্যে জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মেহেদী হাসানের নেতৃত্বে পৌরশহরে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালত হয়। অভিযানকালে মাস্ক ব্যবহার না করায় স্থানীয় পৌর পয়েন্টে এক পথচারিকে ২শ’ টাকা জরিমানা করা হয়। এছাড়া সংক্রমণ রোধ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার জন্যে প্রচারণা ও লিফলেট বিতরণ করা হয়।
নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মেহেদী হাসান বলেন, সরকারি নিদের্শনা বাস্তবায়নে আমরা মাঠে কাজ করছি। অযথা বাহিরে ঘুরাঘুরি না করার জন্য তিনি জনসাধারণের প্রতি আহবান জানান।