জগন্নাথপুরে সংঘর্ষে আহত ২০

জগন্নাথপুর অফিস
জগন্নাথপুরের চিলাউড়া-হলদিপুর ইউনিয়নের দাসনাগাঁও শেখহাটি গ্রামে পূর্ব বিরোধের জের ধরে সোমবার সন্ধ্যা রাতে দু’পক্ষের সংঘর্ষে অন্ত:সত্তা নারীসহ ২০ জন আহত হয়েছেন। এর মধ্যে আশংকাজনক অবস্থায় রাত ১০টার দিকে অন্ত:সত্তা নারীসহ তিনজনকে ওসমানি মেডিকেল কলেজ হাসপাতলে প্রেরণ করা হয়েছে। অপর আহতরা স্থানীয় জগন্নাথপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছেন। সংঘর্ষে জড়িত থাকার সন্দেহে উভয়পক্ষের ৮জনকে ঘটনাস্থল থেকে আটক করা হয়েছে। আটকৃকৃতরা হলেন, আবুল মিয়া, আলী হোসেন, মুজ্জামেল হোসেন, শাহেল মিয়া, আজাদ আলী, আরশ আলী, কনাই মিয়া ও
আবদুল হক। মঙ্গলবার তাদেরকে গ্রেফতার দেখিয়ে সুনামগঞ্জ কারাগারে পাঠানো হয়েছে।
পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ওই ইউনিয়নের দাসনাগাও শেখহাটি গ্রামের টুনু মিয়া পক্ষের লোকজনের একই এলাকার মজনু মিয়ার লোকজনের সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে বিরোধে জড়িত ছিলেন। গত সোমবার সন্ধ্যায় টুটু মিয়ার ছেলে শরিফ মিয়াকে প্রতিপক্ষের লোকজন ধাওয়া করে। এ ঘটনার জের ধরে দু’পক্ষের লোকজন দেশীয় অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে সংঘাতে লিপ্ত হয়। এ সময় উভয় পক্ষের মধ্যে ব্যাপক ইটপাটকেল বিনিময় হয়। ঘন্টাব্যাপি সংঘর্ষে উভয়পক্ষের নারীসহ ২০ জন আহত হয়েছেন। এর মধ্যে আমির হোসেনর অন্তঃসত্তা স্ত্রী ঝুমু বেগম, ফয়জুল হক ও মিলাদ হোসেনকে সিলেট ওসমানি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করা হয়েছে। অপর আহতরা হলেন ফুল মিয়া, কাচামালা বিবি, শাহাজান, নুর হোসেন, নানু মিয়া, নাছির আলী, আমির হোসেন, মোজ্জামেল, আলী হোসেন, শামিম মিয়া, আবদুল হক, আবুল হোসেন, আলী হোসেন, সাহেল মিয়া।
স্থানীয় ইউপি সদস্য রনধীর কান্ত নান্টু দাস বলেন, ‘ঘটনাস্থলে গিয়ে আহতদের স্বাস্থ্য কেন্দ্রে পাঠিয়েছি। দ্’ুপক্ষের মধ্যে অনেকদিন ধরে পূর্ব বিরোধ চলছিল।’
জগন্নাথপুর থানার ওসি (তদন্ত) আশরাফুল ইসলাম বলেন, ‘সংঘর্ষের ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে ঘটনাস্থল থেকে উভয়পক্ষের ৮জনকে আটক করে সুনামগঞ্জ জেল হাজতে প্রেরণ করা হবে। এ ব্যাপারে থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুুতি চলছে।’