জগন্নাথপুরে হিজড়াদের চাঁদাবাজি বন্ধে আইনশৃঙ্খলা সভায় সিদ্ধান্ত

জগন্নাথপুর অফিস
জগন্নাথপুরে হিজড়াদের উৎখাত ও প্রকাশ্যে চাঁদাবাজি বন্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। সোমবার দুপুরে জগন্নাথপুর উপজেলা মাসিক আইনশৃঙ্খলা সভায় এ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।
জগন্নাথপুরের ইউএনও মোহাম্মদ মাসুম বিল্লাহর সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য রাখেন জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান বিজন কুমার দেব, কমিটির সদস্য কলকলিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবদুল হাসিম, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মুকলেচ্ছুর রহমান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল কমির রিজু, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক ডেপুটি কমান্ডার আবদুল হক, উপজেলা প্রেসক্লাব সভাপতি শংকর রায়, জগন্নাথপুর থানার এসআই সাইফুল ইসলাম, শিক্ষক সাইফুল ইসলাম রিপন, নিজামুল হক প্রমুখ।
সভায় বক্তারা বলেন, বেশ কিছুদিন ধরে জগন্নাথপুরে হিজলা সম্প্রদায়দের প্রকাশ্যে চাঁদাবাজি চলছে। তাদের দাবিকৃত টাকা না দেওয়া হলে বরযাত্রীদের গাড়ির বহর আটকে দিয়ে অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ শুরু করে মানহানি করছে। এদের উৎপাতে অতিষ্ট এলাকাবাসী। তাই এসব বেআইনি কার্যক্রম প্রতিরোধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের সিদ্ধান্ত গ্রহণের দাবি জানানো হয়।
এছাড়াও মাদক বিরুদ্ধে চলমান অভিযান অব্যাহত রাখা এবং কলকলিয়া
ইউনিয়ন পরিষদে ওজনে চাল কম দেওয়ার অভিযোগটি খতিয়ে দেখার আহবান জানানো হয়েছে।
আইন শৃঙ্খলা কমিটির সদস্য শিক্ষক সাইফুল ইসলাম রিপন বলেন, ‘অনেকদিন ধরেই জগন্নাথপুরের সর্বত্র হিজড়াদের প্রকাশ্যে চাঁদাবাজি চলে আসছে। তাদের দাবি অনুয়ায়ী এক হাজার থেকে পাঁচ হাজার টাকা চাঁদা না দিলে শুরু হয় নানা ধরনের উৎপাত। আটকে দেওয়া হয় যানবাহন। মানসম্মানের ভয়ে লোকজন হিজড়াদের চাঁদা দিতে বাধ্য হচ্ছেন।’ তিনি বলেন, হিজড়াদের পুনর্বাসন করে এ ধরনের অপরাধমূলক কর্মকান্ড বন্ধ করার আহবান জানিয়েছি আমরা।
জগন্নাথপুরের ইউএনও মোহাম্মদ মাসুম বিল্লাহ বলেন, ‘স্থানীয় পুলিশ প্রশাসনকে বিষয়টি খতিয়ে দেখে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য বলা হয়েছে।’
জগন্নাথপুর থানার ওসি হারুনুর রশিদ চৌধুরী বলেন, ‘পুলিশ বিষয়টি তদন্ত করবে।’