জগন্নাথপুরে ১০ গ্রাম বিদ্যুৎহীন

জগন্নাথপুর অফিস
জগন্নাথপুরে চারদিন ধরে ১০ গ্রামবাসী বিদ্যুৎহীন অবস্থায় রয়েছেন। ফলে চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে জনসাধারণকে।
পল্লী বিদ্যুতের গ্রাহকরা জানান, গত সোমবার জগন্নাথপুর উপজেলার ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া কাল বৈশাখী ঝড়ে উপজেলার কলকলিয়া ইউনিয়নে পল্লী বিদ্যুতের কয়েকটি খুঁটি পড়ে যায়। এতে করে ওই ইউনিয়নের বালিকান্দি, পাড়ারগাঁও, শ্রীধরপাশা, জগদ্বীশপুর, শাদীপুর, খামারখাল, তেলিকোণা, ইসলামপুর, পৌরএলাকার শেরপুর ও আলখানাপার এলাকায় বিদ্যুৎ সংযোগ বন্ধ হয়ে আছে। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে পর্যন্ত এসব এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হয়নি। জগন্নাথপুর পৌরসভার শেরপুর এলাকার বাসিন্দা নিকেশ বৈদ্য বলেন, গত চারদিন ধরে আমরা বিদ্যুৎহীন অবস্থায় রয়েছি। বিদ্যুত না থাকায় সীমাহীন দুর্ভোগের শিকার হচ্ছি আমরা। কর্তৃপক্ষকে বার বার তাগিদ দেওয়ার পরও বিদ্যুৎ পাওয়া যাচ্ছে না। একই এলাকার মনাই চৌধুরী বলেন, একটু ঝড় বৃষ্টিতেই বিদ্যুৎ চলে যায়। ঝড়ের অজুহাতে দেখিয়ে গত চারদিন ধরে বিদ্যুৎ বন্ধ রয়েছে। ফলে অন্ধকারেই আমরা বসবাস করছি।
জগন্নাথপুর পৌরশহরের কেশবপুর বাজারস্থ পল্লী বিদ্যুতের কার্যালয় সুত্র জানায়, গত সোমবার কালবৈশাখী ঝড়ে পল্লী বিদ্যুতের লাইনের ব্যাপক ক্ষতি হয়। ঝড়ে জগন্নাথপুরের বনগাঁও, বালিকান্দি, কামারখাল ও ক্ষেত্রপাশা এলাকায় পল্লী বিদ্যুতের খুঁটি উপড়ে পড়ে। এলাকায় বিদ্যুতের তাঁর ছিঁড়ে পড়ে একাধিক স্থানে। যে কারনে কলকলিয়া ইউনিয়নের কয়েকটি গ্রামের এক হাজার ৫শত গ্রাহক বিদ্যুৎ সেবা পাচ্ছেন না।
জগন্নাথপুরের পল্লী বিদ্যুতের দায়িতে ¡থাকা জাহাঙ্গীর আলম বলেন, কালবৈখাশী ঝড়ে ল-ভ- করে দিয়েছে বিদ্যুতের সঞ্চালন ব্যবস্থা। একাধিক জায়গায় বিদ্যুতের খুঁটি পড়ে গেছে। অসংখ্য স্থানে বিদ্যুতের তাঁর ছিঁড়ে পড়ে আছে। বিদ্যুৎ সরবরাহ করতে আমরা কাজ করছি। আজ কালকের মধ্যে আশা করছি বিদ্যুৎ সংযোগ চালু হতে পারে।