জগলুল ছিলেন উন্নয়নমুখী

স্টাফ রিপোর্টার
সুনামগঞ্জ পৌরসভার প্রথম পৌর মেয়র হিসাবে ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১১ সালে দায়িত্ব নেন আয়ুব বখ্ত জগলুল। ৩১ ডিসেম্বর ২০১৬ সালে তিনি দ্বিতীয়বার মেয়র নির্বাচিত হন। প্রায় ৭ বছর দায়িত্ব পালনকালে তিনি পৌরবাসীর নাগরিক সুবিধা বৃদ্ধির জন্য বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহণ করেন। এজন্য তিনি নাগরিকদের কাছে নন্দিতও হন। নাগরিকরা বলেন,‘জগলুল উন্নয়নমুখী জনপ্রতিনিধি ছিলেন।’
প্রয়াত মেয়র জগলুলের উদ্যোগে বাস্তবায়িত প্রকল্পগুলোর মধ্যে ছিল- ৮৪ লাখ টাকা ব্যয়ে সুরমা নদীর সরকারী জুবিলী উচ্চ বিদ্যালয় সংলগ্ন ঘাটে ‘রিভারভিউ’ নির্মাণ। ২০১৩-১৪ ইংরেজি সনে প্রায় ৮৪ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মিত রিভারভিউ’এ মানুষ অবসর সময় কাটানোর জন্য গিয়ে থাকেন। এটি শহরবাসীর অন্যতম বিনোদন কেন্দ্র হিসাবে বিবেচিত।
হোসেন বখ্ত চত্বর। শহরের সরকারী  এসসি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় সংলগ্ন পয়েন্টকে মুক্তিযোদ্ধা হোসেন বখ্ত চত্বর নামকরণ করে এই চত্বরকে দৃষ্টিনন্দন করেছেন আয়ুব বখ্ত জগলুল। প্রায় এক কোটি টাকা ব্যয়ে এই পয়েন্টে দ্বিতল মার্কেট হয়েছে তাঁর সময়কালে। চার কোটি টাকা ব্যয়ে শহরের কিচেন মার্কেট এবং এক কোটি ৩০ লাখ টাকা ব্যয়ে আরপিননগরে ঈদগাহ্ করেছেন মেয়র জগলুল।
পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী মোশারফ হোসেন জানান, শহরের মমিনুল মউজদীন সড়কে (এইচ.এম.পি স্কুলের পেছনে) এক কোটি ২৩ লাখ টাকা ব্যয়ে সুইমিংপুল প্রকল্প মন্ত্রণালয়ের অনুমোদনের জন্য ৬ মাস আগে পাঠানো হয়েছিল। ৯৫ লাখ টাকা ব্যয়ে একই সড়কের টিএ-টি অফিসের সামনে পাহাড় বেষ্টিত কৃত্রিম ঝর্ণা’র দরপত্র প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। ৫৪ লাখ টাকা ব্যয়ে কাজীর পয়েন্ট সড়ক প্রশস্তকরণ কাজ শুরু হয়েছে।
বৃহস্পতিবার সকালে পৌর মেয়র আয়ুব বখ্ত জগলুলের মৃত্যুর কারণে গৃহিত এসব প্রকল্পের বাস্তবায়ন নিয়ে অনিশ্চয়তা দেখা দিল।



আরো খবর