জঙ্গি তৎপরতার অভিযোগে ব্রিটিশ বাংলাদেশী মহিউসসুন্নাহ চৌধুরীকে যাবজ্জীবন জেলদন্ড

লন্ডন প্রতিনিধি
ব্রিটিশ বাংলাদেশী উগ্রপন্থী মহিউসুন্নাহ চৌধুরীকে জঙ্গি তৎপরতার অভিযোগে যাবজ্জীবন জেলদন্ড দিয়েছে বৃটেনের উলউইচ ক্রাউন কোর্ট। লন্ডনের মাদাম তোস্যুড এবং সমকামীদের একটি প্রাইভেট ইভেন্টে ভংয়কর হামলার পরিকল্পনার অভিযোগে বাংলাদেশী বংশদ্ভোত এই উগ্রবাদীকে দোষী সাব্যস্ত করে তার বিরুদ্ধে রায় দেয় কোর্ট। পেশায় টেক্সি চালক ইংল্যান্ডের লুটন শহরে বসবাসকারী বৃহত্তর সিলেটের বিশ্বনাথের বাসিন্দা ২৯ বছর বয়সী মহিউসসুন্নাহ চৌধুরীকে কমপক্ষে ২৫ বছর জেল খাটতে হবে।
আদালত সূত্রে জানা যায় গেল বছরের ফেব্রুয়ারিতে তার টার্গেটকৃত ওই প্রাইভেট ইভেন্টের তিনদিন পূর্বে মহিউসুন্নাহ চৌধুরীকে গ্রেফতার করে পুলিশ। চারজন গোয়েন্দা পুলিশ কট্ট্র জিহাদী রূপ ধারন করে তার সাথে সখ্যতা গড়ে তোলে। এরপর তারা সব ভয়ংকর হামলার পরিকল্পনার কথা নিশ্চিত হয়ে তাকে আটক করে। এর আগেও এই উগ্রবাদী ব্যাকিংহ্যাম রাজপ্রাদের সামনে ছুরি দিয়ে পুলিশের উপর আক্রমণের সংশ্লিষ্টতার অভিযোগে গ্রেফতার হয়েছিল। কিন্তু আইনের মারপ্যাচে ২০১৮ সালে সে পুলিশের উপর হামলার মামালা থেকে খালাস পেয়ে যায়। গোয়েন্দাদের কাছ এ নিয়ে সে গর্ব করে বলতো ব্রিটিশরা তাকে দোষী প্রমাণ করতে পারেনি, এর পর সে একে একে তার সব পরিকল্পনার কথা বন্ধু ভেবে গোয়েন্দাদের জানিয়ে দেয়।
সে গোয়েন্দাদের জানায় কিভাবে ছুরি দিয়ে গলা কেটে হত্যা করার বিশেষ প্রশিক্ষণ রয়েছে তার। এছাড়া সে বন্ধুক চালনার প্রশিক্ষণও নিয়েছে। আদালতে মহিউসসুন্নাহ স্বীকার করেছে কিভাবে একটি দ্বিতল বাস ভাড়া করে সমকামীদের প্রাইভেট ইভেন্টে হামলার পরিকল্পনা করেছিল।
মহিউসুন্নাহ চৌধুরীর সকলেই পারিবারিক ভাবে উগ্রমতবাদে বিশ্বাসী। ২৫ বছর বয়সী তার বোন ¯েœহা চৌধুরীকেও হামলার পরিকল্পনায় সহযোগগীতার অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত করেছে আদালত। এখনও তার সাজার মেয়াদ ঘোষণা করা হয়নি। তবে তাঁকেও কমপক্ষে দশ বছরের অধিক জেল খাটতে হবে।