জমে উঠছে পতাকার বাজার

লিপসন আহমেদ
দরজায় কড়া নাড়ছে বিশ^কাপ ফুটবল ২০১৮। আর এই ফুটবল বিশ^কাপের ঝড়ে সারা পৃথিবীর মতো কাঁপছে বাংলাদেশও।
সারা বছর ক্রিকেট খেলার ভিড়ে ফুটবল আড়ালে থাকলেও বিশ^কাপ এলে বাঙালির ফুটবল প্রেম কিংবা উম্মাদনা চোখে পড়ার মতো বেড়ে যায়। ইতোমধ্যে প্রতিটি পাড়া-মহল্লায় তাদের পছন্দের দলের সমর্থক গোষ্ঠী গড়ে উঠেছে। নিজের পছন্দের দলের গুণগান করার পাশাপাশি প্রতিপক্ষ দলের র্দুনাম রটাচ্ছে অনেকেই।
বিশেষ করে আর্জেন্টিনা আর ব্রাজিল সর্মথকদের বাকযুদ্ধ দারুণ উপভোগ্য। ফেইসবুকেও বইছে বিশ^কাপের ঝড়। তবে শহরের হাতেগোনা কয়েকটি পতাকা ছাড়া আর কোথাও দলকে সমর্থন জানিয়ে পতকা টানানো শুরু হয়নি।
ফুটবল প্রেমীরা বলছেন, খেলা যেহেতু ১৪ জুন সে হিসেবে আরও অনেক দিন সময় আছে প্রিয় দলকে সমর্থন জানানোর।
তারা আরও জানান, গত বিশ্বকাপের মত প্রিয় দলের পতাকার আকৃতি দিয়ে ব্যানার ফেস্টুন, প্লে-কার্ডে ছেয়ে যাবে শহর। বেশিরভাগ সমর্থক তাকিয়ে আছেন যে, কে সবচেয়ে বড় পতাকা বা পতাকার আকৃতিবিশিষ্ট ব্যানার টানায়। তখন বিপক্ষীয়রা তার চেয়ে বড় ব্যানার টানানোর প্রতিযোগিতা চলবে। বিশেষ করে আর্জেন্টিনা ও ব্রাজিল সমর্থক দুই পক্ষের সর্মথকদের মধ্যে।
অনেকেই আবার পরিকল্পনা করছেন প্রিয় দলের পুরাতন ও নতুন তারকা খেলোয়ারদের ছবি দিয়ে সড়কের বিভিন্ন স্থানে বিল বোর্ড টানানোর। সোমবার শহরের বিভিন্ন জায়গা ঘুরে দেখা যায়, সময়মত খেলা দেখার জন্য ফুটবলপ্রেমীরা বিশ্বকাপের সময়সূচির তালিকাসহ আর্জেন্টিনা, ব্রাজিল, জার্মানী, স্পেনসহ নিজ পছন্দের পতাকা কিনছেন।
তবে বিশ^কাপ উপলক্ষে বিভিন্ন দেশের পতাকা বিক্রেতারা বলছেন, খেলার যেহেতু আরো কিছু দিন দেরি আছে সেজন্য পতাকা কিছু কম বিক্রি হচ্ছে। তবে অন্যদিনের তুলনায় আজকে আর্জেন্টিনা, ব্রাজিল ও জার্মানীর কিছু পতাকা বিক্রি করেছি। সময় যত গড়াবে পতাকা বিক্রি তত বাড়তে থাকবে।
আর্জেন্টিনা সমর্থক সাজু আহমদ বলেন,‘যখন থেকে ফুটবল খেলা বুঝি তখন থেকেই আর্জেন্টিনা দলকে সমর্থন করি। এবার আমি দলের সমর্থনে বিল বোর্ড ও বড় ধরনের ব্যানার টানাবো। ইতোমধ্যেই আমি মিডিয়াম সাইজের একটি ছোট পতাকা বাসার ছাদে টানিয়ে দিয়েছি। আশা করছি এবার বিশ্বকাপ জিতবে আর্জেন্টিনা।’ ব্রাজিল সমর্থক শামীম আহমদ বলেন,‘আমি অনেক দিন ধরে ব্রাজিল দলকে সমর্থন করি। এ জন্য তাদের খেলার জার্সিও কিনেছি। এটি পড়ে এবারের খেলা দেখব।’
মধ্যবাজারের সেলিম মিয়া জানান, বিশ^কাপ ফুটবল খেলা মানেই আনন্দ। আর এই বিশ^কাপে আমরা যে যার ইচ্ছা মত দল সর্মথক করি। আজকে আর্জেন্টিনার ১টি পতাকা ৪৫০ টাকা দিয়ে কিনলাম। দামটা একটু বেশি কিন্ত ৪ বছর পরে এই বিশ^কাপ খেলাটা আসে। নিজের পছন্দের আর্জেন্টিনার পতাকা না কিনলে কি হয়।
পতাকা বিক্রেতা সুমি স্টোরের মালিক জানান, সামনে বিশ^কাপ খেলা আর বিশ^কাপের সব রকমের পতাকা দোকানের সামনে রেখেছি। অনেক সাইজের পতাকা দোকানে রেখেছি। যে যার পছন্দের মত দাম দিয়ে কিনে নিয়ে যাচ্ছে। আর পতাকা ভাল বিক্রি হচ্ছে, আশা করি সামনে আরো বেশি বিক্রি করতে পারব।
আরেক ভাসমান ব্যবসায়ী আশিক মিয়া বলেন,‘আমি শুধু বিশ^কাপের ছোট-বড় পতাকা বাঁশের সাথে বেধে হেঁটে হেঁটে পাড়ায় মহল্লায় গিয়ে বিক্রি করি। বেশ ভালই বিক্রি হয়। এই ব্যবসায় আমি ভাল লাভ করতে পারছি। তবে খেলা আরো যত এগিয়ে আসবে বিক্রি কিনি তত বাড়তে থাকবে।’