জাকেরীন ও কামরুলের মনোনয়ন বাতিল- আপিল করবেন তাঁরা

বিশেষ প্রতিনিধি
সুনামগঞ্জ-৪ (সদর উত্তর- বিশ্বম্ভরপুর) আসনে বিএনপি’র দলীয় প্রার্থী হিসাবে মনোনয়ন দাখিলকারী দেওয়ান জয়নুল জাকেরীনের মনোনয়ন বাতিল হয়েছে। ঋণ খেলাপীর কারণে তাঁর মনোনয়ন বাতিল হয়। অগ্রণী ব্যাংক সুনামগঞ্জ শাখার ঋণখেলাপি তিনি। এই ব্যাংক থেকে তাঁর ভাই দেওয়ান ছদরুল ছাদেকীন’এর মালিকানাধীন পলাশ ব্রিক ফিল্ড’এর নামে ঋণ উত্তোলন করার পর এটি পরিশোধ হয়নি। পলাশ ব্রিক ফিল্ড’এর মালিকানায় শরিক ছিলেন দেওয়ান জয়নুল জাকেরীন।
দেওয়ান জয়নুল জাকেরীন এ প্রসঙ্গে বলেছেন,‘ইতিমধ্যেই নকল সংগ্রহ করেছি, আইনী ব্যবস্থা নেব, নির্বাচন কমিশনে আপিল করবো।’
প্রসঙ্গত. সুনামগঞ্জ-৪ আসনে বিএনপি’র দলীয় মনোনয়নের চিঠি পেয়েছিলেন সাবেক হুইপ এবং সুনামগঞ্জ-৪ আসনের তিন বারের সাংসদ (১৫ ফেব্রুয়ারি’র বিতর্কিত নির্বাচনসহ) বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা ফজলুল হক আসপিয়া এবং সুনামগঞ্জ পৌরসভার সাবেক চেয়ারম্যান, সুনামগঞ্জ সদর উপজেলা পরিষদের চার বারের উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জেলা বিএনপির সিনিয়র সহসভাপতি দেওয়ান জয়নুল জাকেরীন। দলের চিঠি পেয়ে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছিলেন দুজনেই। দেওয়ান জয়নুল জাকেরীন নির্বাচনে লড়তে সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদ থেকে ইস্তফা দিয়েছেন। সুনামগঞ্জ-১ (জামালগঞ্জ-ধর্মপাশা-তাহিরপুর) আসনে দলীয় চিঠি পেয়ে মনোনয়ন দাখিল করেছিলেন তাহিরপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান কামরুল। তিনি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের পদ থেকে পদত্যাগ করেননি। এ কারণে তাঁর মনোনয়ন বাতিল হয়েছে।
কামরুজ্জামান কামরুল বলেছেন,‘আমি নির্বাচন কমিশনে আপিল করবো, ওখানে ন্যায়বিচার না পেলে হাইকোর্টে রিট দায়ের করবো।’
এই আসনে বিএনপির দলীয় চিঠি পেয়ে মনোনয়ন দাখিলকারী আরও দুই প্রার্থী হলেন- সাবেক সংসদ সদস্য নজির হোসেন ও জেলা বিএনপির সহসভাপতি আনিসুল হক।