জামালগঞ্জে চৈতন্য মহাপ্রভুর আবির্ভাব তিথি উপলক্ষে আলোচনা

জামালগঞ্জ প্রতিনিধি
সুনামগঞ্জের জামালগঞ্জে শ্রীকৃষ্ণ চৈতন্য মহাপ্রভুর ৫৩৫তম আবির্ভাব তিথি ও স্মরণ মহোৎসব উপলক্ষে আলোচনা সভা ও সংকীর্তন শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল দুপুর ১২টায় সাচনা চৌধুরী বাড়িতে শ্রীকৃষ্ণ চৈতন্য সেবা সংঘ, জামালগঞ্জের (বিশ্বম্ভরপুর অঞ্চল) আয়োজনে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। শ্রীকৃষ্ণ চৈতন্য সেবা সংঘের সাধারণ সম্পাদক চয়ন সেনাপতির পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় সভাপতিত্ব করেন সেবা সংঘের সভাপতি গোপাল তালুকদার।
সহকারী শিক্ষক তমাল তালুকদারের সঞ্চালনায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন প্রভুপাদ রাধারমণ গোস্বামীর বংশধর, বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালস্ ঢাকা ও বাংলাদেশ মিলিটারি একাডেমি চট্টগ্রামের শিক্ষক অভিজিৎ গোস্বামী। মুখ্য আলোচকের বক্তব্য দেন বাংলাদেশ শ্রীকৃষ্ণ চৈতন্য সেবা সংঘ কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক শ্যামসুন্দর দে রাধেশ্যাম। বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন বাংলাদেশ কৃষ্ণ অনুরাগী জাগ্রত যুব সংঘ সুনামগঞ্জের প্রতিষ্ঠাতা হিমাদ্রী রায় প্রান্ত ও শ্রীকৃষ্ণ চৈতন্য সেবা সংঘের উপদেষ্টা বিদ্যুৎ জ্যোতি চক্রবর্ত্তী। এতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সেবা সংঘের সাংস্কৃতিক সম্পাদক অনীল দাস। সভার ফাঁকে ভক্তিমূলক সঙ্গীত পরিবেশন করেন দিব্যক পুরকায়স্থ।
সভায় বক্তারা চৈতন্য মহাপ্রভুর জীবন আদর্শ আলোকপাত করতে গিয়ে বলেন, ‘এ জগতে ধর্ম যখন অধর্ম দ্বারা কলুষিত হতে থাকে তখন ধর্ম রক্ষায় চৈতন্য মহাপ্রভুর আবির্ভাব ঘটে। তিনি কৃষ্ণ প্রেমে মানুষকে আকৃষ্ট করে জগতের বুকে এক বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেন। কৃষ্ণ নাম সর্বত্র প্রচারের মাধ্যমে তিনি মানুষের মাঝে বপন করেন কৃষ্ণ নামের মহিমা।’