জামালগঞ্জে ১০টি আশ্রয়কেন্দ্র রান্না করা খাবার বিতরণ

স্টাফ রিপোর্টার
জামালগঞ্জের বন্যা কবলিত বিভিন্ন এলাকা ও আশ্রয় কেন্দ্র রবিবার দুপুরে পরিদর্শন করেছেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) রাশেদ ইকবাল চৌধুরী। এ সময় উপজেলার চারটি আশ্র‍য় কেন্দ্রে আশ্রয় গ্রহণকারীদের মধ্যে রান্না করা খাবার (খিচুড়ি) বিতরণ করা হয়।
সদর ইউনিয়নের গজারিয়া চাঁনপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, সোনাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, লক্ষীপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও জামালগঞ্জ সরকারি ডিগ্রী কলেজ-এর আশ্রয় কেন্দ্রে অবস্থান নেওয়া ১২৮ পরিবারের ৫০৩ জন লোককে খিচুড়ি দেওয়া হয়।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন জামালগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিশ্বজিৎ দেব, উপজেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান বীণা রানী তালুকদার, ভাইস চেয়ারম্যান গোলাম জিলানী আফিন্দী রাজু, জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট হাসান আবদল্লাহ আল মাহমুদ, স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান/ইউপি সদস্য, গণমাধ্যমকর্মীগণ ও স্থানীয় নেতৃবৃন্দ।
এদিকে রবিবার দুপুরে উপজেলা প্রশাসনের নির্দেশনায় ফেনারবাঁক ইউনিয়ন পরিষদের উদ্যোগে লক্ষীপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, লক্ষীপুর দাখিল মাদ্রাসা, হটামারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কাশিপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, আমানীপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও শুকদেবপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের আশ্রয় কেন্দ্রে অবস্থান নেওয়া ৯৯ টি পরিবারের ৪০৫ জন লোকের মধ্যে রান্না করা খাবার (খিচুড়ি) বিতরণ করা হয়। এর আগে এসব আশ্রয় কেন্দ্রে শুকনো খাবার (চিড়া-গুড়) বিতরণ করা হয়েছে।
জামালগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিশ্বজিৎ দেব জানান, বন্যার কারণে বিভিন্ন এলাকায় মোট ৪১ টি আশ্রয় কেন্দ্রে প্রায় ৪০০টি পরিবার আশ্রয় নিয়েছে। আজ ১০ টি আশ্রয় কেন্দ্রে রান্না করা খাবার (খিচুড়ি) বিতরণ করা হয়েছে। আগামীকাল সকল আশ্রয় কেন্দ্রে থাকা পরিবারগুলোকে চাল-ডাল দেওয়া হবে। বন্যায় দুর্গতদের পাশে দাঁড়ানোর জন্য সমাজের বিত্তবানদের প্রতি অনুরোধ জানান তিনি।