জাল টাকা ও প্রিন্টারসহ এক মাদ্রাসা ছাত্র আটক

স্টাফ রিপোর্টার
সুনামগঞ্জে জাল টাকা ও টাকা তৈরির কম্পিউটার প্রিন্টারসহ বরকত আলী (১৭) নামের মাদ্রাসা ছাত্রকে আটক করেছে পুলিশ। গতকাল রোববার বিকালে সদর উপজেলার মঙ্গলকাটা বাজার থেকে একই নাম্বারের ৫০ টাকার ১১ টি জাল নোট ও কম্পিউটার প্রিন্টারসহ পুলিশ তাকে আটক করে।
আটককৃত বরকত আলী মিরেরচর দাখিল মাদ্রসার দশম শ্রেণির ছাত্র ও মঙ্গলকাটা গ্রামের ফজলু মিয়ার ছেলে। মঙ্গলকাটা বাজারে ‘ফ্রেন্ডস কম্পিউটার’ নামে তাদের একটি কম্পিউটার প্রিন্টের দোকান রয়েছে।
স্থানীয় জাহাঙ্গীরনগর ইউপি চেয়ারম্যান মোকছুদ আলী বলেন,‘আটককৃত বরকত আলী জাল টাকা তৈরির বিষয়টি সবার উপস্থিতিতে স্বীকার করেছে। সে জানিয়েছে এই প্রথম ১১টি নোট তৈরি করেছে। শুনেছি সে নাকি ছাত্র, তবে কোন শ্রেণির তা জানি না। পুলিশ টাকা তৈরির একটি কম্পিউটার প্রিন্টার ও তাকে আটক করে নিয়ে গেছে।’  
জানা যায়, মঙ্গলকাটা বাজারে বরকত আলীর ভাইয়ের কম্পিউটার প্রিন্টের দোকানে ছবি উঠানো ও নানা প্রকার প্রিন্ট করা হয়। বেশ কয়েকদিন ধরে এই দোকানেই জাল টাকা তৈরি করেছিল বরকত আলী। ওই জাল টাকা দিয়ে বাজার থেকে বিভিন্ন জিনিসপত্র ক্রয় করে। জাল টাকার বিষয়টি গত ১০-১৫ দিন ধরে বাজারের ব্যবসায়ীদের নজরে আসে। পরে ব্যবসায়ীরা বাজার পরিচালনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক ফার্মেসী ব্যবসায়ী বুরহান উদ্দিনকে জানান। বুরহান উদ্দিন তাৎক্ষণিক বিষয়টি বাজার পরিচালনা কমিটির সভাপতি ইউপি চেয়ারম্যানকে অবগত করেন। বাজার থেকে একাধিক ব্যবসায়ীও পুলিশকে বিষয়টি জানান। বিকালে মঙ্গলকাটা বাজার থেকে কম্পিউটার প্রিন্টারসহ বরকত আলীকে আটক করে সদর থানা পুলিশ।
এসময় স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান, বাজার পরিচালনা কমিটির নেতৃবৃন্দ ও সাধারণ ব্যবসায়ীদের উপস্থিতিতে বরকত আলী স্বীকার করে যে সে ৫০ টাকার ১১ টি জাল নোট তৈরি করেছে। এই প্রথম সে এই কাজ করেছে। আগে কোন দিন সে জাল টাকা তৈরি করেনি।
বাজার পরিচালনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক বুরহান উদ্দিন বলেন,‘বরকত আলী তার কম্পিউটার প্রিন্টার দিয়েই ৫০ টাকার জাল নোট তৈরি করে বাজার থেকে বিভিন্ন জিনিসপত্র কেনা শুরু করে। ব্যবসায়ীরা অতীষ্ট হয়ে বিষয়টি আমাকে জানালে বরকত আলী আর করবে না বলে মাফ চায়। আমরা বিষয়টি পুলিশকে জানালে পুলিশ এসে তাকে আটক করেছে এবং তার প্রিন্টার জব্দ করে নিয়ে গেছে।’
সুনামগঞ্জ সদর থানার ওসি মো. শহীদুল্লাহ বলেন,‘জাল টাকা ও টাকা তৈরির কম্পিউটার প্রিন্টারসহ বরকত আলী নামের একজনকে আটক করা হয়েছে। সে জাল টাকা তৈরির বিষয়টি স্বীকার করেছে। তার কম্পিউটার ও প্রিন্টারটি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হচ্ছে। তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।’



আরো খবর