জেলায় প্রাথমিক বৃত্তি পেল ১৩৭৮ জন

স্টাফ রিপোর্টার
প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা-২০১৯ এর ফলাফলের ভিত্তিতে প্রাথমিক সমাপনী ও ইবতেদায়ি সমাপনীর বৃত্তির ফল প্রকাশ করা হয়েছে। এবার সুনামগঞ্জ জেলায় প্রাথমিকে বৃত্তি পেয়েছে ১৩৭৮ জন। ট্যালেণ্টপুলে বৃত্তি পেয়েছে ৬০৮ জন এবং সাধারণ বৃত্তি পেয়েছে ৭৭০ জন।
সুনামগঞ্জ সদর উপজেলায় ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি পেয়েছে ৮৫ জন এবং সাধারণ বৃত্তি পেয়েছে ১১৪জন। দোয়ারাবাজার উপজেলায় ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি পেয়েছে ৫৯ জন এবং সাধারণ বৃত্তি পেয়েছে ৫৬
জন। বিশ^ম্ভরপুর উপজেলায় ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি পেয়েছে ৪০ জন এবং সাধারণ বৃত্তি পেয়েছে ৩২ জন। ছাতক উপজেলায় ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি পেয়েছে ১০৪ জন এবং সাধারণ বৃত্তি পেয়েছে ১৩৪ জন। তাহিরপুর উপজেলায় ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি পেয়েছে ৫১ জন এবং সাধারণ বৃত্তি পেয়েছে ৪৪ জন। জামালগঞ্জ উপজেলায় ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি পেয়েছে ৩৪ জন এবং সাধারণ বৃত্তি পেয়েছে ৩৮ জন। ধর্মপাশা উপজেলায় ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি পেয়েছে ৫০ জন এবং সাধারণ বৃত্তি পেয়েছে ৬২ জন। শাল্লা উপজেলায় ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি পেয়েছে ২১ জন এবং সাধারণ বৃত্তি পেয়েছে ২৬ জন। দিরাই উপজেলায় ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি পেয়েছে ৬২ জন এবং সাধারণ বৃত্তি পেয়েছে ১১০ জন। জগন্নাথপুর উপজেলায় ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি পেয়েছে ৫৪ জন এবং সাধারণ বৃত্তি পেয়েছে ১০৪ জন। দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলায় ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি পেয়েছে ৪৮ জন এবং সাধারণ বৃত্তি পেয়েছে ৫০ জন।
প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন মঙ্গলবার সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এ ফল প্রকাশ করেন তিনি। এসময় মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. আকরাম-আল-হোসেন, প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. ফসিউল্লাহসহ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
প্রতিমন্ত্রী বলেন, প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষার মাধ্যমে আগে ৫৫ হাজার শিক্ষার্থীকে মেধার ভিত্তিতে বৃত্তি দেওয়া হতো। ২০১৫ সাল থেকে ৮২ হাজার ৫শ শিক্ষার্থী এ সুযোগ পাচ্ছে।
এবার ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি পাবে ৩৩ হাজার শিক্ষার্থী, যা আগে ছিল ২২ হাজার। সাধারণ কোটায় পাবে ৪৯ হাজার ৫শ জন, যা আগে ছিল ৩৩ হাজার জন। যারা সমাপনী পরীক্ষার ফলাফলের ভিত্তিতে বৃত্তি পাবে তাদের ৮ম শ্রেণি পর্যন্ত এই বৃত্তি দেওয়া হবে।
উপজেলা/থানার প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী ছাত্র-ছাত্রীদের সংখ্যার অনুপাতে উপজেলা/থানা কোটা নির্ধারণ করে ট্যালেন্টপুল বৃত্তি বণ্টন করা হয়। সাধারণ বৃত্তি ইউনিয়ন ও পৌরসভা ওয়ার্ডভিত্তিক বিতরণ করা হয়।
এবার মোট ৮ হাজার ২৪টি ইউনিয়ন/পৌরসভার ওয়ার্ডে প্রতিটিতে ৬টি (৩ জন ছাত্র ও ৩ জন ছাত্রী) হিসেবে ৪৮ হাজার ১৪৪টি এবং অবশিষ্ট ১ হাজার ৩৫৬টি বৃত্তি থেকে প্রতিটি উপজেলা/থানায় আরো ২টি (১ জন ছাত্র ও ১ জন ছাত্রী) করে ৫১১টি উপজেলা/থানায় ১ হাজার ২২টি সাধারণ এবং আরো অবশিষ্ট ৩৩৪টি বৃত্তি থেকে প্রতিটি জেলায় আরো ৪টি (২ জন ছাত্র ও ২ জন ছাত্রী) করে ৬৪টি জেলায় ২৫৬টি সাধারণ বৃত্তি দেওয়া হয়েছে।