জেলা আ.লীগ সভাপতি-সম্পাদক দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গ করেছেন-মুকুট

স্টাফ রিপোর্টার
সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের দেওয়া অব্যাহতির চিঠির জবাব দিতে সংবাদ সম্মেলন করেছেন জেলা আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান প্রার্থী নুরুল হুদা মুকুট। মঙ্গলবার দুপুরে শহরের শহীদ মুক্তিযোদ্ধা জগৎজ্যোতি পাবলিক লাইব্রেরীতে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেছেন, দলের গঠনতন্ত্রের ৪৬ ধরার (ঙ) উপধারায় বলা আছে, দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে অভিযুক্ত ব্যক্তিকে কারণ দর্শানোর জন্য সাধারণ সম্পাদক পোস্টাল রেজিস্টেশন যোগে নোটিশ দেবেন। আমার ক্ষেত্রে তারা সেটি করেন নি। ৪৬ (ঞ) ধারায় বলা হয়েছে, সংগঠনের দায়িত্বশীল কাউকে অব্যাহতি দিতে হলে দুই তৃতীয়াংশ সদস্যের মতামতের ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে হবে। উর্ধ্বতন শাখার অনুমোদন লাগবে, তারা সেটিও করেন নি। গঠনতন্ত্রে উল্লেখ রয়েছে, এ ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষমতা কেবলমাত্র কেন্দ্রীয় কমিটির রয়েছে। গঠনতন্ত্র না মেনে আমাকে অব্যাহতির চিঠি দিয়ে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গ করেছেন।
সাংবাদিকদের প্রশের জবাবে মুকুট বলেন, জেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থী না হবার জন্য কেন্দ্রীয় দায়িত্বশীল কেউ বা জেলা কমিটির কেউই আমাকে অনুরোধ করেন নি। কোন নির্দেশও দেন নি। আমার ভোটারদের বিভ্রান্ত করার জন্য এখন দলের অব্যাহতির প্রপাগান্ডা ছড়ানো হচ্ছে।
মুকুট বলেন, প্রায় ২০ বছর জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ছিলাম। দলের দুঃসময়ে রাজপথে আন্দোলন সংগ্রামে ছিলাম। ওয়ান—ইলেভেনে হয়রানির শিকার হয়েছি। এখন একটি স্বার্থান্বেষী মহল ত্যাগী নেতা কর্মীদের কোনঠাসা করার চেষ্টা করছে।
মুকুট বলেন, জেলা পরিষদ নির্বাচনে দলীয় মনোনয়নপ্রাপ্ত প্রার্থী নেই। দল এর আগের বছরের মত একজনকে সমর্থন দিয়েছে। আমি কোনদিন নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে অংশ গ্রহণকারীর বিরোধীতা করি নি। বর্তমান জেলা কমিটির সভাপতি—সাধারণ সম্পাদক বার বার দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে নৌকার বিরোধীতা করেছেন।
তিনি বলেন, এর আগের নির্বাচনে একইভাবে আমি স্বতন্ত্র প্রার্থী ছিলাম। বর্তমান জেলা সভাপতি মতিউর রহমান আমার পক্ষে প্রকাশ্যে সভা সমাবেশে বক্তব্য দিয়েছেন। অথচ, এখন অগঠনতান্ত্রিকভাবে আমাকে চিঠি পাঠান তিনি। এসব আচরণের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাতে শীঘ্রই সভা আহ্বান করবেন বলে জানান তিনি।
সংবাদ সম্মেলনে জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি রেজাউল করিম শামীম, সাংগঠনিক সম্পাদক শংকর দাস, শ্রম বিষয়ক সম্পাদক অ্যাড. আজাদুল ইসলাম রতন, মানবসম্পদ বিষয়ক সম্পাদক সীতেশ তালুকদার মঞ্জু, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক জাহাঙ্গীর হোসেন, দলীয় নেতা অ্যাড. আব্দুল করিম, জেলা কমিটির সদস্য অ্যাড. কল্লোল তালুকদার চপল, অমল কর, দিরাই পৌরসভার সাবেক মেয়র মোশারফ মিয়া প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিউর রহমান তাঁর বিরুদ্ধে এর আগের জেলা পরিষদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষে প্রচারণায় থাকার অভিযোগ সত্য নয় বলে মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, আমি প্রথমে ছিলাম, পরে কেন্দ্র অন্যজনকে দলীয় সমর্থন দেওয়ায় আমি মুকুটের পক্ষে যাই নি। আমি কখনোই দলীয় শঙ্খলা ভঙ্গ করিনি।
সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিউর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম এনামুল কবির ইমন সোমবার জেলা আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি জেলা পরিষদ নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থী নুরুল হুদা মুকুট কে দলের সকল পদ পদবি থেকে অব্যাহতি দেন। সংগঠনের জেলা কমিটির দপ্তর সম্পাদক স্বাক্ষরিত প্রেসবিজ্ঞপ্তি গণমাধ্যমকে পাঠিয়ে এই তথ্য জানানো হয়।