টানা বৃষ্টিপাতে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হচ্ছে

স্টাফ রিপোর্টার
সুনামগঞ্জে বুধবার রাত থেকে সকাল পর্যন্ত টানা বৃষ্টিপাত হয়েছে। টানা বৃষ্টিপাত ও পাহাড়ি ঢলে সুনামগঞ্জের সুরমা নদীর পানি আবারও বৃদ্ধি পেয়েছে। তবে বৃহস্পতিবার বিকালের দিকে দেখা পাওয়া যায় সূর্যের।
গত ২৪ ঘণ্টায় সুরমা নদীর পানি বৃহস্পতিবার দুপুর পর্যন্ত ১২ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়েছে। সকালে সুরমা নদীর পানি বিপদসীমার মাত্র ৫ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল। তবে যাদুকাটা স্টেশনে বিপদসীমার ০.৯৮ মিলিমিটার নিচ দিয়ে এবং দিরাই দিরাই উপজেলার পুরাতন সুরমায় ০.২০ মিলিমিটার এবং ছাতক উপজেলায় সুরমার পানি বিপদসীমার ০.৯৯ মিলিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় বৃহস্পতিবার সকাল ৯ টা পর্যন্ত সুনামগঞ্জে ১৮৫ মিলিমিটার বৃষ্টি রেকর্ড করা হয়েছে। এছাড়াও লাউড়েরগড় স্টেশনে ৮৫ মিলিমিটার, দিরাই স্টেশনে ৯ মিলিমিটার এবং ছাতক স্টেশনে ১০০ মিলিমিটার বৃষ্টি রেকর্ড করা হয়েছে।
বৃহস্পতিবার বন্যা তথ্য কেন্দ্র জানিয়েছে, আগামী ২৪ ঘন্টায় দেশের উত্তর পূর্বাঞ্চলের সিলেট, সুনামগঞ্জ, নেত্রকোণা, কিশোরগঞ্জ ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায় বন্যা পরিস্থিতি স্থিতিশীল থাকতে পারে। গত ২৪ ঘন্টায় চেরাপুঞ্জি (মেঘালয়) ১২১ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে।
পানি বাড়ায় সুনামগঞ্জ পৌর শহরের নতুনপাড়া, শান্তিবাগ, বড়পাড়া, পশ্চিম হাজী পাড়া, মোহাম্মদপুর সহ শহরতলির সড়ক ও বিভিন্ন ঘরবাড়িতে পানি উঠেছে। বন্যার পানি ধীর গতিতে কমায় এখনও অনেকের ঘরবাড়ি থেকে পানি নামেনি। অনেক আশ্রয় কেন্দ্র থেকে মানুষ এখনও বাড়ি ফিরতে পারেনি।
সুনামগঞ্জে মাঝখানে বন্যার পরিস্থিতির উন্নতি হলেও এখনো জেলার বিভিন্ন উপজেলার রাস্তাঘাট, বাড়িঘরে পানি আছে। মানুষ এখনো আশ্রয়কেন্দ্রে আছে। অনেকেই ফিরেছে, আবার যাদের বাড়িঘর ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে, তারা ফিরতে পারছে না। এদিকে বুধবার থেকে আবারও পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় নিচু এলাকা নতুন করে প্লাবিত হওয়ায় আশংকা দেখা দিয়েছে। এখনো জেলার জগন্নাথপুর, তাহিরপুর, জামালগঞ্জ, ছাতক ও দোয়ারাবাজার উপজেলায় মানুষ পানিবন্দি আছে। এসব উপজেলার নিচু এলাকায় বাড়িঘর, রাস্তাঘাটে আছে বন্যার পানি। জেলা ও উপজেলার মূল সড়কগুলো ভেসে উঠলেও ইউনিয়ন ও গ্রামীণ সড়ক এখনো পানিতে প্লাবিত।
সুনামগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী জহুরুল ইসলাম জানিয়েছেন, সুনামগঞ্জ ও মেঘালয় পাহাড়ে বৃষ্টিপাত হওয়ায় সুনামগঞ্জের সুরমাসহ অন্যান্য নদীর পানি বৃদ্ধি পাচ্ছে। তবে এখনও সুরমা নদীর পানি বিপদসীমার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। তিনি আরো বলেন, বৃষ্টিপাত অব্যাহত থাকলে বন্যা পরিস্থিতি অবনতি হতে পারে।