ট্রলারডুবিতে নিখোঁজ দুই জনের লাশ উদ্ধার

মো. ওয়ালী উল্লাহ সরকার, জামালগঞ্জ
জামালগঞ্জে ট্রলারডুবিতে নিখোঁজ দুইজনের লাশ উদ্ধার করেছেন ডুবুরিরা। শুক্রবার সন্ধ্যা পর্যন্ত ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা ঘটনাস্থল থেকে দুইজনের মরদেহ উদ্ধার করে। নিহতরা হলেন, হেলাল মিয়া (৩২), সে সুনামগঞ্জের শান্তিগঞ্জ উপজেলার মুরাদপুর গ্রামের হারুনুর রশিদের ছেলে। অপরজনের নাম তুলা মিয়া (৫০)। তিনি সাচনাবাজার ইউনিয়নের নাজাতপুর গ্রামের রমজান আলীর ছেলে। নিখোঁজ অন্য আরেকজনের লাশ উদ্ধারের চেষ্টা করছেন ডুবুরিরা।
বৃহস্পতিবার রাতে জামালগঞ্জের মান্নানঘাট বাজারের পাশে সংবাদপুর এলাকায় সুরমা নদীতে বাল্কহেডের ধাক্কায় এই ট্রলারডুবির ঘটনায় ঘটে। এসময় বালুবাহি ট্রলারে থাকা ছয় শ্রমিকের তিনজন তীরে ওঠতে পারেন নি। নিখোঁজ অন্য ব্যক্তি হলেন, সাচনাবাজার ইউনিয়নের কুকরাপশি গ্রামের কামাল মিয়ার ছেলে এনামুল হক।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাতটায় একটি বালুবাহি ট্রলার জামালগঞ্জ থেকে গজারিয়ার দিকে যাচ্ছিল। একই সময়ে কিশোরগঞ্জ থেকে সুনামগঞ্জের দুর্লভপুরে আসছিল বাল্কহেড। সংবাদপুর এলাকায় এসে দুটি নৌযানের মধ্যে ধাক্কা লাগে। এসময় বালুবাহি ট্রলার উল্টে যায়। বৃহস্পতিবার রাত দুইটা পর্যন্ত পুলিশের উপস্থিতিতে স্থানীয় লোকজন ও ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা উদ্ধার অভিযান চালিয়ে তাঁদের খুঁজে পায় নি।
জামালগঞ্জ থানার ওসি মীর মোহাম্মদ আব্দুল নাসের জানান, এ ঘটনায় বাল্কহেডসহ চার শ্রমিককে আটক করেছে পুলিশ। আটককৃতরা হলো- বাল্কহেড এর চালক পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া থানার তুপখানা গ্রামের মোহাম্মদ আলীর ছেলে নান্না মিয়া (৬০), একই জেলার ভান্ডারিয়া থানার হরিনপাশা গ্রামের মমিন উদ্দিনের ছেলে কবির হোসেন (৩৫) ও তার ছেলে তাওহিদ মিয়া (১৫) ও মঠবাড়িয়া থানার উদয়তারা বুরুঞ্চা গ্রামের নেছার তালুকদারের ছেলে আয়ুব আলী (৪৮)। তিনি জানান, শুক্রবার সন্ধ্যা পর্যন্ত উদ্ধার অভিযান চালিয়ে নিখোঁজ দুইজনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। আপাতত উদ্ধার অভিযান স্থগিত করা হয়েছে।