তাঁর সৃষ্টি আজও উজ্জীবিত করে আমাদের

স্টাফ রিপোর্টার
আধুনিক বাংলা সাহিত্যের অন্যতম শ্রেষ্ঠ কবি শামসুর রাহমানের ৯৩তম জন্মদিন আজ। দীর্ঘ ৭৭ বছরের বর্ণময় জীবনে তিনি নিমগ্ন ছিলেন কবিতা সৃজনের মোহে ও অনুরাগে। তিনি একাধারে কবি, সাংবাদিক, প্রাবন্ধিক, ঔপন্যাসিক, কলামিস্ট, অনুবাদক ও গীতিকার। বাঙালি জাতির নানা সংগ্রাম, মুক্তিযুদ্ধ, সামাজিক ও রাজনৈতিক জীবনের অসংগতি ও শোষণের বিরুদ্ধে তার অগ্নিদীপ্ত পঙ্ক্তিমালা বাংলা কবিতায় নির্মাণ করেছে অনন্য কাব্যস্বর। শামসুর রাহমানকে নাগরিক কবি বলা হলেও গণমানুষের সঙ্গে আধুনিক বাংলা কবিতার আত্মীয়তা সৃষ্টিতে তার ভূমিকা অগ্রগণ্য। জীবদ্দশাতেই তিনি বাংলাদেশের প্রধান কবি হিসেবে মর্যাদালাভ করেছিলেন। বিংশ শতাব্দীর দ্বিতীয় ভাগ তথা পঞ্চাশের দশকে তিনি আধুনিক কবি হিসেবে বাংলা কবিতায় আবির্ভূত হন। অল্প সময়ের ভেতরেই দুই বাংলায় পরিচিতি লাভ করেন। তাঁর কবিতায় স্বাধীনতা, মৌলবাদ, ধর্মান্ধতা, প্রেম, দ্রোহ, বিশ্বজনীনতা সবই উঠে এসেছে। পঞ্চাশ দশক থেকে বাঙালি জাতির নানা সংগ্রাম, মুক্তিযুদ্ধ, সামাজিক জীবনের অসঙ্গতি, ব্রিটিশ ও পশ্চিমাদের শোষণের বিরুদ্ধে তাঁর সোচ্চার কণ্ঠ কবিতায় নির্মিত হয় এক অনন্য বাক-প্রতিমা।
শামসুর রাহমানের জন্ম ১৯২৯ সালের ২৩ অক্টোবর পুরান ঢাকার মাহুৎটুলীর নানাবাড়িতে। শামসুর রাহমানের ডাকনাম ছিল বাচ্চু। বাবা মুখলেসুর রহমান চৌধুরী ও মা আমেনা বেগম। পৈতৃক বাড়ি নরসিংদী জেলার রায়পুরা থানার পাড়াতলী গ্রামে। পুরান ঢাকায় বেড়ে উঠেছেন কবি- তাই নগরজীবনের নানা অনুষঙ্গ ও উপকরণ বিচিত্র আঙ্গিকে উঠে আসতে দেখা যায় তার কবিতায়। ষাটের দশকের শুরুর দিকেই তার প্রতিভার বিচ্ছুরণে আলোকিত হতে থাকে কবিতার ভুবন। “উনিশ শ’ ঊনপঞ্চাশ” শিরোনামে রচনার মাধ্যমে ১৯৪৮ সালে পদচিহ্ন আঁকেন বাংলা কবিতার আঙিনায়। এটি প্রকাশিত হয় সাপ্তাহিক সোনার বাংলা পত্রিকায়। আধুনিক কবিতার অনন্য পৃষ্ঠপোষক বুদ্ধদেব বসুর ‘কবিতা’ পত্রিকায় তার ‘রূপালি স্নান’ কবিতাটি প্রকাশিত হলে কবি হিসেবে শামসুর রাহমান সুধীজনের দৃষ্টিলাভ করেন।
শামসুর রাহমান ১৯৪৫ সালে পুরনো ঢাকার পোগোজ স্কুল থেকে ম্যাট্রিকুলেশন পাস করেন। ১৯৪৭ সালে ঢাকা ইন্টারমিডিয়েট কলেজ থেকে আইএ পাস করেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ইংরেজি বিষয়ে ভর্তি হন এবং তিন বছর নিয়মিত ক্লাসও করেছিলেন সেখানে। শেষ পর্যন্ত আর চুড়ান্ত পরীক্ষা দেননি। পাসকোর্সে বিএ পাস করে তিনি ইংরেজি সাহিত্যে এমএ (প্রিলিমিনারি) পরীক্ষায় দ্বিতীয় বিভাগে দ্বিতীয় স্থান অর্জন করলেও শেষ পর্বের পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেননি।
তিনি ১৯৫৭ সালে দৈনিক মর্নিং নিউজে সাংবাদিক হিসেবে কর্মজীবন শুরু করেন। এরপর ১৯৫৯ সাল পর্যন্ত রেডিও পাকিস্তনের অনুষ্ঠান প্রযোজক ছিলেন। এরপর তিনি আবার ফিরে আসেন তার পুরনো কর্মস্থল দৈনিক মর্নিং নিউজে। তিনি সেখানে ১৯৬০ সাল থেকে ১৯৬৪ সাল পর্যন্ত সহযোগী সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৬৪ থেকে শুরু করে সরকারি দৈনিক পাকিস্তানের (স্বাধীনতা উত্তর দৈনিক বাংলা) সহকারী সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন ১৯৭৭ এর জানুয়ারি পর্যন্ত। ফেব্রুয়ারি ১৯৭৭ সালে তিনি দৈনিক বাংলা ও সাপ্তাহিক বিচিত্রার সম্পাদক নিযুক্ত হন। ১৯৮৭ সালে সামরিক সরকারের শাসনামলে তাকে পদত্যাগে বাধ্য করা হয়।
‘তুমি আসবে বলে, হে স্বাধীনতা,/ সাকিনা বিবির কপাল ভাঙলো,/ সিঁথির সিঁদুর মুছে গেল হরিদাসীর।/ তুমি আসবে বলে হে স্বাধীনতা,/ শহরের বুকে জলপাইয়ের রঙের ট্যাঙ্ক এলো/ দানবের মত চিৎকার করতে করতে…।’ পঞ্চাশের দশক থেকে বাঙালি জাতির নানা সংগ্রাম, মুক্তিযুদ্ধ, সামাজিক জীবনের অসংগতি, ব্রিটিশ ও পশ্চিমাদের শোষণের বিরুদ্ধে কবি শামসুর রাহমানের কবিতায় নির্মিত হয় এমন সব অনন্য বাকপ্রতিমা।
‘তোমাকে পাওয়ার জন্যে, হে স্বাধীনতা’ কবিতার মতো ‘স্বাধীনতা তুমি’, ‘বুক তার বাংলাদেশের হৃদয়’, ‘হরতাল’, ‘আসাদের শার্ট’, ‘বর্ণমালা, আমার দুঃখিনী বর্ণমালা’, ‘দুঃস্বপ্নে একদিন’ ইত্যাদি কবিতার ¯্রষ্টা ‘স্বাধীনতার কবি’ হিসেবে খ্যাত শামসুর রাহমান। নাগরিক দুঃখ-সুখ ও জীবনযাপন তার কবিতায় বিশেষভাবে উঠে এসেছে। জীবনের সত্য-সুন্দরকে তুলে ধরার ক্ষেত্রে তিনি ছিলেন অনন্য। পাশাপাশি বাঙালির সব আন্দোলন-সংগ্রামের গৌরবদীপ্ত অধ্যায় ফিরে ফিরে এসেছে তার কবিতায়। শত হৃদয়ের কষ্ট-যন্ত্রণা কবিতার স্বরে বেজে উঠেছে তাঁর কন্ঠে। বেদনার্ত হৃদয়ের বাহক হয়ে রচনা করেছেন অজ¯্র কবিতা। শামসুর রাহমানের কবিতায় বেদনা, দুঃখবোধ শক্তিতে রূপান্তরিত হয়েছিল।
শামসুর রাহমান বাংলা কাব্যে সব সময় নাগরিকতার ধারক। তার প্রথম কাব্যগ্রন্থ ‘প্রথম গান দ্বিতীয় মৃত্যুর আগে’ (১৯৬০)। নাগরিক জীবনের ক্লান্তি, ব্যর্থতা, শোভাহীনতা, নৈঃসঙ্গ শামসুর রাহমান সেলাই করে দিয়েছেন তার প্রথম কাব্যগ্রন্থের অনেক স্তবকে। তার কবিতার বিষয়বস্তু ছিল প্রেম, মানবিকতা, স্বাধীনতা, ভাষা। অসাম্প্রদায়িকতা আর অত্যাচারের বিরুদ্ধে তার পঙ্ক্তিমালা উচ্চকিত হয়েছে সব সময়। বাংলাদেশের ভাষাসংগ্রাম, স্বাধীনতা-সংগ্রামের প্রতিটি ধাপে তার কবিতা ছিল অনুপ্রেরণা। নব্বইয়ের স্বৈরাচারী আন্দোলনের সময়ও শামসুর রাহমানের কলম থেমে থাকেনি।
‘নিজ বাসভূমে’, ‘বন্দী শিবির থেকে’, ‘দুঃসময়ে মুখোমুখি’, ‘ফিরিয়ে নাও ঘাতক কাঁটা’, ‘বাংলাদেশ স্বপ্ন দ্যাখে’, ‘ইকারুশের আকাশ’, ‘উদ্ভট উটের পিঠে চলেছে স্বদেশ’, ‘যে অন্ধ সুন্দরী কাঁদে’, ‘অস্ত্রে আমার বিশ্বাস নেই’, ‘দেশদ্রোহী হতে ইচ্ছে করে’, ‘বুক তার বাংলাদেশের হৃদয়’, ‘ভস্মস্তূপে গোলাপের হাসি’ প্রভৃতি কাব্যগ্রন্থের শিরোনামই কবির স্বদেশ চিন্তার অন্যতম দলিল। ‘বন্দী শিবির থেকে’, ‘‘ফেব্রুয়ারি ১৯৬৯’- কবিতাগুলো তার স্বাধীনতাকামী মনের পরিচয় বহন করে।
বাংলা কবিতার আধুনিকতম কবি শামসুর রাহমান। দেশমাতৃকার জন্য যার কবিতা স্লোগানে, ব্যানারে, দেয়াললিখনে এমনকি মুখে মুখে ব্যবহার হয়েছে অহরহ। কবি শামসুর রাহমান ২০০৬ সালের ১৭ আগস্ট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। তাঁর সৃষ্টি আজও আমাদের উজ্জীবিত করে। বাংলা কবিতায় তিনি নতুন ধারা সৃষ্টি করেছিলেন।
জীবদ্দশায় শামসুর রাহমানর ৬৬টি কাব্যগ্রন্থ, ৪টি উপন্যাস, ১টি প্রবন্ধগ্রন্থ, ১টি ছড়ার বই ও ৬টি অনুবাদ গ্রন্থ প্রকাশিত হয়। তিনি অর্জন করেছেন আদমজী সাহিত্য পুরস্কার, বাংলা একাডেমি পুরস্কার, একুশে পদক, নাসির উদ্দিন স্বর্ণপদক, জীবনানন্দ পুরস্কার, আবুল মনসুর আহমদ স্মৃতি পুরস্কার, মিৎসুবিসি পুরস্কার (সাংবাদিকতার জন্য), স্বাধীনতা পদক, আনন্দ পুরস্কার। ভারতের যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় এবং রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয় সম্মানসূচক ডিলিট উপাধিতে ভূষিত করে এই মহান কবিকে।