তারেকের নির্দেশে দেশে ফিরছেন প্রবাসী নেতারা

বিশেষ প্রতিনিধি
বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান যুক্তরাজ্যে থাকলেও তাঁর দল বিএনপি’র নেতাদের দলে দলে দেশে পাঠাতে উৎসাহিত করছেন। গত এক মাসে সুনামগঞ্জ জেলার বাসিন্দা যুক্তরাজ্য বিএনপিতে সক্রিয় অন্তত ৩০ জন নেতা নির্বাচনী কার্যক্রমে অংশ নিতে কিংবা দলের প্রার্থী হবার আগ্রহ নিয়ে দেশে ফিরেছেন। এঁদের মধ্যে সুনামগঞ্জের ৫ টি আসনে মনোনয়নপত্র কিনে জমা দিয়েছেন ১৩ জন। জাতীয় ঐক্য ফ্রন্টের প্রার্থী হতেও কেউ কেউ দেশে এসেছেন। এঁরা মনোনয়ন না পেলেও জাতীয় ঐক্য ফ্রন্টের পক্ষেই নির্বাচনী কার্যক্রমে অংশ নেবেন। বিএনপি’র যুক্তরাজ্য ফেরৎ নেতৃবৃন্দ বলেছেন,‘নির্বাচনকে সামনে রেখে নেতা-কর্মীদের দেশে আসার জন্য উৎসাহিত করছেন তারেক রহমান। আরও অনেকেই কয়েক দিনের মধ্যেই দেশে ফিরবেন।’
সুনামগঞ্জের সবচেয়ে বেশি প্রবাসী অধ্যূষিত নির্বাচনী এলাকা জগন্নাথপুর-দক্ষিণ সুনামগঞ্জ (সুনামগঞ্জ-৩ আসন)। এই আসনের বাসিন্দা বিএনপির যুক্তরাজ্য প্রবাসী নেতাদের অনেকেই দেশে ফিরেছেন। মনোনয়ন জমা দিয়েছেন ৫ জন। এরা হলেন- সুনামগঞ্জ জেলা বিএনপির সহসভাপতি যুক্তরাজ্য প্রবাসী নুরুল ইসলাম সাজু, যুক্তরাজ্য বিএনপির নেতা আনোয়ার হোসেন, এমএ ছাত্তার ও এমএ খলকু। যুক্তরাজ্য বিএনপির সাধারণ সম্পাদক জগন্নাথপুরের বাসিন্দা কয়ছর এম আহমদের পক্ষেও মনোনয়ন জমা দেওয়া হয়েছে। জগন্নাথপুর উপজেলা বিএনপির সভাপতি আবু হুরায়রা ছাদ মাস্টার বলেছেন, ‘কয়ছর দেশে ফিরবেন শীঘ্রই।’ এছাড়াও এই আসনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী হতে চাইছেন গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেনের ঘনিষ্টজন হিসাবে পরিচিত সিলেট জেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি যুক্তরাজ্য প্রবাসী নজরুল ইসলাম।
সুনামগঞ্জ-২ (দিরাই-শাল্লা) আসনে যুক্তরাজ্য প্রবাসী বিএনপি নেতা অ্যাডভোকেট তাহির রায়হান চৌধুরী পাভেলের পক্ষে মনোনয়ন ফরম জমা দেওয়া হয়েছে। যুক্তরাজ্য থেকে তাঁর কয়েকজন সমর্থক ইতিমধ্যে দেশে ফিরেছেন। তাঁর সমর্থক দিরাই পৌর বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক কবির আহমদ বলেছেন, পাভেল সোমবার দেশে ফিরবেন।’ এই আসনে যুক্তরাজ্য বিএনপির নেতা ব্যারিস্টার আবু তাহেরের পক্ষেও মনোনয়ন ফরম কিনে জমা দিয়েছেন তাঁর সমর্থকরা। তিনিও দেশে আসার জন্য প্রস্তুতি নিয়েছেন বলে জানিয়েছেন তাঁর সমর্থকরা।
সুনামগঞ্জ-১ (ধর্মপাশা-জামালগঞ্জ-তাহিরপুর) আসনে যুক্তরাজ্য বিএনপির নেতা ব্যারিস্টার হামিদুল হক আফিন্দির পক্ষে দলীয় মনোনয়ন ফরম জমা দেওয়া হয়েছে। তিনিও শীঘ্রই দেশে ফিরবেন জানিয়েছেন তাঁর সমর্থকরা। এই আসনে যুক্তরাজ্য প্রবাসী তাহিরপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান কামরুলও দলীয় মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছেন।
সুনামগঞ্জ-৫ (ছাতক- দোয়ারা) আসনে যুক্তরাজ্য প্রবাসী আয়ুব করম আলী গণফোরামের কোঠায় জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী হতে চাইছেন। আয়ুব করম আলীর দাবি তিনি গত ৬ বছর হয় এই আসনে নির্বাচনে অংশ নেবার জন্য কাজ করছেন। ড. কামাল হোসেনের দল গণফোরামের সঙ্গে রয়েছে। আশা করছেন এই আসনে ঐক্য ফ্রন্টের মনোনয়ন পাবেন তিনি।
সুনামগঞ্জ-৪ (সদর উত্তর- বিশ্বম্ভরপুর) আসনে জেলা বিএনপির সহসভাপতি যুক্তরাজ্য প্রবাসী আব্দুল লতিফ জেপি দলীয় মনোনয়ন ফরম কিনে জমা দিয়েছেন। তিনি গত আগস্ট মাস থেকে দেশে রয়েছেন।
সুনামগঞ্জ জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক তাহিরপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান কামরুল বলেন,‘বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জনাব তারেক রহমান যুক্তরাজ্যে থাকায় ওখানকার দলীয় নেতা-কর্মীরা অন্য যে কোন সময়ের চেয়ে সক্রিয়। অনেকের সঙ্গে জনাব তারেক রহমানের ব্যক্তিগত পরিচয়ও রয়েছে। কেউ কেউ মনে করছেন পরিচয়ের সুবাদে দলীয় মনোনয়ন পাওয়াও যেতে পারে। এজন্য দেশে এসে এবার অনেকে মনোনয়ন জমা দিচ্ছেন। আবার কেউ কেউ নেতার নির্দেশে (তারেক রহমানের নির্দেশে) নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নিতে দেশে আসছেন।’
সুনামগঞ্জ জেলা বিএনপির সহসভাপতি আব্দুল লতিফ জেপি বলেন,‘বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান, আমাদের নেতা তারেক রহমান কাউকে মনোনয়ন প্রদানের আশ্বাস দিয়ে দেশে পাঠাননি। তিনি নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নেবার জন্য যুক্তরাজ্যের দলীয় নেতাদের দেশে আসার জন্য উৎসাহ দিচ্ছেন। আমার জানা মতে সুনামগঞ্জ জেলায় গত কয়েক দিনে যুক্তরাজ্য বিএনপির ৩০ জনের মতো দায়িত্বশীল নেতা দেশে এসেছেন। দুই দিন আগে ছাতকের ৪-৫ জন এসেছেন। আরও অনেকেই আসবেন।’ তিনি জানান, তাঁর (আব্দুল লতিফ জেপি’র) দলীয় মনোনয়ন নিশ্চিত হলে বন্ধু-বান্ধব আত্মীয় স্বজন মিলে তাঁর জন্যই ২৫-৩০ জন লন্ডন প্রবাসী দেশে আসবেন।’